প্রিয় ৩ নম্বর হারাচ্ছেন সাকিব

ক্রীড়া ডেস্কঃ
প্রিয় পজিশন তিন নম্বরে ফিরে আলো ছড়ানো সাকিব আল হাসানকে আবার নেমে যেতে হচ্ছে মিডল অর্ডারে। সম্ভাবনাময় তরুণ বাঁহাতি ব্যাটসম্যান নাজমুল হোসেন শান্তকে এই পজিশনে সুযোগ দিতে চান প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ সামনে রেখে সোমবার ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে আসেন ডমিঙ্গো। আসন্ন সিরিজে বাংলাদেশের ব্যাটিং অর্ডার সম্পর্কে একটি ধারণা দেন তিনি।

এক ধাপ নিচে নামছেন মুশফিকুর রহিমও। ছয়ে খেলবেন মাহমুদউল্লাহ। ওপেনার সৌম্য সরকারকে সাতে খেলানোর কথা ভাবছেন কোচ।

“এরই মধ্যে ছেলেদের সঙ্গে কথা বলেছি। ওরা নিজেদের ভূমিকা জানে। আমরা এখনও একাদশ ঠিক করিনি। আজ ওরা জেনে যাবে, ওদের ব্যাটিং পজিশন কি হতে যাচ্ছে। গণমাধ্যম জানার আগেই ওরা জানবে, কে কোথায় ব্যাট করবে।”

“অবশ্যই শান্ত খুব ভালো ছন্দে আছে। সাকিবের ফেরাটা দারুণ একটা ব্যাপার। তিন নম্বরে ওর অবিশ্বাস্য একটা বিশ্বকাপ কেটেছিল। এই মুহূর্তে আমি চার-পাঁচ-ছয়ে সাকিব-মুশফিক-রিয়াদের মতো অভিজ্ঞ খেলোয়াড়দের কথা ভাবছি। এতে আমাদের মিডল অর্ডার হবে পরিণত এবং অভিজ্ঞতায় পূর্ণ। আমরা জানি, উপমহাদেশে মিডল অর্ডার খুব গুরুত্বপূর্ণ।”

তিন নম্বরে যখনই খেলেছেন সাকিব, রান পেয়েছেন। ওয়ানডেতে এই পজিশনে ২৩ ম্যাচে ৫৮.৫৮ গড়ে করেছেন এক হাজার ১৭৭ রান। দুটি সেঞ্চুরির পাশে ফিফটি ১১টি।

গত বছর বিশ্বকাপের আগে আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ দিয়ে ফিরেছিলেন প্রিয় তিন নম্বরে। সেই টুর্নামেন্টের পর বিশ্বকাপেও খেলেন টপ অর্ডারে। দুর্দান্ত কাটে সেই আসর। ব্যাটে-বলে সাকিব ছিলেন অবিশ্বাস্য। সবশেষ ১১ ইনিংসে রান করেছেন ৯৩.২৫ গড়ে, এই সময়ে তার ব্যাট থেকে এসেছে দুই সেঞ্চুরি ও সাত ফিফটি। ৩০ এর নিচে আউট হয়েছেন কেবল একবার।

বিশ্বকাপের পর শ্রীলঙ্কা সফরে যাননি সাকিব। এক বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি দিয়ে ক্রিকেটে ফেরেন তিনি। খুব সুখকর হয়নি সেই ফেরা। এই টুর্নামেন্টে ৯ ম্যাচ খেলে কেবল ১১০ রান করতে পারেন ১২.২২ গড়ে। বল হাতে উইকেট মোটে ৬টি।

প্রেসিডেন্টস কাপে ব্যর্থ শান্ত ভালো করেন বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে। ৮ ম্যাচে এক সেঞ্চুরি ও দুই ফিফটিতে করেন ৩০১ রান। নিজেদের মধ্যে ভাগ হয়ে খেলা দুই প্রস্তুতি ম্যাচেও পান রান। প্রথম ম্যাচে ৩৫ বলে করেন ২৭, পরেরটিতে ৫১ বলে ৬১। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে শুরুতে সংগ্রাম করা এই তরুণকে আরও সুযোগ দিতে চান ডমিঙ্গো।

“এই মুহূর্তে শান্ত খুব ভালো ছন্দে আছে। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সবশেষ সিরিজে সে খেলেছে। কয়েকজন তরুণ ব্যাটসম্যানের উন্নতির ব্যাপারটা আমাদের নিশ্চিত করতে হবে। উপমহাদেশে টপ অর্ডার হলো তরুণ ব্যাটসম্যানের উন্নতির সেরা জায়গা।”

“অনেক দিন ধরে সাকিব আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বাইরে। চার নম্বরে খেললে সে কিছুটা স্বস্তির জায়গা পাবে। আমরা জানি, সে বিশ্বমানের খেলোয়াড়। এই ব্যাটিং লাইন আপ ভবিষ্যতের কোনো সুর বেঁধে দেবে না। বিশ্বকাপের জন্য এখনও অনেক পথ বাকি। ব্যাটিং লাইন আপ ঠিক করার আগে আমাদের অনেকগুলো বিকল্প নিয়ে কাজ করে দেখতে হবে।”

জিম্বাবুয়ে সিরিজে দারুণ সফল তামিম ইকবাল ও লিটন দাসের উদ্বোধনী জুটিতে আপাতত হাত দিচ্ছেন না ডমিঙ্গো। এই সুযোগে ফিনিশারের ভূমিকায় সৌম্যকে পরীক্ষা করে নিতে চান তিনি।

“তামিম ও লিটন ওপেনিংয়ে খেলায় এই মুহূর্তে আমাদের টপ অর্ডার বেশ থিতু। আমরা সম্ভবত সৌম্যকে মিডল অর্ডারে ভাবতে পারি। ইনিংসের শেষ দিকে ঝড় তুলতে পারবে এমন কাউকে খুঁজছি আমরা। আমি জানি, সৌম্য সব সময় ইনিংসের শুরুতে ব্যাট করেছে। শেষের দিকে মানানসই এমন কাউকে খুঁজে পাওয়ার চেষ্টা আমাদের চালিয়ে যেতে হবে।”

“বিশ্বকাপে যাওয়ার আগে সবাই বিভিন্ন ভূমিকায় খেলবে। এরপরই আমরা ব্যাটিং লাইন আপ চূড়ান্ত করব। এই মুহূর্তে আমরা রিয়াদের সঙ্গে ইনিংস শেষ করার জন্য সৌম্যর দিকে তাকিয়ে আছি…এটা কঠিন একটি পরিস্থিতি। এই ভূমিকায় তাকে নিয়ে সবার ধৈর্য ধরতে হবে।”

সূত্রঃ বিডিনিউজ