রামুতে প্রথম দিনেই ১৬১৬ জন শিক্ষার্থী করোনা ভাইরাসের টিকা নিয়েছেন

খালেদ শহীদ, রামুঃ
রামুতে শনিবার প্রথম দিনেই ১৬১৬ জন শিক্ষার্থী ফাইজারের টিকা নিয়েছেন। আগামী বৃহস্পতিবার পর্যন্ত মোট ১০ হাজার ৪১০ জন শিক্ষার্থীকে করোনা ভাইরাসের টিকা দেয়া হবে বলে জানা গেছে। প্রথম দিনে টিকা নিয়েছেন রামু সরকারি কলেজ ও রামু উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের ১২ থেকে ১৮ বছর বয়সী শিক্ষার্থীরা।

শনিবার সকাল ৯টায় রামু উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়াম ও অফিসার্স ক্লাব টিকাদান কেন্দ্রে শিক্ষার্থীদের টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন, রামু উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নোবেল কুমার বড়ুয়া।

বিকাল ৫টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত শিক্ষার্থীদের টিকাদান কার্যক্রম পরিদর্শন করেন, কক্সবাজারের সিভিল সার্জন ডা. মাহবুবুর রহমান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয় চাকমা, রামু সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. আবদুল হক, স্কাউট কমিশনার সুকুমার বড়ুয়া, রামু প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি খালেদ শহীদ প্রমুখ।

রামু সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী সাজিদ আবদুল্লাহ নওশাদ ও রামু উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফারিহা জামান মাইসা টিকা দেয়ার পরে জানান, তাঁদেরকে ফাইজার টিকা দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা।

টিকা নেওয়ার পর নওশাদ এবং মাইসা কিছুক্ষন বিশ্রাম নিয়ে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেছেন। তাঁরা দুইজনই বলেছেন প্রথমে কিছুটা ভয় কাজ করলেও টিকা নেওয়ার পর তা চলে গেছে। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে সুরক্ষা পেতে এবং অন্য শিক্ষার্থীদের সুরক্ষা দিতে তাদের বয়সী সকল শিক্ষার্থীকে টিকা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তাঁরা।

কলেজ ও স্কুল শিক্ষার্থীদের টিকাদানের উদ্বোধন শেষে রামু উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নোবেল কুমার বড়ুয়া বলেন, রামুর স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার ১২-১৮ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের টিকা প্রদান শুরু হয়েছে। প্রথম পর্যায়ে শনিবার (৮ জানুয়ারি) থেকে বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) পর্যন্ত রামু সরকারি কলেজ সহ রামু উপজেলার ১৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১০ হাজার ৪১০ জন শিক্ষার্থীকে করোনা ভাইরাসের টিকা দেয়া হবে। পর্যায়ক্রমে রামু উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৩২ হাজার শিক্ষার্থীকে করোনা ভাইরাসের টিকা প্রদান করা হবে।

তিনি বলেন, স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়ার চাহিদা ছিল অভিভাবকদের এবং শিক্ষার্থীদেরও আগ্রহ ছিল টিকা নেওয়ার। রামু স্বাস্থ্য বিভাগের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ও রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয় চাকমার তত্ত্বাবধানে শিক্ষার্থীদের টিকা কার্যক্রম দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলেছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

জানা গেছে, প্রথম পর্যায়ে রামু উপজেলায় অবস্থিত মোট ১৬টি স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার ১২ থেকে ১৮ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের জন্য উপজেলা পরিষদে দুইটি করোনার টিকা কেন্দ্রে স্থাপন করা হয়েছে। এ সকল কেন্দ্রে তাদের টিকা দেয়া শুরু হয়েছে শনিবার থেকে। প্রথম দিনেই রামু সরকারি কলেজ ও রামু উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের ১৬১৬ জন শিক্ষার্থীকে করোনা ভাইরাসের টিকা দেয়া হয়েছে। শুধুমাত্র জন্ম নিবন্ধন ও টিকাকার্ড নিয়ে কেন্দ্রে গিয়ে টিকা দিতে পেরেছেন শিক্ষার্থীরা।

উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ছাত্র ও ছাত্রীদের জন্য আলাদা টিকাদান বুথ স্থাপন করা হয়েছে। প্রত্যেক বুথে একজন করে মেডিকেল অফিসার ও একজন করে মেডিকেল এসিস্ট্যান্ট শিক্ষার্থীদের টিকা প্রদান কার্যক্রমে দায়িত্ব পালন করেছেন। অতিরিক্ত সর্তকতার জন্য টিকাদান কেন্দ্রের পাশেই একটি এম্বুলেন্স এবং প্রতিটি বুথে একটি করে এএফআই বেড প্রস্তুত রাখা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের টিকা গ্রহনে ও শৃংখলা রক্ষায় কাজ করছেন, রামু উপজেলার স্কাউট সদস্য সহ আনসার ব্যাটালিয়ান সদস্যরা।