মুজিব শতবর্ষের উপহার ঘর পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সিনিয়র সচিব: রামুতে ১০৬৫ ভূমি ও গৃহহীন পরিবার পাচ্ছে জমি ও নতুন ঘর

খালেদ শহীদ, রামু :
রামুতে মুজিব শতবর্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘উপহার’ হিসেবে তৃতীয় পর্যায়ে আরও ৪০০ ভূমি ও গৃহহীন পরিবার নতুন ঘর পাচ্ছে। বৃহস্পতিবার (১৪ এপ্রিল) সকালে রামু উপজেলায় নির্মাণাধীন এ সব ঘরসমূহ পরিদর্শন করেন এবং উপকারভোগীদের সাথে মতবিনিময় করেছেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সিনিয়র সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া।

ভূমি ও গৃহহীন এসব পরিবারকে দুই শতক জমিসহ সেমিপাকা ঘর প্রদান করা হবে। আগামী ২৮ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপকারভোগী ভূমিহীন ও গৃহহীন এ সব পরিবারকে আনুষ্ঠানিক ভাবে নতুন ঘর হস্তান্তর করবেন। রামু উপজেলায় সর্বমোট ১০৬৫ টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে জমি ও ঘর উপহার পাচ্ছে।

ভূমি ও গৃহহীন পরিবার বাছাই কার্যক্রম ও নতুন ঘর নিমার্ণ কাজের গুনগত মান যাচাই করে দেখেন এবং নতুন ঘর পাওয়ার জন্যে তালিকাভূক্ত হতদরিদ্র পরিবারের সদস্যদের সাথে মতবিনিময় করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সিনিয়র সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া। তিনি নতুন নির্মাণাধীন ৪০০ টি ঘর নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেন। এসময় তিনি কক্সবাজারের রামু উপজেলার দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের তালিকাভূক্ত ভূমিহীন ও গৃহহীন ২৪ পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলেন।

মতবিনিময় কালে অসুস্থ স্বামীর সাথে বসবাসরত ছেনুয়ারা কান্নায় ভেঙে পড়েন। গৃহহীন দিনমজুর শ্রমিক মোহাম্মদ রুবেল নতুন ঘর পাওয়ার খবরে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন। মোহাম্মদ রুবেল জানান, দিনমজুর শ্রমিক হিসেবে দৈনন্দিন মজুরী ভিত্তিতে কাজ করেন এবং ভাড়া বাসায় থাকতেন। নিজের একটি ঘর, তার জন্য ছিলো স্বপ্নের মতো। নতুন ঘর পেয়ে তিনিও প্রধানমন্ত্রীর প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। একইভাবে ঘর পেয়েছেন দৃষ্টিহীন আজিজুল হক। ঘর পেয়ে প্রত্যেকটি পরিবারের সদস্যরা আবেগে আপ্লুত হয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং স্থানীয় প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানান। ঘর পাওয়া লোকজন তাদের সমস্যাসমূহ তুলে ধরেন। এ সব সমস্যা দ্রæত সমাধানের জন্য স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশনা প্রদান করেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সিনিয়র সচিব।

এ সময় মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লক্ষ্য ও স্বপ্ন জাতির পিতা স্বাধীনতা দিয়ে গিয়েছেন তার সৃষ্ট বাংলাদেশে একটি মানুষও ভূমিহীন থাকবে না, গৃহহীন থাকবে না। এই নীতি নিয়েই আমরা চলছি, এই নীতি নিয়েই আমরা চলব। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ, গৃহহারা ও ভূমিহীন কিংবা ক্ষতিগ্রস্ত কেউ থাকলে তাদের জন্য ঘরবাড়ির ব্যবস্থা করে দিতে হবে।

রামুতে মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ‘উপহার’ তৃতীয় পর্যায়ে নতুন ঘর নির্মাণ কাজ পরিদর্শন ও উপকারভোগীর সাথে মত বিনিময় কালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সিনিয়র সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়ার সাথে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশিদ, রামু উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) রিগ্যান চাকমা, উপজেলা প্রকৌশলী মনজুর হাছান ভূঁইয়া, দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান খোদেস্তা বেগম রীনা সহ অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।