সেলিব্রেটি হওয়ার গল্প

নঈম আল ইস্পাহান:
বেশ কিছুদিন ধরে রাকিবা খেয়াল করল একটি ছেলে তাকে বিভিন্নভাবে ফলো করছে।কলেজ যাওয়ার পথে ছেলেটি পিছু,পিছু যায়।ক্যাম্পাসে বন্ধুদের সাথে আড্ডাকালে একটু দূরত্ব বজায় রেখে ছেলেটিকে বসে থাকতে দেখা যায়।শুধু মুচকি হেসে তাকায়।সেদিন রাকিবা শপিং করতে গিয়ে ও ছেলেটিকে আবিষ্কার করে তার পাশের শো-রুমে।দূর থেকে খেয়াল করছে রাকিবা কি করছে,না করছে সব।রাকিবা খুব বিরক্ত হলো।এভাবে কারো পিছু নেয়ার কি কারণ হতে পারে?ছেলেটি কি রাকিবাকে ইমপ্রেস করার চেষ্টা করছে?রাকিবার প্রেমে হাবুডুবু খাচ্ছে সে?কিন্তু,সরাসরি সামনে আসছেনা কেন?এভাবে লুকোচুরি খেলা রাকিবার একদম ভালো লাগেনা।

পরের দিন ও ঠিক একই ভাবে ছেলেটি রাকিবার পিছু পিছু তার কলেজে এসেছে।প্রতিদিনের ন্যায় রাকিবা তার বন্ধুদের সাথে আড্ডাকালে সে একটু দূরে বসে রাকিবাকে খেয়াল করছে।রাকিবা ছেলেটিকে তার প্রিয় বন্ধু মিথিলা কে দেখিয়ে সব ঘটনা খুলে বলল।
সব কিছু শোনে মিথিলা বলল,সে মনে হয় তোকে ভালোবাসে।ছেলেটাকে দেখতে খুব ইনোসেন্ট মনে হয়।এই ধরণের ছেলেরা সহজে মনের ভাষা প্রকাশ করতে পারেনা।তুই সরাসরি গিয়ে তার সাথে কথা বললে মনে হয় ভালো হবে।

মিথিলার পরামর্শ রাকিবার খুব পছন্দ হয়েছে।রাকিবা ভাবল,কেউ লজ্জা পেতেই পারে।আর তার দিকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়া মহত্বের লক্ষণ।যেই ভাবা সেই কাজ।রাকিবা ছেলেটির সাথে কথা বলার জন্য উঠে দাঁড়াল।গুঁটি গুঁটি পায়ে ছেলেটির দিকে এগিয়ে যেতে থাকল।রাকিবাকে আসতে দেখে ছেলেটিও উঠে দাঁড়াল।রাকিবা,ছেলেটির সামনাসামনি এসে থামল।একবার ছেলেটির অাপাদমস্তক দেখে নিলো।রাকিবাকে সামনাসামনি দেখে ছেলিটি লজ্জায় কাঁচুমাচু করছে।ছেলেটি কিছুই বলতে পারছেনা।শুধুই এদিক,সেদিক তাকাচ্ছে।দৃশ্যটা দেখে রাকিবার খুব হাসি পাচ্ছে।এই যুগে এমন ছেলে হয়?এত লাজুক?রাকিবা যদি নিজ থেকে কথা বলতে না আসত ছেলেটি বোধহয় কখনো রাকিবার সামনে যাওয়ার সাহস পেতনা।রাকিবা বুঝতে পারল এই ছেলে আগে কথা বলতে পারবেনা।তাই রাকিবা প্রথম মুখ খুলল:কি নাম তোমার?
-ইমু।
:কি করো?
-আপাতত,আপনার পিছু,পিছু ঘুরি।
:এটা ছাড়া আর কি করো?
-ভালো ফেসবুকিং করি।
:আমার পিছু,পিছু কেন ঘুরো?
-আপনাকে খুব ভালো লাগে।
:কেন ভালো লাগে?
-আপনি খুব সুন্দরী।
:সুন্দরী হলেই কি পিছু পিছু ঘুরতে হবে?
-সুন্দরী না হলে তো ঘুরতাম না।
:তুমি কি আমাকে ভালোবাসো?
-না।
:এমনিতে পছন্দ করো?
-না।পছন্দ ও করিনা।
:তাহলে কেন আমার পিছু,পিছু ঘুরতেছ?
-যদি বলি কিছু মনে করবেন না তো?
:না।মোটেও না।
-সত্যি কিছু মনে করবেন না তো?
:না।কিছু মনে করবোনা।তুমি বলো।
-কিভাবে যে বলি আপনাকে।আসলে এতদিন আমি আপনার পিছু পিছু ঘুরেছি…
:কেন ঘুরেছ?
-আমি আপনার সাথে কিছু সেলফি তুলতে চাই।
:হুয়াট?আমার সাথে কেন সেলফি তুলবে?
-ফেসবুকে আপলোড দিব।
:আমার সাথে সেলফি কেন ফেসবুকে আপলোড দিবে?
-এটা সেলফির যুগ।আপনার মতো সুন্দরীর সাথে সেলফি আপলোড দিলে আমার লাইক,কমেন্ট বেড়ে যাবে।আর আমি রাতারাতি ফেসবুকে সেলিব্রেটি হয়ে যাবো!