ডিসেম্বরের দ্বিতীয়ার্ধে ‘জেঁকে বসবে’ শীত

অনলাইন ডেস্কঃ
পৌষ আসার আগেই দিনভর কুয়াশার চাদর; সঙ্গে উত্তুরে হাওয়া। দিনের বেলা সূর্যের দেখা না মেলায় শীতের অনুভূতিও বাড়ছে।

আবহাওয়াবিদরা বলছেন, চলতি মাসের দ্বিতীয়ার্ধে জেঁকে বসবে শীত। তখন সর্বনিম্ন তাপমাত্রা কোথাও কোথাও ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে আসতে পারে।

শুক্রবার দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ১৪ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৭ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

বড় এলাকা জুড়ে তাপমাত্রা নেমে ৮ থেকে ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে চলে এলে আবহাওয়াবিদরা তাকে বলেন মৃদু শৈপ্রবাহ; থার্মোমিটারের পারদ ৬ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে নেমে এলে তাকে মাঝারি ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৪ থেকে ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে হলে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে বলে ধরা হয়।

আবহাওয়াবিদ মো. আরিফ হোসেন বলেন, রাতের তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে এখনও নামেনি। কিন্তু দিনের তাপমাত্রা কম থাকায় শীত অনুভূত হচ্ছে। এখন দেশের সর্বত্র সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৪ থেকে ১৭.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে। কয়েকদিন ধরে রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়ছে; তবে দিনে অনেক সময় ধরে ঘন কুয়াশায় সূর্যের আলো দেখা না পাওয়ায় শীতের অনুভূতি বেশি হচ্ছে।

তিনি জানান, ডিসেম্বরে দেশের উত্তর, উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে মৃদু থেকে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে বলে পূর্বাভাস রয়েছে।

গত ২৮ নভেম্বর তেঁতুলিয়ায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা নেমেছিল ৯.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে; এবারের মৌসুমে এটাই দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। তবে মৌসুমের প্রথম শৈত্যপ্রবাহ আসতে সপ্তাহ খানেক বাকি রয়েছে বলে আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ মো. হাফিজুর রহমান বলেন, “১৫ ডিসেম্বরের পরে তাপমাত্রা কমতে পারে। এখন শীতের অনুভূতি থাকলেও শৈত্যপ্রবাহ আসতে সময় রয়েছে। ১৮-২০ ডিসেম্বরের দিকে বা তার পর কোথাও কোথাও মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। ডিসেম্বরের শেষভাগে শৈত্যপ্রবাহ এলে তখন বলা যাবে, সেটা কদিন থাকবে।”

গত কয়েক দিন ধরেই দীর্ঘ সময় কুয়াশার চাদরে ঢাকা থাকছে দেশের বিস্তীর্ণ অঞ্চল। উপ-মহাদেশীয় উচ্চচাপ বলয়ের বর্ধিতাংশ বিহার ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে, এর একটির বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থান করছে।

শনিবারের আবহাওয়ার পূর্বাভাসে হাফিজুর রহমান বলেন, আকাশ অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা থাকতে পারে, সারাদেশের আবহাওয়া থাকতে পারে শুষ্ক। মধ্যরাত থেকে দুপুর পর্যন্ত মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা থাকতে পারে সারাদেশে নদী অববাহিকায়। দেশের অন্যান্য এলাকায় হালকা থেকে মাঝারি কুয়াশা থাকতে পারে।

বাংলাদেশে শীতের দাপট মূলত চলে জানুয়ারি মাসজুড়ে। ২০১৮ সালের ৮ জানুয়ারি পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় দেশের ইতিহাসে সর্বনিম্ন ২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। ২০১৩ সালের ১১ জানুয়ারি সৈয়দপুরের তাপমাত্রা ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে এসেছিল।

এর আগে ১৯৬৮ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি শ্রীমঙ্গলে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল ২ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

সূত্রঃ বিডিনিউজ