রামুর রেলপথে আন্ডারপাস নির্মাণের দাবিতে লম্বরী পাড়াবাসীর মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক, রামু :
রামুতে নির্মাণাধীন রেলপথে আন্ডারপাস নির্মাণের দাবিতে মানববন্ধন করেছে লম্বরী পাড়াবাসী। সোমবার সকাল ১১টায় রামু উপজেলার লম্বরী পাড়ায় নির্মাণাধীন রেলপথে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে বক্তৃতা করেন, কক্সবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল।

রামু উপজেলার ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নের লম্বরীপাড়া থেকে সিপাহীর পাড়া হয়ে চৌমুহনী স্টেশন পর্যন্ত দীর্ঘ বছরের পুরোনো এ সড়কে প্রতিদিন শত শত লোকজন যাতায়াত করে। বর্তমানে চলাচলের এ সড়কের উপর লম্বরীপাড়ায় ১৫-২০ ফুট উঁচু রেলপথ নির্মাণ করা হয়েছে। এতে দীর্ঘ বছরের সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে পড়েছে। লম্বরী পাড়াবাসীর দাবী নির্মাণাধীন রেলপথে আন্ডারপাস নির্মাণ করে দীর্ঘ বছরের যোগাযোগ ব্যবস্থা স্বাভাবিক করে দেওয়া হোক।

সোমবার (১৬ মে) বেলা ১১ টায় রেলওয়ে সড়কের লম্বরীপাড়া অংশে অনুষ্ঠিত এ মানববন্ধনে বক্তৃতা করেন, কক্সবাজার-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল। প্রচণ্ড রোদ উপেক্ষা করে স্বতঃস্ফূর্তভাবে মানববন্ধনে অংশ নেয়া জনসাধারণের ন্যায্য এ দাবির প্রতি একাত্মতা পোষণ করে বক্তব্য রাখেন।

তিনি বলেন, সরকার জনকল্যাণের জন্যই রেলপথ নির্মাণ করছে। তবে এই রেলপথ নির্মাণ করতে গিয়ে যেন কোনভাবেই জনদূর্ভোগ সৃষ্টি না হয় তাও গুরুত্বের সাথে লক্ষ্য রাখতে হবে। তিনি আন্ডারপাস নির্মাণের মাধ্যমে শত বছরের প্রাচীন এ সড়কটি সচল করার স্বার্থে হাজার হাজার ভুক্তভোগীদের প্রাণের দাবি বাস্তবায়নে ঐকান্তিক প্রয়াস চালিয়ে যাবেন বলে দৃঢ় আশ্বাস দেন।

সড়ক বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি হাজী নুরুল আমিনের সভাপতিত্বে, লম্বরীপাড়া আলোর দিশারী যুবপরিষদের সভাপতি হাফেজ মুহাম্মদ আবুল মঞ্জুরের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত এ মানববন্ধনে এলাকাবাসীর যৌক্তিক দাবির প্রতি একাত্মতা পোষণ করে বক্তব্য রাখেন, রামু উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সালাহ উদ্দিন, ফতেখাঁরকুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম ভূট্টো, ইউপি সদস্য দিদারুল আলম, চাকমারকুল ইউপি সদস্য জামাল উদ্দিন।

মানববন্ধনে এলাকার প্রবীণ আলেমেদ্বীন মাওলানা আব্দুর রাজ্জাক, আওয়ামীলীগ নেতা মামুনুর রশিদ, লম্বরীপাড়া সমাজ কমিটির সভাপতি দিদারুল আলম, শ্রমীকলীগ নেতা নুরুল আবছার বাহাদুর। মানববন্ধনে লম্বরীপাড়া এলাকার শত শত জনতা অংশ নেন।

মানববন্ধনে লম্বরী পাড়াবাসী প্রাণের দাবি আদায়ের লক্ষ্যে সাইমুম সরওয়ার কমল এমপিকে স্মারকলিপি প্রদান করেন।

স্মারকলিপিতে বলা হয়, এ সড়ক দিয়ে বৃহত্তর রামু লম্বরীপাড়াসহ বিভিন্ন এলাকার হাজার হাজার মানুষ ও শতশত ছাত্র-ছাত্রীরা যাতায়াত করে আসছেন শত শত বছর ধরে। সড়কটির গুরুত্ব বিবেচনা করে বহুদিনের দূর্ভোগের অবসানে, জনদাবির বাস্তবায়নে এতদঞ্চলের মাটি ও মানুষের প্রিয়জন, বর্তমান সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমলের ঐকান্তিক প্রয়াসে ২০১২ সালের জানুয়ারিতে স্বেচ্ছাশ্রমে সম্প্রসারিতরূপে সড়কটি পূনঃনির্মিত হয়।

তাই এলাকাবাসী নিজেরাই সড়কটিকে “সাইমুম সরওয়ার কমল সড়ক” হিসেবে নামকরণ করেন। কিন্তু দুই কিলোমিটার দীর্ঘ এ সড়কটি সচল রাখার স্বার্থে আন্ডারপাস নির্মাণের অনিবার্য প্রয়োজনীয়তাকে উপেক্ষা করে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ তাদের কাজ অব্যাহত রাখায় সুফল পেয়ে উঠার আগেই সড়কটি সম্পূর্ণ অচল হয়ে পড়ে। ফলে নিত্যনৈমিত্তিক যাতায়াতকারীদের দূর্ভোগ তো বাড়ছেই; সেই সাথে রেলওয়ের জমি অধিগ্রহণের ফলে ভিটেবাড়ি থেকে উচ্ছেদ হয়ে সড়কটির উভয় পাশে নতুন বসতি গড়ে তোলা পরিবারসমূহসহ অসংখ্য পরিবারের শিশু সন্তানদের প্রাথমিক বিদ্যালয়, মক্তব, মাদ্রাসায় যাতায়াতও অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে। শুধু তা-ই নয়; নির্মাণাধীন রেলপথের কারণে পানি সেচের স্কীম বন্ধ হয়ে যাওয়ায় রেলওয়ে সড়কের পশ্চিম পাশের শত শত একর জমিতে তিন বছর ধরে কোন চাষাবাদই সম্ভবপর হচ্ছে না। আর পূর্বপাশে চাষাবাদ করা কৃষকদেরও রেলওয়ের বিশাল সড়ক পেরিয়ে ফসল বহন করে আনা, যাতায়াত করা চরম কষ্টকর হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এ নিয়ে পুরো এলাকাবাসীর মাঝে চাপা ক্ষোভ ও চরম উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। এমতাবস্থায় এলাকাবাসী গত ২২ সেপ্টেম্বর মাননীয় রেলমন্ত্রী ও এমপি মহোদয়ের সাথে সাক্ষাৎ করে জনগুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটি যথাযথভাবে সচল করার স্বার্থে আন্ডারপাস নির্মাণের দাবি জানালেও এখনো তার কোন সুফল মিলেনি। তাই বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী আন্ডারপাস নির্মাণ করে সড়কটি সচল করার দাবিতে মাঠে নেমেছেন।

তারা এ বিষয়ে মাননীয় রেলমন্ত্রী ও এমপি মহোদয়সহ সংশ্লিষ্ট সকলের সুদৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডকে আমরা স্বাগত জানাই। রেলপথ নির্মাণে আমরা অত্যন্ত আনন্দিত। তবে রেলপথ যেমন জনস্বার্থে নির্মিত হচ্ছে তেমনিভাবে জনস্বার্থে সাধারণ সড়কও যেন সচল রাখা হয় সে ব্যাপারেই আমরা সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি ।