মুক্ত গণমাধ্যম সূচকে ১০ ধাপ পেছালো বাংলাদেশ

অনলাইন ডেস্ক :
বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম সূচকে আবারও পিছিয়েছে বাংলাদেশ। গত বছরের তুলনায় আরও ১০ ধাপ পিছিয়েছে। বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবসে মঙ্গলবার (৩ মে) ২০২২ সালের মুক্ত গণমাধ্যম সূচক প্রকাশ করেছে রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারস (আরএসএফ)। এতে দেখা গেছে, গতবারের তুলনায় এবার বাংলাদেশ ১০ পিছিয়েছে।

২০২১ সালের সূচকে, বাংলাদেশের অবস্থান এক ধাপ নেমে ১৫৩তম হয়। ২০১৩ সালে বাংলাদেশ প্রথম সূচকে অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল। তখন ১৮০টি দেশের মধ্যে ১৪৪তম স্থানে ছিল বাংলাদেশ।

এবারের সূচকে প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্যে মিয়ানমার ছাড়া সবার নিচে বাংলাদেশের অবস্থান। সূচকে বাংলাদেশের চেয়ে ভালো অবস্থানে রয়েছে ভারত (১৫০), পাকিস্তান (১৫৭), শ্রীলঙ্কা (১৪৬), আফগানিস্তান (১৫৬), নেপাল (৭৬), মালদ্বীপ (৮৭), ভুটান (৩৩)।

সামরিক শাসনে থাকা মিয়ানমারের অবস্থান ১৭৬, গতবছর তাদের অবস্থান ছিল ১৪০। এবারের সূচকে ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, আফগানিস্তান ও মালদ্বীপের অবস্থানেরও অবনতি হয়েছে। ভারত পিছিয়েছে আট ধাপ, পাকিস্তান পিছিয়েছে ১৭ ধাপ, শ্রীলঙ্কা ১৯ ধাপ, আফগানিস্তান পিছিয়েছে ৩৪ ধাপ আর মালদ্বীপ পিছিয়েছে ১৫ ধাপ। এই অঞ্চলে সবচেয়ে বেশি উন্নতি হয়েছে ভুটানের, ৩২ ধাপ এগিয়েছে দেশটি। আর নেপাল এগিয়েছে ৩০ ধাপ।

আর সবচেয়ে বেশি সংবাদমাধ্যমে স্বাধীনতা নিশ্চিত করা দেশগুলোর মধ্যে নরওয়ের (স্কোর ৯২ দশমিক ৬৫) পরে রয়েছে ডেনমার্ক, সুইডেন, এস্তোনিয়া, ফিনল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড, পর্তুগাল, কোস্টারিকা, লিথুয়ানিয়া ও লিচেনস্টাইন।

আরএসএফ বলছে, সাম্প্রতিক সময়ে সূচকের জন্য নতুন একটি পদ্ধতি ব্যবহার করেছে আরএসএফ। যা সংবাদপত্রের স্বাধীনতাকে ‘রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, আইনি থেকে স্বাধীনভাবে জনস্বার্থে সংবাদ ও তথ্য নির্বাচন, উত্পাদন এবং প্রচার করার জন্য কার্যকর ভূমিকা পালন করবে।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়েই এই সূচক। অর্থাৎ গণমাধ্যম কতটা স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছে তার ওপর ভিত্তি করে প্রতিবছর এই সূচক প্রকাশ করে থাকে আরএসএফ। ২০০২ সাল থেকেই এই সূচক প্রকাশ করা হচ্ছে।

সূত্র : জাগোনিউজ