আবারও বিশ্বের ‘সবচেয়ে দূষিত’ বাতাস বাংলাদেশের

অনলাইন ডেস্ক :
২০২১ সালে বিশ্বের একটি দেশও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) প্রত্যাশিত বাতাসের মান বজায় রাখতে পারেনি। বিশ্বের ৬ হাজার ৪৭৫টি শহরের তথ্য বিশ্লেষণ করে মঙ্গলবার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত বাংলাদেশের বাতাস। গত বছরও শীর্ষ স্থানে ছিল বাংলাদেশ। আর প্রথমবারের আফ্রিকার দেশগুলোর তথ্য যোগ হওয়ায় তালিকার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে চাদ।

বায়ু দূষণ এবং বায়ু পরিশোধন প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করা সুইস সংস্থা আইকিউ এয়ার বার্ষিক এই প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। গত বছর প্রত্যাশিত বায়ুমান নিয়ে নিজেদের গাইডলাইন বদল করে ডব্লিউএইচও। এতে বলা হয়, প্রতি ঘনমিটার বাতাসে ভাসমান ২.৫ মাইক্রোমিটার ব্যাসের বস্তুকণার পরিমাণ বা পিম২.৫ কোনওভাবেই প্রতি ঘনমিটারে ৫ মাইক্রোগ্রামের বেশি হওয়া উচিত নয়।

ওই নির্দেশনার আলোকেই প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে আইকিউ এয়ার। এতে দেখা গেছে, জরিপের আওতায় আসা মাত্র ৩.৪ শতাংশ শহর ডব্লিউএইচও’র প্রত্যাশিত মান বজায় রেখেছে। ৯৩টিরও বেশি শহরে পিএম২.৫ এর মান প্রত্যাশিত মানের চেয়ে ১০ গুণ বেশি।

বাংলাদেশের বাতাসে পিএম২.৫-এর গড় পরিমাণ ছিল ৭৬ দশমিক ৯ মাইক্রোগ্রাম, যা সমীক্ষার ১১৭টি দেশ ও অঞ্চলের মধ্যে সবচেয়ে বেশি। এই হিসেবে গত বছরও বিশ্বে বাংলাদেশের বাতাসই ছিল সবচেয়ে দূষিত।

দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা চাদের বাতাসে পিএম২.৫ এর গড় পরিমাণ ৭৫.৯। তৃতীয় স্থানে থাকা পাকিস্তানে এর পরিমাণ ৬৬.৮। চতুর্থ স্থানে তাজিকিস্তানে এর পরিমাণ ৫৯.৪।

পঞ্চম স্থানে থাকা ভারতের দূষণের মাত্রা সামগ্রিকভাবে ২০২১ সালে আরও খারাপ হয়েছে। তাদের সামগ্রিক দূষণের মাত্র ৫৮.১। দিল্লি এখনও বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহর।

আইকিউ এয়ারের এয়ার কোয়ালিটি সায়েন্স ম্যানেজার ক্রিস্টি শ্রোডার বলেন, অনেক দেশ বায়ু দূষণ কমানোর উদ্যোগ নিচ্ছে। চীনের অবস্থা আগে অনেক খারাপ থাকলেও এখন উন্নতি হচ্ছে। তবে বিশ্বে অনেক জায়গার বায়ু দূষণ পরিস্থিতি ‘ভয়াবহ’।

সূত্রঃ বাংলা ট্রিবিউন