পড়ার সঙ্গে খেলাও যেন চলে: প্রধানমন্ত্রী

প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে খেলাধূলার ওপর গুরুত্বারোপ করতে শিক্ষকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

“আপনারা খেলাধুলার প্রতি আরও মনোযোগী হন। খেলাধুলা যেন চলে। খেলাধুলার পরিবেশ যেন সৃষ্টি হয়,” বাংলাদেশের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে ফুটবল প্রতিযোগিতায় পুরস্কার বিতরণের আগে বলেন তিনি।

মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ‘বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট-২০১৫’ এবং ‘বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব মুজিব গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট-২০১৫’ এ বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন শেখ হাসিনা।

Sheakh+hasina-২
বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনালে কক্সবাজারের পেকুয়ার রাজাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় টাইব্রেকারে দিনাজপুরের বীরগঞ্জের মরিচা প্রাথমিক বিদ্যালয়কে ৩-২ গোলে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।

স্টেডিয়ামে দিনের দ্বিতীয় খেলায় বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব মুজিব গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনালে ময়মনসিংহের ধোবাউড়ার কলসিন্দুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ৩-১ গোলে রাজশাহীর বাগমারার খর্দ্দকৌড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে স্টেডিয়ামে বসে খেলা দেখার কথা উল্লেখ করে বলেন, “মাঠে বসে চীনাবাদাম খেতে খেতে খেলা দেখার মজাই আলাদা। আমিও চীনাবাদাম খেলাম আর খেলা দেখলাম।”

বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে ৬৩ হাজার ৫০৯টি দল এবং বঙ্গমাতা গোল্ডকাপে ৬৩ হাজার ৪৩১টি দল অংশ নেয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “কোনো টুর্নামেন্টে এত বিপুল সংখ্যক দলের অংশগ্রহণের নজির আর নেই।”

Sheakh+hasina-৩
প্রধানমন্ত্রী স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের সুবিধায় প্রতিটি উপজেলায় একটি করে মিনি স্টেডিয়াম প্রতিষ্ঠার কথাও বলেন।

“খেলাধুলা ও সংস্কৃতি চর্চার উপর মনোনিবেশ করলে ছেলেমেয়েরা বিপথে যাবে না,” বলেন তিনি।

২০১১ সাল থেকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এই দুটি টুর্নামেন্ট আয়োজন করে আসছে।

অনুষ্ঠানে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মুস্তাফিজুর রহমান ফিজার, ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয় এবং বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি কাজী সালাউদ্দিনও উপস্থিত ছিলেন।

(বিডিনিউজ থেকে নেয়া)