বিশ্বকাপ শেষ সাকিবের

ক্রীড়া ডেস্কঃ
সেমি-ফাইনাল স্বপ্ন কার্যত শেষ হয়ে যাওয়ার পর আরেকটা ধাক্কা খেল বাংলাদেশ দল। সুপার টুয়েলভের পরের দুই ম্যাচে ভালো কিছু করার আশায় লাগল প্রবল চোট। হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে গেলেন দলের বড় ভরসা ও আইসিসি টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ের সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে গত শুক্রবার টান লাগে সাকিবের হ্যামস্ট্রিংয়ে। এরপর থেকে বিশ্রামে ছিলেন তিনি। রোববার চোটের অবস্থা পরীক্ষা করে দুঃসংবাদ জানা যায় সন্ধ্যায়। বিসিবি এক বিবৃতিতে জানায়, বিশ্বকাপের বাকি অংশে অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটারকে আর পাওয়া যাবে না।

দলের সঙ্গে থাকা বিসিবির প্রধান চিকিৎসক দেবাশিষ চৌধুরি জানান সাকিবের চোটের বিস্তারিত।

“ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচে ফিল্ডিংয়ের সময় সাকিবের বাঁ হ্যামস্ট্রিংয়ে টান লাগে। পরীক্ষা করে দেখা যায় ‘গ্রেড ১’ মাত্রার চোট এটি। বিশ্বকাপের শেষ দুই ম্যাচের জন্য ও পরবর্তী পরীক্ষা পর্যন্ত সে মাঠের বাইরে থাকবে।”

বিবৃতিতে বিসিবি জানায়, সাকিবের পরিবর্তে স্কোয়াডে কাউকে নেওয়া হবে না। বাস্তবতা হলো, কাউকে নেওয়ার অবস্থাই নেই!

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে এ নিয়ে দুই জন খেলোয়াড়কে হারাল বাংলাদেশ। এর আগে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সুপার টুয়েলভের প্রথম ম্যাচের পর পিঠের চোটে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে যান মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন। এই পেস বোলিং অলরাউন্ডারের জায়গায় ডাক পান রিজার্ভ হিসেবে দলের সঙ্গে থাকা পেসার রুবেল হোসেন।

তিনিই ছিলেন বাংলাদেশের বহরে একমাত্র বাড়তি খেলোয়াড়। রুবেলের সঙ্গে শুরুতে রিজার্ভ তালিকায় থাকা লেগ স্পিনার আমিনুল ইসলাম বিপ্লবকে ওমান থেকে দেশে ফেরত পাঠায় বাংলাদেশ। তাই সাকিবের বিকল্প হিসেবে এই মুহূর্তে কাউকে নেওয়ার সুযোগ নেই।

জৈব-সুরক্ষা বলয়ে কোনো খেলোয়াড় থাকলে তাকে দলে নিতে কোনো সমস্যা হতো না। কিন্তু তেমন কেউ না থাকায় বাকি দুই ম্যাচ ১৪ জনের দল নিয়েই খেলতে হবে বাংলাদেশকে। কারণ, কোভিড প্রটোকল অনুযায়ী সুরক্ষা বলয়ের বাইরে থেকে আসা খেলোয়াড়কে ছয়দিন থাকতে হবে কোয়ারেন্টিনে। এর আগেই শেষ হয়ে যেতে পারে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ অভিযান।

অঙ্কের হিসেবে বাংলাদেশ এখনও সেমি-ফাইনালের লড়াইয়ে থাকলেও বাস্তব সম্ভাবনা খুব একটা নেই। মঙ্গলবার দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষ ম্যাচের পর বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ খেলবে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে।

সাকিব না থাকায় এই দুই ম্যাচে ভারসাম্যপূর্ণ একাদশ গড়াই কঠিন হয়ে গেল বাংলাদেশের জন্য। সাইফের বিদায়ে ব্যাটিংয়ে কিছুটা শক্তি হারিয়েছিল দল। সাকিব ছিটকে যাওয়ায় তার জায়গায় কোনো একজন বিশেষজ্ঞ বোলার কিংবা ব্যাটসম্যানকে নিয়ে কাজ সারতে হবে অধিনায়ককে।

খুব বেশি বিকল্পও নেই মাহমুদউল্লাহর হাতে। চোটের জন্য সবশেষ ম্যাচে ছিলেন না নুরুল হাসান সোহান। এই কিপার-ব্যাটসম্যান রোববারও বিশ্রামে থাকবেন। আগামী সোমবার তার খেলার সম্ভাব্যতা যাচাই করবে মেডিক্যাল টিম। তার বাইরে গত ম্যাচে একাদশে ছিলেন না কেবল নাসুম আহমেদ, শামীম হোসেন ও রুবেল।

সূত্রঃ বিডিনিউজ