জুমার বয়ানে ধর্মীয় সম্প্রীতি তুলে ধরার আহ্বান প্রতিমন্ত্রীর

অনলাইন ডেস্কঃ
ধর্মীয় সম্প্রীতি রক্ষায় ধর্মীয় নেতাদের আরও দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনের আহ্বান জানিয়েছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান। একই সঙ্গে জুমার বয়ানে নিয়মিতভাবে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করার কথা বলেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, তথ্য প্রযুক্তির যুগে সম্প্রীতি বিনষ্ট করা অনেক সহজ। তাই সবাইকে এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। গুজবের ফাঁদে পা দেওয়া যাবে না।

সোমবার (২০ ডিসেম্বর) বিকেলে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয় পরিচালিত ‘ধর্মীয় সম্প্রীতি ও সচেতনতা বৃদ্ধিকরণ’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় এক সচেতনতামূলক সংলাপে এসব কথা বলেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র। জাতির পিতা বাংলাদেশের সংবিধানে ধর্মনিরপেক্ষতা তথা অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের মূলনীতি সন্নিবেশিত করে গেছেন।

তিনি আরও বলেন, ভবিষ্যতে কোনো অশুভ শক্তি যেন রাজনৈতিক হীন স্বার্থ চরিতার্থ করার উদ্দেশ্যে দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করতে না পারে সে জন্য ধর্মীয় নেতাদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে দায়িত্ব পালন করতে হবে। বিশেষ করে মসজিদের খতিব ও ইমামরা জুমার বয়ানে নিয়মিতভাবে বিষয়টি তুলে ধরতে পারেন।

মো. ফরিদুল হক খান বলেন, পবিত্র কুরআন ও মহানবীর (সা.) জীবনী, মদিনা সনদ, মক্কা বিজয়ের ঘটনা এবং বিভিন্ন হাদিস থেকে আমরা অসাম্প্রদায়িক সমাজ ব্যবস্থার কথা জানতে পারি। অসাম্প্রদায়িক সমাজ রক্ষায় মহানবীর (সা.) জীবন থেকে শিক্ষা নিয়ে বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রার ধারা অব্যাহত রাখতে হবে।

কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাঈদুল ইসলামের সভাপতিত্বে সংলাপে আরও বক্তব্য রাখেন- ‘ধর্মীয় সম্প্রীতি ও সচেতনতা বৃদ্ধিকরণ করণ’ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক আব্দুল্লাহ আল শাহীন, কুষ্টিয়া জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান, পিপি কুষ্টিয়া অনুপ কুমার নন্দী, ইসলামি আলোচক ড. আব্দুল মোমেন সিরাজী প্রমুখ।

সূত্রঃ জাগোনিউজ