টেকনাফে বেশির ভাগ চালক অদক্ষ ও কম বয়সি

গিয়াস উদ্দিন ভুলু , টেকনাফ:
পর্যটন নগরী সীমান্ত শহর টেকনাফ উপজেলার বিভিন্ন সড়কের অলিতে গলিতে চলছে নাম্বার বিহীন টমটম, সিএনজি, অটোরিক্স। আবার এই সমস্ত যানবাহনের বেশির ভাগ চালক হচ্ছে কম বয়সি, অদক্ষ ও লাইসেন্স বিহীন। এই চালকরা সড়কে নিয়মনীতি না মেনে গাড়ি চালায়। এতে প্রতিনিয়ত ঘটে যাচ্ছে ছোট-বড় অনেক দুর্ঘটনা, তার পাশাপাশি অদক্ষ চালকদের কারনে মারা যাচ্ছে স্কুল পড়ুয়া পথচারি শিশুসহ সাধারণ মানুষ। আবার অনেকে সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়ে পঙ্গু হয়ে মৃতুর সাথে লড়াই করছে।

সরেজমিনে টেকনাফ পৌর শহরের কয়েকটি সড়ক পরিদর্শন করে দেখা যায়, টেকনাফের অটোরিক্সা, টমটম ও সিএনজির বেশির ভাগ চালক অপ্রাপ্ত বয়স্ক শিশু এবং কম বয়সি অদক্ষ চালক। তাদের নেই কোন ড্রাইভিং লাইসেন্স, নেই কোন রোড পারমিট, অথচ দিনের পর দিন এই সমস্ত অদক্ষ চালক দিয়ে পরিচালিত হচ্ছে এই যানবাহন গুলো।

খবর নিয়ে আরো জানা যায়, বর্তমানে টেকনাফের টমটম ও অটোরিক্সার বেশির ভাগ চালকের স্থায়ী ঠিকানা পার্শ্ববর্তী দেশ মিয়ানমারের। অপরদিকে খবর নিয়ে জানা যায়, ১৫ অক্টোরব সড়ক দুঘটনায় হোয়াইক্যং ইউনিয়নের বেপরোয়া একটি টমটমের ধাক্কায় নিহত হল তারেক নামে একজন শিশু।

সুত্রে আরো জানা যায় শনিবার দুপুর ১টার দিকে টেকনাফ হোয়াইক্যং ইউনিয়নে পূর্ব মহেশখালীয়া পাড়ায় প্রধান সড়ক পার হওয়ার সময় বেপরোয়া ভাবে একটি টমটম গাড়ির চাপায় পড়ে। তাকে দ্রুত উদ্ধার করে হ্নীলা স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হলে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উপজেলা সদর হাসপাতালে নেওয়ার পথে শিশুটি মৃতুর কোলে ঢলে পড়ে। সে কক্সবাজারের নুনিয়াছড়ার আব্দুল মালেকের শিশু পুত্র মোঃ তারেক (৭)।

এব্যাপারে এটিএসআই মো: জাহাঙ্গীর আলম আমাদের রামু কে জানান, টেকনাফ পৌরসভা ও উপজেলার আনাচে-কানাচে যে সমস্ত টমটম, অটোরিক্সার চালকরা কম বয়সি ও অদক্ষ তাদেরকে চিহ্নিত করে আইনের আওয়াতাই আনা হবে। পাশাপাশি যে সমস্ত অটোরিক্সা, টমটম, সিএনজি নাম্বার বিহীন সেই সমস্ত যানবাহন গুলোকে পৌর কর্তৃপক্ষ ও মেয়র মহদয়ের সাথে আলাপ করে এই যানবাহন গুলোকেও আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।