লামায় জীবনযুদ্ধে হার মেনে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানের আত্মহত্যা

মোঃ নাজমুল হুদা, লামাঃ
লামায় জীবনযুদ্ধে হার মেনে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানের আত্মহত্যা করেছেন। অর্থের অভাবে বিনা চিকিৎসায় ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুর পদযাত্রী মুক্তিযোদ্ধা সন্তান হচ্ছে রক্তবমি। কেউ রাখেনি তাঁর খবর। কুঁড়িয়ে আনা শাকপাতা খেয়ে চলছে বৃদ্ধ মা, ৩ সন্তান ও স্ত্রী সহ ৬ জনের সংসার।

অবস্থার অবনতি হলে গতকাল শুক্রবার লামা সরকারি হাসপাতাল থেকে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করলেও টাকা না থাকায় বাড়িতে নিয়ে যায় স্বজনরা। আর এদিকে সংসারের একমাত্র ব্যক্তি অসুস্থ থাকায় থমকে গেছে পরিবারটি।

মোঃ তাজুল ইসলাম পলাশ (৩৬) রূপসীপাড়া ইউনিয়নের বাজার পাড়ার বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম গোলাম বারী’র ছেলে।

তার স্ত্রী হেনা আক্তার বলেন, আমার মৃত শশুড় দেশের জন্য আর আমার স্বামী আওয়ামী লীগের জন্য সারাজীবন ত্যাগ করলেও কেউ এই রক্তিম সময়ে আমাদের মনে রাখেনি। আমরা জননেত্রী শেখ হাসিনার করুণা আশা করছি।

তিনি আরো বলেন, তিন বছর আগে আমার স্বামীকে স্কুলের দপ্তরীর চাকুরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। চাকরিটি ফিরে পেতে লামার সব নেতার দারস্থ হলেও কেউ সহায়তা করেনি !

জানা যায়, গত ১লা ডিসেম্বর বুধবার বিষপান করে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান মোঃ তাজুল ইসলাম পলাশ। সে রূপসীপাড়া ইউনিয়নের বাজার পাড়ার বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম গোলাম বারী’র ছেলে। অবস্থার অবনতি ৩ ডিসেম্বর শুক্রবার রাতে লামা হাসপাতাল থেকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়।