কক্সবাজারে এল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট ট্রপি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশের স্কুল পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের খেলাধূলার সুযোগ সৃষ্টির জন্য সরকার দেশের প্রত্যেকটি উপজেলায় একটি করে মিনি স্টেডিয়াম তৈরীর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তিনি বলেন, ‘আমরা প্রতি উপজেলায় অন্তত একটি করে মিনি স্টেডিয়াম করে দেব। যেখানে স্কুল-কলেজের ছেলে-মেয়েরাই বেশী করে খেলাধূলার সুযোগ পাবে।’

১৬ ফেব্রুয়ারি বিকেলে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট এবং বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট-২০১৫ এর ফাইনাল ম্যাচের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির সংক্ষিপ্ত ভাষণে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলা এবং সংস্কৃতি চর্চায় ভবিষ্যত প্রজন্মকে ব্যস্ত রাখা গেলে তারা আর বিপথে যাবেনা।’ তিনি দেশের প্রতিটি বিদ্যালয়ের ছেলে-মেয়েরা যাতে লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধূলার সযোগ পায়, সেদিকে লক্ষ্য রাখার জন্য শিক্ষকদের প্রতি অনুরোধ জানান।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে আয়োজিত এই দুটি টুর্নামেন্টের পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে শুভেচ্ছা বক্তৃতা করেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান।

বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ডকাপ ফুটবলের ফাইনালে ময়মনসিংহের কলসিন্দুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ৩-১ গোলে রাজশাহীর খর্দ্দকৌড় প্রাথমিক বিদ্যালয়কে পরাজিত করে তৃতীয়বারের মত এই শিরোপা জয় করে।

প্রধানমন্ত্রী প্রমিলা ফুটবলের আকর্ষণীয় এই ফাইনাল ম্যাচ উপভোগ করেন।

এর আগে দুপুরে অনুষ্ঠিত হয় ছেলেদের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা।

এতে কক্সবাজার জেলার পেকুয়ার রাজখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় দিনাজপুরের বীরগঞ্জের মরিচা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে টাইব্রেকারে ৩-২ গোলে পরাজিত করে শিরোপা জয় করে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারাদেশে লক্ষাধিক বিদ্যালয়ের প্রায় ১০ লাখের অধিক শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে সমগ্র দেশব্যাপী অনুষ্ঠিত প্রাথমিক স্কুল পর্যায়ের এই দুটি টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়ন, রানার্সআপ এবং তৃতীয় স্থান অধিকারী দল, দলের খেলোয়াড় ও কর্মকর্তাদের মধ্যে ট্রফি এবং ব্যক্তিগত পুরস্কার বিতরণ করেন।