রামু সেনানিবাসের উদ্যোগ : অসহায় মানুষের জন্য বিনামূল্যে সেনাবাজার ও মেডিকেল ক্যাম্প

খালেদ শহীদঃ
কক্সবাজারে কর্মহীন অসহায় মানুষের জন্য বিনামূল্যে সেনাবাজার ও মেডিকেল ক্যাম্পেইনের আয়োজন করেছে, রামু সেনা নিবাসের ১০ পদাতিক ডিভিশন।

শুক্রবার (২২ মে) সকালে কক্সবাজার ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে নিত্য পণ্যের দ্রব্য সামগ্রী বিনামূল্যে ক্রেতাদের হাতে তোলে দেয়া হয়।

১০ পদাতিক ডিভিশনের পরিচালনায় এক হাজার পরিবারকে বিনামূল্যে চাল, ডাল, লবন, তেল, আটা সহ বিভিন্ন ধরনের সবজি’র সরবরাহ করা হয়। পাশাপাশি এক শত জন মানুষের বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ প্রদান করে রামু সেনানিবাসের সেনা চিকিৎসকরা।

ঘূর্ণিঝড় আম্পান পরবর্তী সময়ে পবিত্র ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে কক্সবাজারে দুর্গত ও করোনা ভাইরাসের কারনে কর্মহীন অসহায় মানুষদের নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী এবং কাঁচা বাজারের চাহিদা পূরণ করতে সেনা বাজার ও ফ্রী মেডিক্যাল ক্যাম্পেইনের আয়োজন করা হয়েছে বলে জানান, সেনাবাহিনীর ১০ পদাতিক ডিভিশন অফিসাররা।

সেনানিবাস সূত্র জানায়, লকডাউন ও সাম্প্রতিক ঘূর্ণিঝড় আম্পানের ঝড়ো হাওয়া ও বৃষ্টিপাতের কারনে এ অঞ্চলের যে সকল প্রান্তিক কৃষকরা তাদের উৎপাদিত সবজি বাজারে বিক্রি করতে পারছেনা, সেনাসদস্যরা সরাসরি সেসব কৃষকদের নিকট হতে সবজি ক্রয় করে এই বাজারে নিয়ে আসেন। ফলে অসহায় মানুষদের পাশাপাশি কৃষকরাও তাদের সবজির ন্যায্য মূল্য পেয়ে উপকৃত হয়েছেন। এছাড়াও ঈদের ঠিক আগমুহূর্তে এ ধরনের মহতী কাজের উদ্যোগ অসহায় মানুষের জন্য যেমন ঈদের বোনাসের মতো তেমনি কৃষকদের জন্যও এটি ঈদের উপহার।

সরেজমিনে দেখা যায়, শুক্রবার সকালে কক্সবাজার শহরে অবস্থিত ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সেনাবাহিনীর সার্বিক ব্যবস্থাপনায় বাজারের প্রবেশ পথে ছিল জীবাণুনাশক বুথ ও হাত ধোয়ার ব্যবস্থা। প্রকৃত অভাবী মানুষ তাদের প্রয়োজনীয় বাজার কোন প্রকার ঝামেলা ছাড়াই সম্পূর্ণ বিনামূল্যে সংগ্রহ করা হচ্ছে।

বাজার করতে আসা কলাতলীর এক হোটেল কর্মচারী লিয়াকত জানান, করোনার কারণে সব ধরনের কাজ বন্ধ থাকায় নিজের জমানো যে অর্থ ছিল তা অনেক আগেই শেষ, বর্তমানে ধার দেনা করে সংসার চলছে। সেনা বাজার থেকে চাল, আলু, বরবটি, কচুর লতি, কাঁচামরিচসহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র পেয়ে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। তিনি আরও জানান, কানের ব্যাথায় গত এক সপ্তাহ যাবৎ তিনি কষ্ট পাচ্ছিলেন, আজ এখানে সেনা মেডিক্যাল ক্যাম্পেইনে বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দেখিয়ে ফ্রী ওষুধও পেয়েছেন। ঈদের আগে সেনাবাহিনীর এ ধরনের কার্যক্রম আমাদের মতো অসহায়দের ঈদের আনন্দকে উপভোগ করার সুযোগ করে দিয়েছে।

কক্সবাজার সৈকতের ফটোগ্রাফার হাসান আলী জানান, ৩৫ হাজার টাকায় কেনা ক্যানন ব্র্যান্ডের সেমি ডিএসএলআর ক্যামেরা তার ৫ জনের পরিবারের আয়ের একমাত্র মাধ্যম। পর্যটন নগরী কক্সবাজারে সারা বছরই টুরিস্টের ভিড় লেগেই থাকে। ঈদের সময় টুরিস্টের আনাগোনা আরো বেড়ে যায়। বর্তমানে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে কোন টুরিস্ট গত প্রায় তিন মাস যাবত কক্সবাজারে না আসায় তার মত স্বল্পআয়ের মানুষদের পথে বসার উপক্রম হয়েছে। ঈদের সময় সেনাবাহিনীর উদ্যোগে আয়োজিত এই সেনা বাজার তার কাছে স্বপ্নের মতো মনে হচ্ছে। পরিবারের সবাইকে নিয়ে এখন সেও ঈদের উৎসবে শামিল হতে পারবে বলে উচ্ছাস প্রকাশ করেন তিনি।

রামু সেনানিবাসে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সার্বিক দিক নির্দেশনায় সেনাবাহিনী প্রধানের নেতৃত্বে অসহায় এবং প্রান্তিক আয়ের মানুষদের জীবনযাত্রাকে সহজ করার জন্য রামু সেনানিবাসের তত্ত্বাবধানে এ ধরনের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। অদূর ভবিষ্যতে উপজেলা পর্যায়েও এ ধরনের বাজারের আয়োজন করা হবে বলে জানা যায়। সম্পূর্ণ অনাড়ম্বর ও ব্যতিক্রমধর্মী এই আয়োজন উপলক্ষে রামু সেনানিবাসের কর্মকর্তাবৃন্দ ও সেনাসদস্যরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

সেনাসদস্যরা জানান, কক্সবাজার জেলা ও চট্টগ্রাম জেলার ৪টি উপজেলায় গত ২৪ মার্চ থেকেই মাঠে আছে সেনাবাহিনী। টহল কার্যক্রমসহ করোনার ভয়াবহতার ব্যাপারে মানুষকে সচেতন করার পাশাপাশি হ্যান্ড স্যানিটাইজার এবং মাস্ক বিতরন করছেন তারা। এছাড়া নিজেদের রেশন বাঁচিয়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে চাল, ডাল, তেল, আলু, পেঁয়াজ ও সাবানসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন সামগ্রী কর্মহীন অসহায় পরিবারের মানুষগুলোর হাতে তুলে দিচ্ছেন। বর্তমানে তারা ঘূর্ণিঝড় আম্পান উপদ্রুত এলাকাগুলোতে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি, রাস্তাঘাট ও বাঁধ পুনঃনির্মাণে স্থানীয়দের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করছেন। পাশাপাশি দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলোতে জনসাধারণদেরকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সহায়তা প্রদানের জন্য সেনাবাহিনীর ১০টি মেডিক্যাল টিম বৃহস্পতিবার থেকে একযোগে কাজ করছে।