চকরিয়ায় কাউন্সিলর অপহরণে জড়িতদের গ্রেপ্তারের দাবিতে কর্মবিরতি

এ.এম হোবাইব সজীব:
কক্সবাজারের চকরিয়া পৌরসভার কাউন্সিলর নজরুল ইসলামকে অপহরণের ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারের দাবিতে পৌর পরিষদ গতকাল রবিবার দুই ঘণ্টা কর্মবিরতি পালন করেছে। এর আগে সংবাদ সম্মেলনে ৭২ ঘণ্টা আল্টিমেটাম ঘোষণা করেছে মেয়র। এ সময়ের মধ্যে অপহরণকারীদের গ্রেপ্তার করা না হলে কঠোর কর্মসূচী ঘোষণা দেয়া হবে।

রবিবার দুপুর ১২ টার দিকে চকরিয়া পৌরসভা কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে পৌর পরিষদের পক্ষে এ ঘোষনা দেন মেয়র মো. আলমগীর চৌধুরী।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে অপহরণের পর উদ্ধার হওয়া ৯নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও যুবলীগ নেতা নজরুল ইসলাম বলেন, ২০ মার্চ পৌরসভা নির্বাচনের পর জনগণের প্রত্যাশা পূরণে আমার ওয়ার্ডকে মাদক মুক্ত রাখতে চেষ্টা করি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মাদক ব্যবসায়ীদের নেতা জিয়া উদ্দিন বাবলুর নেতৃত্বে একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী গত ২৮ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাত সাড়ে ১১ টার দিকে হত্যার উদ্দ্যেশে আমাকে অপহরণ করে। এসময় আমাকে অমানবিক মারধর ছাড়াও ডান হাটুতে গুলি করে জখম করে। আমার কাছ থেকে ৪ লাখ ৭০ হাজার টাকা ও ১টি মোবাইল সেট ছিনিয়ে নেয়। এব্যাপারে আমি বাদি হয়ে জিয়া উদ্দিন বাবলুকে প্রধান আসামী করে ১০ জনের নাম উল্লেখ পূর্বক অজ্ঞাত আরো ৬-৭ জনকে আসামী করে চকরিয়া থানায় মামলা দায়ের করি।

press-copyসংবাদ সম্মেলনে ২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রেজাউল করিম বলেন, কাউন্সিলর নজরুলকে অপহরণে নেতৃত্বে দেয়া জিয়া উদ্দিন বাবলু ২০০৯ সালের ৭ জুন নুর মোহাম্মদ বাদি হয়ে দায়ের করা মামলার আসামী। তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারী পরোয়ানাও রয়েছে।

পৌরসভার নারী-পূরুষ কাউন্সিলর ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপস্থিতিতে সংবাদ সম্মেলনে মেয়র মো.আলমগীর চৌধুরী বলেন, আগামী ৭২ ঘণ্টা মধ্যে কাউন্সিলর নজরুল অপহরণ মামলার আসামীদের গ্রেপ্তার করতে হবে।আর না হলে পৌর পরিষদ কঠোর আন্দোলন কর্মসূচী ঘোষণা করবে। আন্দোলনের প্রথম ধাপ হিসাবে সংবাদ সম্মেলনের পর বেলা ২ টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত দুই ঘণ্টা কর্মবিরতি পালন করে পৌর পরিষদ।