বান্দরবানের স্বর্ণমন্দির

প্রাকৃতিক সৌর্ন্দয্যের অবারিত সবুজের সমারোহ দেখতে দেখতে আর সবুজ পাহাড়ের আঁকাবাঁকা পথে বেড়াতে বেড়াতে ঘুরে আসুন বান্দরবান। পাহাড়ি কন্যা বান্দরবানের বিভিন্ন জায়গায় পরিবারের সবাইকে নিয়ে ভ্রমণ করা যায়। এসব জায়গা নিয়ে আমাদের আজকের অবসর।

নাম স্বর্ণ মন্দির হলেও এটি স্বর্ণ নির্মিত কোন মন্দির নয়। এখানে স্বর্ণ দিয়ে তৈরি কোন দেব-দেবীও নেই। বান্দরবানের এই `মহাসুখ মন্দির` নামের `বৌদ্ধ ধাতু জাদী’ তার সোনালি রঙের জন্য বর্তমানে “স্বর্ণমন্দির” নামে খ্যাত।

মহাসুখ মন্দির বান্দরবান জেলা শহর থেকে তিন কি:মি: পশ্চিমে বালাঘাটা এলাকার এক পাহাড় চূঁড়ায় স্থাপিত। মায়ানমার থেকে শিল্পী এনে এটি তৈরি করা হয়। ২০০৪ সালে এর কাজ সম্পূর্ণ হয়। মন্দিরের বাইরের অংশে ভিন্ন ভিন্ন প্রকোষ্টে তিব্বত, চীন, নেপাল, ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া, ভূটান, মায়ানমার, কোরিয়া, জাপান ইত্যাদি দেশের শৈলীতে সৃষ্ট ১২টি দন্ডায়মান বুদ্ধ আবক্ষ মূর্তি এখানে নতুন মাত্রা যোগ করেছে। আর মন্দিরের অভ্যন্তরে কাসোনালী রং এর সুন্দর কারুকাজে তৈরি এ মন্দির দর্শনেই মন পবিত্র হয়ে যায়। কাঠের উপর অসাধারণ সুন্দর রিলিফ ভাষ্কর্য কর্ম মায়ানমারের কাঠের শিল্প-কর্মের ঐতিহ্যের কথা স্মরণ করায়। মন্দির থেকে দেখা যায় পূর্বদিকে বান্দরবান শহর ও চারপাশে শুধু পাহাড় আর পাহাড় ।

মন্দিরটি একটি মাঝারি উচ্চতার পাহারের উপরে তৈরি করা হয়েছে বলে কিছুটা চড়াই পথ বেয়ে উঠতে হয়। এর পরেই আছে অনেকগুলি সিঁড়ি, সিঁড়ি শেষেই শুরু হয়েছে মন্দিরের সীমানা।১০টাকা টিকেট কেটে প্রথমেই আপনার হাতের বাম দিকে পরবে এই মিউজিয়ামের মত অংশটি।

তবে শর্ট প্যান্ট পরে মন্দিরে ঢুকা নিষেধ, জুতা খুলে ঢুকতে
হয়।

মূল মন্দির চত্বরে আছে কারুকাজ করা সুন্দর তোড়ন, তার দুপাশে দুটি মন্দিরের বাইরের অংশে ১২টি ভিন্ন ভিন্ন প্রকোষ্ঠে ১২টি দেশের শৈলীতে ১২টি দন্ডায়মান বুদ্ধ মূর্তি তৈরি করা হয়েছে। মন্দির দণ্ডায়মান আছে গরুড় স্তম্ব ও একটি বিশাল ঘণ্টা।

মন্দিরটি পাহারের চূড়ায় হওয়ায় এর উপর থেকে চারিধারের প্রাকৃতিক মনোরম শোভা উপভোগ করা যায়।
সোনালী রংয়ের অপূর্ব নির্মাণ শৈলী ও আধুনিক ধর্মীয় স্থাপত্য নকশার নিদর্শনস্বরুপ। এ স্থানটি সবার খুবই আকর্ষনীয় এবং একটি জনপ্রিয় পর্যটন স্পট। পর্যটকরা বান্দরবন ঘুরতে এলে স্বর্নমন্দির না দেখে চলে যায় এমন নজির নেই। এখান থেকে সাঙ্গু নদী, বেতার কেন্দ্রসহ বান্দরবানের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য সহজেই উপভোগ করা যায়।

এ মন্দিরের পাহাড়ের চূড়ায় রয়েছে ঐতিহ্যবাহী এক পুকুর। বৌদ্ধরা এ পুকুরকে সম্মানের চোখে দেখে; কারণ এটি যে দেবতা পুকুর। ধর্মীয় অনুষ্ঠান ছাড়াও পূর্ণিমায় এখানে জড়ো হন হাজার হাজার পুণ্যার্থী।

আপনি যদি এই স্বর্ণ মন্দির দেখতে যান তাহলে অবশ্যই সকাল ৮টা ৩০ মিনিট থেতে ১১.৩০ মিনিটের মধ্যে যাবেন, আর যদি সকালে যেতে না চান তাহলে দুপুর ১২টা ৪৫ মিনটি থেকে বিকেল ৬টার মধ্যে যেতে পারেন। পরিবারের সকলকে নিয়ে আপনার যাত্রা শুভ হোক ।

 দি ডেইলি লাইফ নিউজঃ  Mar 3, 2015 | ভ্রমণ