ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক হচ্ছেন কারা?

ক্রীড়া ডেস্কঃ
জাতীয় নির্বাচনের চেয়েও বিসিবির পরিচালনা পর্ষদের নির্বাচন বেশি কঠিন মনে হচ্ছে নাজমুল হাসানের জন্য। যদিও অতি নাটকীয় কিছু না হলে তার আবার বিসিবি প্রধানের পদে ফেরা সময়ের ব্যাপার মাত্র। তারপরও ৫৭ জন ভোটার ১৬ জন প্রার্থীর মধ্য থেকে ১২ জনকে বেছে নিবেন বলে একটু হলেও স্নায়ু চাপ টের পাচ্ছেন তিনি।

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বিসিবির বোর্ড রুমে বুধবার সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ভোট নেওয়া হবে।

এবারের নির্বাচনে ভোটার ১৭৩ জন, কিন্তু ভোট দিতে পারবেন কেবল ১২৭ জন। বাকি ভোটারদের জায়গায় যত পদ তার বেশি প্রার্থী নেই। ৭০ জন কেন্দ্রে এসে ভোট দিবেন, বাকি ৫৭ জন ই-ভোট ও পোস্টাল ভোট দিবেন।

নাজমুল হাসান আগেই ঘোষণা দিয়েছিলেন, এবার কোনো প্যানেল নেই। প্রত্যেককেই যার যার মতো করে নির্বাচনে জিতে আসতে হবে। তবে গত সোমবার ঢাকার একটি হোটেলে ‘গেট টুগেদার উইথ কাউন্সিলরস অ্যান্ড অফিসিয়ালস’ অনুষ্ঠানে প্রার্থীদের বড় একটা অংশ উপস্থিত ছিলেন। সমমনা কিংবা একই ঘরানার ক্রীড়া সংগঠকদের উপস্থিতিতে ভোটের মোটামুটি একটা চিত্র সেখানে মিলেছে।

প্রিসাইডিং অফিসার এসএম কবিরুল হাসান জানান, প্রস্তুতি শেষ, এখন শুধু সময়ের অপেক্ষা।

“আমি এসেছি প্রস্তুতিটা দেখার জন্য, ব্যালট প্রস্তুত হল কিনা। আপনারা জানেন ই-ভোট ও পোস্টাল ব্যালট আমরা ইতোমধ্যে পাঠিয়ে দিয়েছি। আমাদের ভোট প্রক্রিয়া যখন সম্পন্ন হবে তখন এগুলো ওপেন করব। বেসরকারিভাবে আগামীকালই ফল ঘোষণা করা হবে, আর সরকারিভাবে তার পরের দিন ফল পাওয়া যাবে।”

বিসিবির পরিচালনা পর্ষদে থাকবেন ২৫ পরিচালক। এদের ২৩ জন আসবেন তিনটি ক্যাটাগরিতে। বাকি দুই জন বোর্ডে আসবেন জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের মনোনয়নে। সেখানে আহমেদ সাজ্জাদুল আলম ও জালাল ইউনুসের আসা অনেকটাই নিশ্চিত।

সব ক্যাটাগরি মিলিয়ে ৩২ প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। মনোয়নপত্র প্রত্যাহারের নির্ধারিত সময়ে সরে যান শওকত আজিজ রাসেল। আর সময় শেষ হওয়ার পর এক চিঠিতে নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার কথা জানান খালিদ হোসেন। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে না জানানোয় তার নাম থাকবে ব্যালটে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন ক্লাব প্রতিনিধি- ক্যাটাগরি ২-এ পদ ১২টি। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ১৬ জন। ৫৭ জন ভোটার এই ক্যাটাগরিতে ভোট দেবেন।

ক্যাটাগরি দুইয়ে ভোট যুদ্ধে আছেন- নাজমুল হাসান (আবাহনী লিমিটেড), গাজী গোলাম মর্তুজা (গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স), নজিব আহমেদ (শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাব), মাহবুব উল আনাম ও মাসুদুজ্জামান (মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব), ওবায়েদ রশিদ নিজাম (শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাব), সাইফুল ইসলাম ভূঁইয়া (ওল্ড ডিওএইচএস স্পোর্টস ক্লাব), সালাহ উদ্দিন চৌধুরী (কাকরাইল বয়েজ ক্লাব), ইসমাইল হায়দার মল্লিক (শেখ জামাল ক্রিকেটার্স), এনায়েত হোসেন (আজাদ স্পোর্টিং ক্লাব), ফাহিম সিনহা (সূর্য তরুণ ক্লাব), ইফতেখার রহমান (ফেয়ার ফাইটার্স স্পোর্টিং ক্লাব), মনজুর কাদের (ঢাকা এসেটস), মোহাম্মদ আব্দুর রহমান (মিরপুর বয়েজ ক্রিকেট ক্লাব), রফিকুল ইসলাম (গাজী টায়ার্স ক্রিকেট একাডেমি) ও মনজুর আলম (আসিফ শিফা ক্রিকেট একাডেমি)।

আঞ্চলিক ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার প্রতিনিধি- ক্যাটাগরি ১-এ পরিচালক পদ ১০টি। এর মধ্যে চট্টগ্রাম বিভাগ, খুলনা বিভাগ, রংপুর বিভাগ, সিলেট বিভাগ ও বরিশাল বিভাগের সাত পদে নেই কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী। নির্বাচন হবে ঢাকা বিভাগের দুটি ও রাজশাহী বিভাগের একটি পদে। বিসিবির গঠনতন্ত্রে ময়মনসিংহ এখনও বিভাগ নয়।

এর মাঝে সাত জন-আ জ ম নাছির উদ্দীন ও আকরাম খান (চট্টগ্রাম বিভাগ), কাজী ইনাম আহমেদ ও শেখ সোহেল (খুলনা বিভাগ), শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল (সিলেট বিভাগ), এডভোকেট আনোয়ারুল ইসলাম (রংপুর বিভাগ) ও আলমগীর খান আলোর (বরিশাল বিভাগ) কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী নেই।

আর ঢাকা বিভাগের দুটি পদের জন্য নির্বাচনে দাঁড়িয়েছেন তানভীর আহমেদ টিটু (নারায়ণগঞ্জ), নাঈমুর রহমান দুর্জয় (মানিকগঞ্জ) ও সৈয়দ আশফাকুল ইসলাম টিটু (কিশোরগঞ্জ)। খালিদের নামও থাকবে ব্যালটে। এই বিভাগের ১৮ জন কাউন্সির বেছে নেবেন যে কোনো দুই জনকে।

রাজশাহী বিভাগে একটি পদের জন্য লড়বেন খালেদ মাসুদ (রাজশাহী বিভাগ) ও সাইফুল আলম স্বপন চৌধুরী (পাবনা)। ৯ জন কাউন্সিলর বিভাগের পরিচালক নির্বাচন করবেন।

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, সাবেক ক্রিকেটার, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি- ক্যাটাগরি তিনে বিসিবি পরিচালক পদ একটি। নির্বাচনে দাঁড়িয়েছেন খালেদ মাহমুদ সুজন ও নাজমুল আবেদীন ফাহিম। ৪৩ জন ভোটার বেছে নিবেন তাদের মধ্যে একজনকে।

সূত্রঃ বিডিনিউজ