বাংলাদেশের সামনে নতুন চেহারার শ্রীলঙ্কা

ক্রীড়া ডেস্কঃ
থিসারা পেরেরার চমক জাগানো অবসরের ঘোষণার সময় যে ইঙ্গিত মিলেছিল, সেটাই সত্যি হলো। বাংলাদেশ সফরের শ্রীলঙ্কা দলে পরিবর্তনের ছড়াছড়ি। নতুন চেহারার এক দল নিয়ে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে আসছে সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

নেতৃত্বেও আছে বড় চমক; মাঝে যারা দলেই ছিলেন না তারাই ফিরেছেন অধিনায়ক হয়ে। ওয়ানডে দলের অধিনায়ক করা হয়েছে কুসল পেরেরাকে আর সহ-অধিনায়ক কুসল মেন্ডিসকে। দুই জনই দেশের হয়ে সবশেষ ওয়ানডে খেলেছেন গত বছর মার্চে, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে।

নিয়মিত অধিনায়ক দিমুথ করুনারত্নে, অভিজ্ঞ অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস ও দিনেশ চান্দিমালসহ নিয়মিত খেলোয়াড়দের অনেকেই নেই দলে। প্রমোদ্যা বিক্রমাসিংহের নেতৃত্বাধীন শ্রীলঙ্কার নতুন নির্বাচক কমিটি ও কোচ মিকি আর্থার আভাস দিলেন, ২০২৩ বিশ্বকাপকে সামনে রেখে ওয়ানডে দলকে ঢেলে সাজাতে চান তারা।

দলটির কেবল তিন জনের বয়স ৩০ এর উপরে। তাদের মধ্যে একমাত্র ইসুরু উদানার বয়স ৩১ এর বেশি, ৩৩ বছর।

গত মার্চে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের ২০ জনের দল থেকে নেই ৯ জন। বাংলাদেশের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের ১৮ সদস্যের দলে এসেছেন সাত জন।

করুনারত্নের নেতৃত্ব হারানো ও দল থেকে বাদ পড়া বিস্ময় হয়ে এসেছে। মাঝে দেড় বছর শ্রীলঙ্কার পারফরম্যান্স ছিল খুব খারাপ, এর মধ্যে এক পর্যায়ে টানা ৯ ওয়ানডেতে হেরেছিল তারা। ২০১৯ সালের এপ্রিলে করুনারত্নে নেতৃত্বে আসার পর দল সাফল্যের পথে ফিরতে শুরু করে। এই সময়ে ব্যাট হাতে তার গড় ৩৬.০৬ ও স্ট্রাইক রেট ৭৬.৫২। তার অধিনায়কত্বে ১০টি ওয়ানডেতে জিতেছে শ্রীলঙ্কা, হেরেছে সাতটিতে।

দলে না থাকার আভাস পেয়ে অভিমানে পেস বোলিং অলরাউন্ডার থিসারা তো অবসরই নিয়ে ফেলেছেন। সবচেয়ে বড় চমক সম্ভবত ম্যাথিউসের বাদ পড়া। সাম্প্রতিক সময়ে ওয়ানডেতে তার পারফরম্যান্স বেশ ভালো, দ্বিতীয় শেষ ম্যাচে জেতেন সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার। ২০১৯ বিশ্বকাপে ছিলেন দলের সেরা ব্যাটসম্যানদের একজন। ২০১৮ সালে রান করেছিলেন ৫২.৫০ গড়ে, এর আগের বছর ৬৩.৬৬ গড়ে। গত বছরের শুরুতে অভিজ্ঞ এই অলরাউন্ডারের ফিল্ডিং ও ফিটনেসে উন্নতির ছাপ ছিল স্পষ্ট।

কুসল পেরেরা শ্রীলঙ্কাকে কখনও কোনো সংস্করণে নেতৃত্ব দেননি। তবে ২০১৯ সালে ব্যাট হাতে বেশ ধারাবাহিক ছিলেন তিনি। সে বছর ওয়ানডেতে ১০০ স্ট্রাইক রেট ও ৪৩.০৬ গড়ে রান করেছিলেন বিস্ফোরক এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। শেষ পাঁচ বছরে শ্রীলঙ্কার নবম ওয়ানডে অধিনায়ক হলেন তিনি।

আর কুসল মেন্ডিস সবশেষ ৫ টেস্ট ইনিংসে টানা চারবার শূন্য রানে আউট হওয়ার পর গত জানুয়ারিতে সব সংস্করণেই দলে জায়গা হারান। গত বছর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ওয়ানডেতে অবশ্য ভালো করেছিলেন তিনি, ছিল একটি করে ফিফটি ও সেঞ্চুরি।

দলে থাকতে পারতেন আভিশকা ফার্নান্দো। কিন্তু ফিটনেস পরীক্ষায় উৎরাতে পারেননি তিনি। একই কারণে ফেব্রুয়ারিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরেও যেতে পারেননি এই ব্যাটসম্যান। ক্যারিবিয়ান সফরে নিজের প্রথম সিরিজে ভালো করা পাথুম নিসানকা ও আশেন বান্দারা ধরে রেখেছেন জায়গা।

সবশেষ সিরিজের দল থেকে আরও নেই ওশাদা ফার্নান্দো, কামিন্দু মেন্ডিস, সুরঙ্গা লাকমল, নুয়ান প্রদিপ ও দিলশান মাদুশঙ্কা।

দলে ফিরেছেন ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ও উদানা। ডাক পেয়েছেন একটি টেস্ট খেলা চামিকা করুনারত্নে, দুটি টি-টোয়েন্টি খেলা বিনুরা ফার্নান্দো। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এখনও কোনো ম্যাচ খেলার সুযোগ হয়নি ২৮ বছর বয়সী পেসার শিরান ফার্নান্দোর।

আগামী ২৩, ২৫ ও ২৮ মে তিনটি ম্যাচই হবে মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে।

শ্রীলঙ্কা ওয়ানডে দল:
কুসল পেরেরা (অধিনায়ক), কুসল মেন্ডিস (সহ-অধিনায়ক), দানুশকা গুনাথিলাকা, ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা, পাথুম নিসানকা, দাসুন শানাকা, আশেন বান্দারা, ভানিদু হাসারাঙ্গা, ইসুরু উদানা, আকিলা দনাঞ্জয়া, নিরোশান ডিকভেলা, দুশমন্থ চামিরা, রমেশ মেন্ডিস, আসিথা ফার্নান্দো, লাকসান সান্দাক্যান, চামিকা করুনারত্নে, বিনুরা ফার্নান্দো, শিরান ফার্নান্দো।

সূত্রঃ বিডিনিউজ