বাইশারীতে অপহৃত ব্যক্তি দীর্ঘ ৪৬ ঘন্টা পর মুক্তিপন দিয়ে মুক্ত

আব্দুল হামিদ:
বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারী ইউনিয়নের ০৪নং ওয়ার্ড করলিয়ামুরা গ্রাম থেকে গত শনিবার ১৫ ই এপ্রিল ভোর রাত ৩ টার দিকে অপহৃরণের শিকার মোহাম্মদ ইউনুছ (৩২) কে দীর্ঘ ৪৬ ঘন্টার পর ১লাখ ৬৬ হাজার টাকা মুক্তিপন দিয়ে জিম্মি দশা থেকে মুক্ত করে দিয়েছে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা।

গত রবিবার রাত ১০ টা ৩০ মিনিটের দিকে রামু উপজেলার গহীন অরণ্যে ঈদগড় রেঞ্জের সংরক্ষিত বণাঞ্চল বৈধ্য পাড়া এলাকায় ছেড়ে দেওয়া হয়।

জিম্মি দশা থেকে মুক্ত হওয়ার পর মোহাম্মদ ইউনুছ স্থানীয় সাংবাদিক ও এলাকাবাসীর সাথে কথা বলতে গিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। দীর্ঘ ৪৬ ঘন্টা কালো পাহাড়ে হাঁত পা বেঁেধ চরম নির্যাতন করেছে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা মুক্তিপনের টাকার জন্য। বেদম প্রহার করে মোবাইল ফোনে পরিবারের সদস্যদের নিকট মুক্তিপনের টাকার জন্য চাপ প্রয়োগ করতেন বলে তিনি জানান। তবে তিনি সাংবাদিকদের নিকট প্রকাশ্যে বলেন, অপহৃরণকারীদের তিনি চিনতে পেরেছেন এবং এদের দলে চার জন চিহিৃত তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসীও রয়েছে।

অপহৃত ইউনুছ আরো বলেন, বাইশারী এলাকার ভাড়ায় চালিত আবু প্রকাশ আবুইয়া নামের একজন মটর সাইকেল চালক অপহৃরণকারীদের সার্বিক সহযোগিতা এবং সেই মটর সাইকেল চালকের মাধ্যমে সরাসরি মুক্তিপনের টাকা গুলি সন্ত্রাসীদের হাতে তুলে দেওয়া হয়। তাছাড়া সন্ত্রাসীরা সার্বক্ষণিক টাকা গুলো এবং টাকা দিতে আসা পরিবারের সদস্যদের তার মটর সাইকেলে করে যেন আসে তা মোবাইল ফোনে জানিয়ে দেয় সন্ত্রাসীরা।

ঐঘটনাটি ফাঁস হওয়ার পর থেকে মটর সাইকেল চালক আবু প্রকাশ আবুইয়া এখন এলাকা থেকে উধাও হয়ে যায়। গত রবিবার রাতে মুক্তিপনের বিনিময়ে অপহৃত ইউনুছ উদ্ধারের পর পুলিশ তার বাড়ীতে গিয়ে তার সাথে কথা বলে এবং ঘটনার বিস্তারিত বিবরণ শুনে।

উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে বাইশারী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ কৃষ্ণ কুমার দাস মোবাইল ফোনে জানান, এ.এস.পি সার্কেল লামা ও সঙ্গীয় ফোর্স সহ আমি সোমবার বিকাল ৩টার দিকে আবারো ঘটনাস্থলে পরিদর্শনে গিয়েছি। অবশ্যই অপহৃরণকারীদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হবে।তিনি আরো জানান, এখনো পর্যন্ত থানায় কোন ধরনের মামলা রুজু হয় নাই।

অপহৃত ইউনুছ জানান, তিনি অবশ্যই মামলা দায়ের করবেন। এই রিপোর্ট পাঠানো পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।