রম্যগল্প: বাড়িওয়ালার ছেলে

নঈম আল ইস্পাহান
রাজারকুল,রামু।

বেশ কিছুদিন যাবত কলেজ যাওয়ার পথে পাশের বস্তির সামনে একটি ছেলের সাথে মিমির রোজ দেখা হয়।ছেলেটি মিমির দিকে বার বার তাকায়।মিমি ও টুকটাক তার দিকে তাকায়।এক সময় তাদের মধ্যে প্রতিদিন চোখাচোখি হতে লাগল।এমন ভাব যেন দুজনেই দুজনকে ছাড়া বাচবেনা।একদিন ছেলেটি বুক ভরা সাহস নিয়ে মিমির সামনে দাঁড়াল।
আর বলল,মিমি আমি তোমাকে খুব ভালবাসি।খুব সুখে রাখব।

মিমি মনে মনে অবাক হলো।এত সাহস একটা বস্তির ছেলের?

মিমি বলল,খুব সুখে রাখবেন?এবস্তিতে থেকে?জানেন আমি কোথায় থাকি?
ছেলেটি বলল,হুম বলুন।কোথায় থাকেন?
মিমি বলল,আমি ওই যে দশতলা বিল্ডিং দেখছেন সে বিল্ডিংয়ে থাকি!

ছেলেটি একটু আশ্চর্য হওয়ার ভঙ্গিতে বলল
:ওটা কী আপনার বাবার বাড়ি?
-না
:আপনার হাসব্যান্ডের বাড়ি?
-কী?আপনার আমাকে দেখলে বিবাহিত মনে হয়?
:তাহলে ?
-আমি ওখানে ভাড়াটে থাকি।বিশ হাজার টাকা ভাড়া।আর আপনি একজন বস্তির ছেলে হয়ে কীভাবে এই স্বপ্ন দেখলেন যে,আমি আপনাকে ভালবাসব?আপনার আর আমার স্ট্যাটাস মিলে?

অতঃপর ছেলিটি যা বলল মিমি তা শোনার জন্য একদম প্রস্থুত ছিলনা।

“আমি প্রতিদিন যে সময়ে জগিং শেষে বাসায় ফিরি তখন আপনি কলেজে যান।আর আমাদের এই বস্তিতেই দেখা হয়।আপনি যে বাসায় থাকেন ওই বাসাতে আমাকে কোন ভাড়া দিতে হয়না।মানে,আমি বাড়িওয়ালার ছেলে।এবার নিশ্চয়ই আপনার আমার স্ট্যাটাস নিয়ে সমস্যা নেই।আর আপনার বাবাকে বলবেন নতুন বছরের শুরুতে ভাড়া দুহাজার টাকা বাড়াঁনো হয়েছে।মানে আগে বিশহাজার ছিল এখন বাইশ হাজার টাকা!