মিয়ানমারে সহিংসতা বন্ধের আহ্বান নিরাপত্তা পরিষদের

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ
জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ মিয়ানমারজুড়ে বাড়তে থাকা সহিংসতায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে অবিলম্বে লড়াই বন্ধ করার ও দেশটির সামরিক বাহিনীকে সর্বোচ্চ সংযম প্রদর্শনের আহ্বান জানিয়েছে।

বুধবার পরিষদের ১৫ সদস্যের সবার সম্মতিতে বিরল এক বিবৃতিতে এ আহ্বান জানানো হয় বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

চলতি বছরের ১ ফেব্রুয়ারি এক সামরিক অভ্যুত্থানে অং সান সু চির নির্বাচিত সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করার পর থেকেই মিয়ানমারজুড়ে অস্থিরতা চলছে। দেশটির বিভিন্ন অংশে জান্তাবিরোধী মিলিশিয়া গোষ্ঠী গড়ে উঠেছে।

দেশটির চিন রাজ্যে ভারী অস্ত্র ও সেনা সমাবেশ করা হচ্ছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। এতে সামরিক শাসনবিরোধী বেসামরিক বাহিনীগুলোর বিরুদ্ধে সেনাবাহিনী খুব শিগগিরই বড় ধরনের অভিযানে নামতে যাচ্ছে, এমন আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

এই পরিস্থিতিকে সামনে রেখে নিরাপত্তা পরিষদের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “সম্প্রতি মিয়ানমারজুড়ে ফের সহিংসতায় নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যরা গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছে। তারা অবিলম্বে সহিংসতা বন্ধ করে বেসামরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছে।”

চিন রাজ্যের পরিস্থিতি নিয়ে মিয়ানমারের জান্তা সরকার কোনো মন্তব্য করেনি। অস্থিরতা কবলিত এই সীমান্ত রাজ্যটি সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে প্রতিরোধে সামনের সারিতে আছে।

সামরিক অভ্যুত্থানের পর থেকে প্রতিবাদ ও সহিংসতায় মিয়ানমার স্থবির হয়ে আছে। দেশ চালাতে জান্তা সরকারকে হিমশিম খেতে হচ্ছে আর একটি ছায়া সরকারের মিত্র বেসামরিক বাহিনী ও সংখ্যালঘু জাতিগোষ্ঠীগুলোর বিদ্রোহীদের মোকাবেলা করতে হচ্ছে তাদের। জান্তা সরকার এই ছায়া সরকারের মিত্র বাহিনীগুলোকে ‘সন্ত্রাসী’ আখ্যা দিয়েছে।

ব্রিটেনের তৈরি করা নিরাপত্তা পরিষদের বিবৃতিতে আরও বলা হয়, “নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যরা ১ ফেব্রুয়ারিতে জারি করা জরুরি পরিস্থিতির পর থেকে মিয়ানমারে যে সব ঘটনা ঘটেছে তা নিয়ে ফের গভীর উদ্বেগ এবং দেশটির সামরিক বাহিনীকে সর্বোচ্চ সংযম প্রদর্শনের আহ্বান জানাচ্ছে।

“তারা মিয়ানমারের জনগণের স্বার্থে ও তাদের ইচ্ছানুযায়ী সংলাপ ও সমঝোতা অনুসরণে উৎসাহিত করছে।”

নিরাপত্তা পরিষদ মিয়ানমারে সংকটের মুখে থাকা সব লোকের কাছে পুরোপুরি নিরাপদ ও বাধাহীনভাবে মানবিক ত্রাণ পৌঁছানোর এবং মানবিক ত্রাণ ও চিকিৎসা কর্মীদের সুরক্ষা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছে।

সূত্রঃ বিডিনিউজ