প্রতিরোধ

সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী কবিতা

মুজতবা আহমেদ মুরশেদঃ
এ আমার পোড়া ঘর। শোয়া বসা, প্রাণের সংসার।
পুজোর ঠাকুর, আমার দেবালয়, আরতির সুখ- সব
জ্বলে পুড়ে ভস্ম, রাতারাতি ছাই। আমি কই যাই! কোথায়!
হতভাগা জনমভূমিতে, জনম নিয়াও আমারি নাই ঠাঁই।

ধর্মই আছে শুধু শরীরে বসা। মানুষের ছাপ নাই কোনো!
আমারি চোখের খোদলে অভিশাপী শকুন উড়ে যেন।
সবকিছু পোড়া। আঁজলায় জল নিয়ে কেউ নাই কেন?

পৃথিবী ডুবে যায় আগুনে শুধু। এত আগুন দেখি নাই।
পিশাচের হুঙ্কার, আগুনে পোড়াও মালাউন।
আমি কই, শোনো ভাই, আমিও মানুষ। আমারো আছে জান।
তোমার আল্লায় আমারেও বানায়াছে। আগুনে বড় ভয় পাই।

শোনে নাই কথা। নাই দয়ামায়া বেহেস্তের আশায়।
পোড়া দেয়ালের তলে দুধের কইন্যারে নিলো দিয়া টান।
ভরা দুপুরের রাতেই অবলীলায় কচিবুকে হইলো সওয়ার।

হায় রে এ জনম ভূমি আমার! কেন আমারেই কাঁদায়?

তবুও ভাবি চোখের জল মোছা চাই। চাই নবীন প্রতিরোধ।
আমারো চোখ লাল হতে জানে। জানে মানুষের নিতে রূপ।
মানুষই ধ্বংস করতে জানে শয়তানের দানব খসলত।