সময় বুঝে শরীরচর্চায় ঘুম হবে ভালো

লাইফস্টাইল ডেস্কঃ
সুস্বাস্থ্যের জন্য পর্যাপ্ত ঘুম ও শরীরচর্চা দুটোর গুরুত্বই সমান। তবে বর্তমান পরিস্থিতিতে দুটোতেই সৃষ্টি হয়েছে ব্যাপক বিশৃঙ্খলা। সবার হাতেই পর্যাপ্ত সময় আছে, তাই শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে শুধু সময়ের কাজ সময়ে করতে হবে।

সঠিক সময়ে শরীরচর্চার সঙ্গে ভালো ঘুমেরও সম্পর্ক আছে বলে দাবি করেন বিশেষজ্ঞরা।

স্বাস্থ্যবিষয়ক ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন অবলম্বনে জানানো হল সে বিষয়ে বিস্তারিত।

ঘুমের ওপর শরীরচর্চার প্রভাব

ঠিক কীভাবে শরীরচর্চা ঘুমকে প্রভাবিত করে তা নিশ্চিতভাবে আজও জানা সম্ভব হয়নি। তবে পাওয়া গেছে বিভিন্ন সম্ভাব্য কারণ।

সামান্য ‘অ্যারোবিক’ শরীরচর্চা গভীর ঘুমের ক্ষেত্রে সহায়ক। এই গভীর ঘুমের সময়ই শরীর তার পুরো দিনের ধকল সামলানোর সবচাইতে কার্যকর সুযোগ পায়।

এছাড়া মন মেজাজকেও ফুরফুরে করে শরীরচর্চা। মানসিকভাবে শান্ত থাকলে ‍ঘুম ভালো হয়।

বিশেষজ্ঞরা আরও দাবি করেন, শরীরচর্চায় শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি হওয়াও ঘুমের মান বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

আদর্শ সময়

কখন ব্যায়াম করছেন সেটা ঘুমের ওপর সরাসরি প্রভাব ফেলবে বলে ধারণা করা হয়।

খুব ভোরে ব্যায়াম করলে দিন শেষে শরীরের উষ্ণতা ততটা থাকে না যতটা ভালো ঘুমের জন্য প্রয়োজন।

আবার ঘুমানোর সময়ের কাছাকাছি সময়ে ব্যায়াম করলে শরীরে নিঃসৃত ‘অ্যাড্রেনালিন’ ঘুমের সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়াবে। সেই হিসেবে দুপুরবেলা হয় ব্যায়ামের জন্য আদর্শ সময়।

দুপুরে শরীরচর্চা করলে শরীরের তাপমাত্রা বাড়ার পর তা আবার কমে একটা আরামদায়ক মাত্রায় আসার পর্যাপ্ত সময় পাওয়া যাবে।

তবে ব্যায়াম যদি সন্ধ্যায় করা হয় তবে ঘুম আসতে চাইবে না, আসলেও তা গভীর হবে না। এর কারণ হল শরীরের বাড়তি তাপমাত্রা এবং হৃদস্পন্দনের ঊর্ধগতি, যার কারণে আপনার স্নায়ুতন্ত্র এখনও শিথিল হয়নি।

ভারি শরীরচর্চা দুপুরে করাটা সহায়ক। তবে চাইলে ঘুমানোর দুতিন ঘণ্টা আগে হালকা ব্যায়াম করতে পারেন।

আবার ভারোত্তলন ধরনের ব্যায়াম দিনের যে সময়ে করা হোক না কেনো তাতে ঘুমের সমস্যা হবে না। কারণ এধরনের ব্যায়াম ‘কার্ডিও’ ব্যায়ামের তুলনায় শরীরের তাপমাত্রা বাড়ায় কম। আবার ভারোত্তলন ব্যায়ামে পেশির ক্ষুদ্র অংশ ছিঁড়ে যায়। ঘুমানোর আগে তাই ভারোত্তলন ব্যায়াম পেশির সেই ক্ষয় পূরণ করবে দ্রুত।

শরীর কী বলে?

সবকিছুর ওপরে আপনার নিজের শরীরের চাহিদাগুলো বুঝতে হবে। আপনার দৈনন্দিন রুটিনের উপর নির্ভর করে শরীরের দিন রাতের চক্র গড়ে উঠবে, শরীরের চাহিদাগুলোও তৈরি হবে সেই অনুপাতে।

যারা খুব ভোরে ঘুম থেকে ওঠেন তাদের জন্য সকালে ব্যায়াম করা উপকারী। আবার যারা অনেক দেরি করে ঘুম থেকে ওঠেন, তাদের সন্ধ্যায় ব্যায়াম করলে উপকার বেশি।

নিজের জন্য আদর্শ অভ্যাসটি বের করে নিতে হবে বিভিন্ন সময়ে শরীরচর্চা করে।

সূত্রঃ বিডিনিউজ