টেকনাফ-সেন্টমাটিন নৌরুটে ভাঙ্গল অচলাবস্থা: দীর্ঘ ৫ মাস পর অবশেষে জাহাজ চলাচল শুরু

গিয়াস উদ্দিন ভুলু , টেকনাফ:
দীর্ঘ ৫ মাস পর অবশেষে দেশী-বিদেশী পর্যটকসহ ২৫৮ জন যাত্রী নিয়ে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটে জাহাজ চলাচল শুরু হয়েছে। উল্লেখ্য, সাগর উত্তাল, বৈরী আবহাওয়া থাকার কারণে দীর্ঘ ৫ মাস জাহাজ চলাচল বন্ধ ছিল। অবশেষে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন ও টেকনাফ উপজেলা প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করার পর গতকাল ৬ অক্টোবর জেলা ও উপজেলা প্রশাসন অনুমতি নিয়ে টেকনাফ টু সেন্টমাটিন নৌরুটে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল শুরু হয়েছে।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ শফিউল আলম সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত করে আমাদের রামু কে জানান, কেয়ারী সিন্দবাদ, কেয়ারী ক্রুজ এন্ড ডাইন ও বে ক্রুজ সহ মোট ৩ টি জাহাজকে চলাচলের জন্য অনুমতি দিয়েছে। তিনি আরো জানান, নৌরুটে জাহাজ চলাচলের প্রতি নিষেধাজ্ঞা ও অনুমতি কক্সবাজার জেলা প্রশাসক কার্যালয় হতে আদেশ দিয়ে থাকে।

এদিকে জাহাজ কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে খবর নিয়ে জানা যায়, প্রতি বছর ঈদুল আযহা পরবর্তী ছুটি থেকেই এই নৌরুটে জাহাজ চলাচল শুরু হয়ে থাকে। কিন্তু এইবার সাগর উত্তাল ও বৈরী আবহাওয়ার কারনে জেলা প্রশাসন অনুমতি প্রদান করতে বিলম্ব করেছে।

জাহাজ কর্তৃপক্ষ খুশি আর আনন্দ ভরা হাসিতে আরো জানান, দীর্ঘ দিন পর হলেও অবশেষে জাহাজ চলাচলের অনুমতি পাওয়ার পর পর্যটকের সংখ্যা কম হলেও সেন্টমার্টিনের স্থানীয় বাসিন্দা ও ব্যবসায়ীরা আনন্দের জোয়ারে ভাসছে। তার পাশাপাশি কক্সবাজার ও টেকনাফ উপজেলার পর্যটক কেন্দ্রীক ব্যবসায়ীরা আনন্দ প্রকাশ করতে দেখা দিয়েছে।

টেকনাফ টু সেন্টমাটিন নৌরুটে চলাচলকারী কেয়ারী সিন্দবাদ জাহাজের ইনচার্জ শাহ আলম আরো জানান, কেয়ারী গ্রুপের দুইটি জাহাজসহ মোট ৩টি জাহাজ চলাচলের অনুমতি পেয়েছে। সেই ধারাবাহিকতায় অবশেষে গতকাল বৃহ¯পতিবার ২৫৮ জন দেশী-বিদেশী ও স্থানীয় যাত্রী নিয়ে কেয়ারী সিন্দবাদ সেন্টমার্টিনে যাত্রা শুরু করেছে। পর্যটকের সংখ্যা বৃদ্ধি পেলে অন্যন্যা জাহাজ গুলো ও সেন্টমাটিনের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করবে।

এব্যাপারে সেন্টমার্টিন ইউপি চেয়ারম্যান নুর আহমদ জানান, সেন্টমাটিনের হোটেল ও রেস্টুরেন্ট গুলো ঈদুল আযহার পর থেকে পর্যটকদেরকে বরণ করার জন্য বিশাল গ্রহন করে অপেক্ষায় ছিল। অবশেষে জাহাজ চলাচলে অনুমতি পাওয়ায় সেন্টমাটিনবাসীর মাঝে আনন্দ ও উদ্দীপনা দেখা দিয়েছে।