নাইক্ষ্যংছড়ির বরখাস্তকৃত উপজেলা চেয়ারম্যান তোফাইল ফের গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিনিধি :
নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা পরিষদের বরখাস্তকৃত চেয়ারম্যান বহুল আলোচিত তোফাইল আহমদকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। রোববার (১৮ সেপ্টেম্বর) সকালে জেলা শহরের রাজারমাঠ এলাকা থেকে ডিবি পুলিশের একটি দল তাকে গ্রেপ্তার করে।

পুলিশ সূত্র জানায়-শহরের রাজারমাঠ এলাকায় ঘুরাঘুরি করার সময় ডিবি পুলিশের সদস্যরা তাকে আটক করে। এসময় তার সাথে শ্যালক রাকিবসহ কয়েকজন লোক ছিলেন। এর আগে কক্সবাজারের রামু বৌদ্ধবিহারের হামলা মামলার অন্যতম আসামি হওয়ায় চেয়ারম্যান তোফাইল আহমদকে গত ১১ জানুয়ারি ঢাকার সুন্দরবন হোটেলের ৩১৮ নম্বর কক্ষ থেকে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) একটি দল গ্রেপ্তার করেছিল। চলতি মাসে তিনি হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়ে আত্মগোপনে ছিলেন।

বান্দরবানের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে আমাদের রামু কে বলেন, জামায়াত নেতা তোফাইল আহমদের বিরুদ্ধে বেশ কিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য ও প্রমাণ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে নতুন করে সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা হচ্ছে।

তবে তোফাইল আহমদের শ্যালক মোহাম্মদ রাকিব দাবী করে বলেন-কোন কারণ ছাড়াই তোফাইলকে রাজারমাঠ এলাকা থেকে আটক করা হয়েছে। তিনি সমস্ত মামলায় উচ্চ আদালত থেকে জামিনে আছেন।

সূত্র জানায়-গত ২৯ সেপ্টেম্বর রাতে জামায়াত, রোহিঙ্গা জঙ্গীসহ দুস্কৃতকারিরা হামলা, ভাঙচুর, লুট ও অগ্নি সংযোগ করে রামুর বৌদ্ধবিহার ও বৌদ্ধ পল্লীতে অপূরণীয় ক্ষতি সাধন করেছে। পরবর্তীতে সরকার গঠিত তদন্ত কমিটিসহ অসংখ্য সংস্থার প্রতিনিধিরা পৃথকভাবে সরেজমিন তদন্ত করেছে বিষয়টি। বিএনপির গঠিত তদন্ত কমিটি ব্যতিত প্রায় কমিটির রিপোর্টে হামলাটি পূর্ব পরিকল্পিত, এতে রোহিঙ্গা জঙ্গী ও জামায়াতসহ মৌলবাদী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা জড়িত রয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

তন্মধ্যে নাইক্ষ্যংছড়ির জামায়াত নেতা ও উপজেলা চেয়ারম্যান তোফাইল আহমদের নাম রামুর নারকীয় ঘটনার পরিকল্পনাকারী হিসেবে উঠে এসেছে তদন্ত রিপোর্টে। এরপর এ ঘটনা জানাজানি হলে তোফাইল আহমদ গা ঢাকা দেন। ঘটনার পূর্বে তাঁর বাসায় রোহিঙ্গাদের নিয়ে বৈঠকও করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

উত্তম বড়ুয়ার ফেসবুকে কোরআন অবমাননাকর ছবি ট্যাগ করে দেয়ার কাজে জড়িত থাকায় পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হওয়া মুক্তাদির আলিফ তার জবানবন্দীতে রামুর ঘটনার পূর্বে তোফাইলের বাসায় বৈঠক করার কথা স্বীকার করেছে। সেই মুক্তাদির তোফাইল আহমদের ভাগিনা। বর্তমানে মুক্তাদির আলিফ বিদেশে পলাতক রয়েছে।