সকাল ৯টায় এসে ৪০ মিনিট অফিসে থাকা বাধ্যতামূলক

অনলাইন ডেস্কঃ
সেবাগ্রহণকারীদের সুবিধা ও কাজে গতি বাড়াতে মাঠ পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সকাল ৯টায় অফিসে এসে অবশ্যই ৯টা ৪০ মিনিট পর্যন্ত নিজ দফতরে অবস্থানের নির্দেশ দিয়েছে সরকার।

এ সংক্রান্ত আগের পরিপত্রের কথা মনে করিয়ে দিয়ে গত ১০ মার্চ সব বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক (ডিসি) এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের (ইউএনও) চিঠি পাঠিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

সেখানে বলা হয়েছে, জরুরি পরিস্থিতি ছাড়া সকাল ৯টা থেকে ৯টা ৪০ মিনিট পর্যন্ত অফিসকক্ষে অবস্থানের জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছিল। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে মাঠ পর্যায়ের দফতরগুলোর কার্যক্রম নিয়মিত তদারকি করা হয়। মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগের ক্ষেত্রে অনেক কর্মকর্তাকে সম্প্রতি অফিসকক্ষে পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে জনসাধারণ ও অন্যান্য সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রয়োজনীয় সংযোগ সংস্থাপন অসম্ভব হয়ে পড়েছে। এতে সাধারণ নাগরিকরা যেমন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন তেমনি সরকারি কাজের গতিও শ্লথ হচ্ছে।

জনস্বার্থে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আবশ্যিকভাবে সকাল ৯টায় অফিসে এসে অত্যাবশ্যকীয়ভাবে ৯টা ৪০ মিনিট পর্যন্ত অফিসে অবস্থান করে অফিসের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য অনুরোধ করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। পাশাপাশি ২০১৯ সালের ২৭ আগস্ট জারিকৃত এ সংক্রান্ত পরিপত্রের কথাও মনে করিয়ে দেয়া হয়েছে।

যা আছে সেই পরিপত্রে

অফিসে আসার সময় পথিমধ্যে দাফতরিক বা ব্যক্তিগত বিভিন্ন কাজের অজুহাত দেখিয়ে কতিপয় কর্মকর্তা বা কর্মচারী সঠিক সময়ে অফিসে উপস্থিত হন না মর্মে সম্প্রতি পরিলক্ষিত হচ্ছে। ফলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে জনসাধারণ ও অন্যান্য সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রয়োজনীয় সংযোগ স্থাপন দুঃসাধ্য বা অসম্ভব হয়ে পড়ে। এতে সাধারণ নাগরিক যেমন ক্ষতিগ্রস্ত হন তেমনি সরকারি কাজের গতিও শ্লথ হয়।

এতে আরও বলা হয়, মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের এ মর্মে অনুশাসন দেয়া যাচ্ছে যে, তারা সকাল ৯টা থেকে ৯টা ৪০ মিনিট সময় পর্যন্ত আবশ্যকীয়ভাবে নিজ অফিস কক্ষে অবস্থান করে অফিসের স্বাভাবিক কার্যক্রম পরিচালনা করবেন। দাফতরিক কর্মসূচি প্রণয়নকালে লক্ষ্য রাখতে হবে যেন তাদের সকাল ৯টা থেকে ৯টা ৪০ মিনিট পর্যন্ত অফিসে অবস্থান ব্যাহত না হয়।

পরিপত্রে বলা হয়, অফিস সময়ে অফিস কক্ষে বা দফতরে অবস্থান করে মাঠ পর্যায়ের যেসব কর্মকর্তা-কর্মচারী কাজ করেন তাদের ক্ষেত্রে এই বাধ্যবাধকতা প্রযোজ্য হবে। ভিভিআইপি বা ভিআইপিদের প্রটোকল দেয়া, আকস্মিকভাবে সংঘটিত কোনো বড় রকমের দুর্ঘটনা মোকাবিলা, গুরুত্বপূর্ণ সভায় যোগদান এবং অনুমোদিত ভ্রমণসূচির মাধ্যমে সফরে যেতে এ বাধ্যবাধকতা প্রযোজ্য হবে না।

সেবাগ্রহণকারী নাগরিকদের সুবিধা এবং সরকারি কর্মকাণ্ডে গতিশীলতা ও সমন্বয় বাড়াতে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জনস্বার্থে সকাল ৯টায় সরাসরি অফিসে এসে আবশ্যকীয়ভাবে সকাল ৯টা ৪০ মিনিট পর্যন্ত অফিসে অবস্থান করে অফিসের কার্যক্রম পরিচালনা করতে পরিপত্রে নির্দেশনা দেয়া হয়।

সূত্রঃ জাগোনিউজ