রামুতে নৌকাডুবির ঘটনায় নিখোঁজ ২ শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার

হাফিজুল ইসলাম চৌধুরী :
কক্সবাজারের রামুর বাঁকখালী নদীতে গতকাল শুক্রবার বিকেলে নৌকাডুবির ঘটনায় নিখোঁজ দুই স্কুলছাত্রের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আজ শনিবার দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার চাকমারকুল ইউনিয়নের কলঘর বাজারের পাশে বাঁকখালী নদীর গভীর থেকে আবদুর রহমানের লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে একই স্থান থেকে দুপুর ২টায় অপর নিখোঁজ ছাত্র আসিফুর রহমানের লাশও উদ্ধার করে ডুবরি দল।

অকালে প্রাণ হারানো এ দুজন রামুর দক্ষিণ মিঠাছড়ি উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ব্যবসায় শিক্ষা শাখার শিক্ষার্থী। আবদুর রহমান দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের পশ্চিম উমখালী গ্রামের শামশুল আলমের ছেলে। আর আসিফুর রহমান একই ইউনিয়নের ঘাটপাড়া গ্রামের বশির আহমদের ছেলে।

রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ নিকারুজ্জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে আমাদের রামু কে বলেন-দুই স্কুলছাত্র নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে উদ্ধার অভিযান অব্যাহত ছিল। রবি লাইফ গার্ড, ইয়াছির লাইফ গার্ড, জেলা প্রশাসনের লাইফ গার্ড ও ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধার কর্মীরা যৌথ তৎপরতা চালায়। সবশেষে চট্টগ্রাম থেকে আসা বিশেষ ডুবরি দলের দুই সদস্য শনিবার দুপুরে তাঁদের মৃতদেহ উদ্ধার করে।

unnamed

স্থানীয় সূত্র জানায়, নিহত আবদুর রহমান ও আসিফুর রহমান খুবই ভাল বন্ধু ছিল। তাঁরা সব সময় এক সঙ্গে থাকতেন। একজনের বিপদে অন্যজন ঝাপিয়ে পড়তেন। জাতীয় দিবসেও এক সঙ্গে পুষ্পমাল্য অর্পন করতেন। তাঁদের করুণ এ মৃত্যুতে পরিবার ও এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

উল্লেখ্য, ঘটনার দিন একই শ্রেণির ১২ জন শিক্ষার্থী উমখালী গ্রাম থেকে নৌকায় নদী অতিক্রম করে কলঘরবাজারের কোরবানির পশুর হাটে গিয়েছিল। বিকেলে তারা বাড়ি ফেরার জন্য নৌকায় ওঠে। এ সময় আরও চার ব্যক্তি জোর করে তাদের নৌকায় উঠে পড়ে। এরপর অতিরিক্ত যাত্রী বহনের কারণে নৌকাটি মাঝপথে ডুবে যায়। স্থানীয় লোকজন নদী থেকে ১০ শিক্ষার্থীসহ ১৪ জনকে উদ্ধার করলেও আবদুর রহমান ও আসিফুর রহমানকে পাওয়া যায়নি। এক দিনের ব্যবধানে ডুবরি দলের সদস্যদের মাধ্যমে তাদের লাশ উদ্ধার হয়।