দক্ষিণ আফ্রিকায় হোয়াইটওয়াশড শ্রীলঙ্কা

অনলাইন ডেস্কঃ
শেষের দিকের ব্যাটসম্যানদের দৃঢ়তায় লড়াই করার মতো একটা রান পেয়েছিল শ্রীলঙ্কা। তবে ফ্লাড লাইটের বিভ্রাট তাদের সেই সুযোগ দিল না। পর্যাপ্ত আলো না থাকায় আগেভাগেই শেষ হয়ে গেল ম্যাচ। এইডেন মারক্রামের দাপুটে ব্যাটিংয়ে সফরকারীদের হোয়াইটওয়াশ করে দিল দক্ষিণ আফ্রিকা।

পঞ্চম ও শেষ ওয়ানডেতে ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে ৪১ রানে জিতেছে ফাফ দু প্লেসির দল। ২২৬ রানের লক্ষ্য তাড়ায় দক্ষিণ আফ্রিকা ২৮ ওভারে ২ উইকেটে ১৩৫ রান করলে ফ্লাড লাইট বিভ্রাটে খেলা বন্ধ হয়ে যায়।

দেড় ঘণ্টার বেশি সময় অপেক্ষার পরও আলো স্বাভাবিক না হওয়ায় ম্যাচের ইতি টানেন দুই আম্পায়ার। সে সময় ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে স্বাগতিকদের প্রয়োজন ছিল ৯৫ রান।

কেপ টাউনের নিউল্যান্ডসে শনিবার টস জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই দুই ওপেনারকে হারায় শ্রীলঙ্কা। ওশাদা ফার্নান্দোর সঙ্গে ৪৯ ও অ্যাঞ্জেলো পেরেরার সঙ্গে ৬২ রানের জুটিতে দলকে ৩ উইকেটে ১২৫ রানের ভালো অবস্থানে নিয়ে যান কুসল পেরেরা।

সিরিজে দ্বিতীয়বারের মতো রান আউট হয়ে থামেন মেন্ডিস। ৮৪ বলে খেলা তার ৫৬ রানের ইনিংস গড়া তিন চারে। প্রায় তিন বছর পর খেলতে নামা অ্যাঞ্জেলোকে বিদায় করেন দেশের মাটিতে নিজের সবশেষ ওয়ানডে খেলা ইমরান তাহির।

এক সময়ে ১৬১ রানে ৭ উইকেট হারানো শ্রীলঙ্কার জন্য দুইশ রানই ছিল দূরের পথ। অষ্টম উইকেটে প্রিয়ামল পেরেরার সঙ্গে ৬১ রানের জুটিতে দলকে সোয়া দুইশ রানে নিয়ে যান ইসুরু উদানা। আগের ম্যাচে ফিফটি করা এই লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যান ২৯ বলে করেন ৩২ রান। প্রিয়ামল দুই চারে করেন ৩৩।

দক্ষিণ আফ্রিকার কাগিসো রাবাদা ৩ উইকেট নেন ৫০ রানে। দুটি করে উইকেট নেন তাহির ও আনরিক নরকিয়া। দেশের মাটিতে নিজের সবশেষ ওয়ানডেতে ব্যাটিংয়ের সুযোগ মেলেনি জেপি দুমিনির। ৩ ওভার বোলিং করে ১৬ রান দিয়ে উইকেটশূন্য থাকেন তিনি।

ছোট রান তাড়ায় শুরুতেই কুইন্টন ডি কককে হারায় দক্ষিণ আফ্রিকা। দু প্লেসির সঙ্গে ৭০ রানের জুটিতে শুরুর ধাক্কা সামাল দেন এইডেন মারক্রাম। অধিনায়কের বিদায়ের পর রাসি ফন ডার ডাসেনের সঙ্গে এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান গড়েন ৫৭ রানের আরেকটি ভালো জুটি।

এই জুটিকে থামায় ফ্লাড লাইট বিভ্রাট। তবে জয় হাতছাড়া হয়নি দক্ষিণ আফ্রিকার। ওয়ানডে সিরিজ জিতে নেয় ৫-০ ব্যবধানে। ৭৫ বলে ৭ চারে ৬৭ রানের দারুণ ইনিংসের জন্য ম্যাচ সেরার পুরস্কার জেতেন মারক্রাম।

এক সেঞ্চুরি ও তিনটি পঞ্চাশ ছোঁয়া ইনিংসের জন্য সিরিজ সেরার পুরস্কার জেতেন কিপার-ব্যাটসম্যান ডি কক।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শ্রীলঙ্কা: ৪৯.৩ ওভারে ২২৫ (আভিশকা ৯, থারাঙ্গা ২, ওশাদা ২২, মেন্ডিস ৫৬, অ্যাঞ্জেলো ৩১, প্রিয়ামল ৩৩, থিসারা ২, ডি সিলভা ১২, উদানা ৩২, দনাঞ্জয়া ৩, মালিঙ্গা ০*; রাবাদা ৩/৫০, এনগিডি ১/১৬, ফেলুকওয়ায়ো ১/৪০, নরকিয়া ২/৩৫, তাহির ২/৩৩, প্রিটোরিয়াস ০/২৭, দুমিনি ০/১৬)

দক্ষিণ আফ্রিকা: (২৮ ওভারে লক্ষ্য ৯৫) ২৮ ওভারে ১৩৫/২ (ডি কক ৬, মারক্রাম ৬৭*, দু প্লেসি ২৪, ফন ডার ডাসেন ২৮*; )

ফল: ডাকওয়ার্থ ও লুইস পদ্ধতিতে দক্ষিণ আফ্রিকা ৪১ রানে জয়ী

সিরিজ: ৫ ম্যাচের সিরিজে দক্ষিণ আফ্রিকা ৫-০ ব্যবধানে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: এইডেন মারক্রাম

ম্যান অব দা সিরিজ: কুইন্টন ডি কক