আড়াইশ’র আগেই থামল বাংলাদেশ

ক্রীড়া ডেস্কঃ
তিন টেস্টের সিরিজের প্রথম ম্যাচে হ্যামিলটনের সিডল পার্কে শুরুতে ভালো ব্যাটিং করে বাংলাদেশ দল। দুই ওপেনারের ভালো শুরুর পর দ্বিতীয় উইকেটেও এগিয়ে যাচ্ছিল মাহমুদুল্লাহর দল। তবে সেঞ্চুরি করে তামিম আউট হওয়ার পর বিপাকে পড়ে বাংলাদেশ। তিনি টপ অর্ডারের অন্যরা সুবিধা করতে পারেননি। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ প্রথম দিন প্রথম ইনিংসে ২৩৪ রানে অলআউট হয়ে গেছে।

দলের হয়ে ওয়ানডে মেজাজে খেলা তামিম ইকবাল ১২৮ বলে ১২৬ রান করে আউট হন। তিনি ২১ চার ও এক ছক্কায় সাজান তার ইনিংস। তার সঙ্গে থাকা মুমিনুল হক ১২ রানে ফিরে যান। এর আগে ওপেনার সাদমান ২৪ রান করে ট্রেন্ট বোল্টের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন। তিনি উদ্বোধনী জুটিতে তামিমের সঙ্গে ৫৭ রানের জুটি গড়েন। নতুন বলের শুরুর ১০ ওভার সামাল দেন চট্টগ্রামের এই দুই বা-হাতি ওপেনার।

মুমিনুলের পর ওয়ানডে সিরিজে ভালো করা মিঠুন ৮ রান করে আউট হন। সৌম্য সরকার এর পরে ফেরেন ১ রান করে। এরপর মাহমুদুল্লাহ ২২ রানে ও মেহেদি মিরাজ ১০ রান করে। লিটন দাস শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে ২৯ রান করে আউট হন। নিউজিল্যান্ডের হয়ে নেইল ওয়াগনার ৫ উইকেট নেন। সাউদি নেন তিন উইকেট।

এর আগে হ্যামিলটনে টস জিতে বাংলাদেশকে শুরুতে ব্যাট করার আমন্ত্রন জানান কিউই অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। নিউজিল্যান্ডের মৃদু-মন্দ বাতাসে ওয়ানডে সিরিজের মতো টেস্ট সিরিজেও কন্ডিশনের সুবিধা আদায় করে বাংলাদেশকে শুরুতে ধসিয়ে দেওয়ার চিন্তা হয়তো করেন এই তারকা।

বাংলাদেশ এ ম্যাচে তিন ডানহাতি পেসার এবং এক স্পিনার নিয়ে নেমেছে। টেস্টে অভিষেক হয়েছে পেসার এবাদত হোসেনের। এছাড়া দুই সিলেটের পেসার খালেদ আহমেদ এবং আবু জায়েদের ওপর আছে পেস আক্রমণের ভার। সিরিজের প্রথম টেস্টের দলে নেই বা-হাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমান। তাকে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে। স্পিন আক্রমণ সামলাতে দলে আছেন মেহেদি মিরাজ। বল হাতে দলকে সৌম সরকারও সহায়তা করতে পারবেন। প্রথম টেস্টে মুশফিক থাকবেন না নিশ্চিতই ছিল। তবে মোহাম্মদ মিঠুন চোট কাটিয়ে দলে ফিরেছেন।