শেখ রাসেল গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্টে উপজেলা ক্রীড়া সংস্থাকে হারিয়ে ফাইনালে রামু যুব একাদশ

খালেদ শহীদ, রামুঃ
রামুতে শেখ রাসেল গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্টের দ্বিতীয় সেমিফাইনাল খেলায় রামু উপজেলা ক্রীড়া সংস্থাকে টাইব্রেকারে পরাজিত করে ফাইনালে খেলা নিশ্চিত করেছে রামু যুব একাদশ।

বৃহস্পতিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) বিকাল ৪ টায় রামু ষ্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত সেমিফাইনাল ফুটবল খেলায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন, কক্সবাজার জেলা পরিষদ সদস্য নুরুল হক কোম্পনী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, সাবেক কৃতি ফুটবলার রামু শেখ রাসেল গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট পরিচালনা পরিষদের সহ-সভাপতি পলক বড়ুয়া আপ্পু।

খেলায় ম্যান অবদ্যা ম্যাচ নির্বাচিত হয়েছেন, রামু যুব একাদশের অধিনায়ক ও গোলরক্ষক এমডি সাঈদি। সেরা খেলোয়াড় এমডি সাঈদির হাতে ট্রফি তোলে দেন, অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি নুরুল হক কোম্পানী সহ অতিথিরা। এ সময় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, রামু উপজেলা প্রকৌশলী মনজুর হাছান ভুঁইয়া, সাবেক কৃতিফুটবলার বিমল বড়ুয়া, তরুন বড়ুয়া, দেবপ্রসাদ বড়ুয়া টিপু ও ক্রীড়া সংগঠক গিয়াস উদ্দিন কোম্পানী।

টুর্ণামেন্টের দ্বিতীয় সেমিফাইনাল খেলায় সেরা খেলোয়াড় নির্বাচন করেন, সাবেক কৃতি ফুটবলার সাংবাদিক খালেদ শহীদ, সাবেক কৃতি ফুটবলার বিকাশ বড়ুয়া বিভাষ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন ওমর ফারুক মাসুম।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে, কক্সবাজার সদর-রামু-ঈদগাঁহ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল এর প্রধান পৃষ্ঠপোষকতায় বৃহস্পতিবার বিকালে রামু স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয় শেখ রাসেল গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট ২০২১-২২ এর দ্বিতীয় সেমিফাইনাল খেলা।

তীব্র প্রতিদ্বন্দিতাপূর্ণ সেমিফাইনাল খেলার নির্ধারিত সময়ে নিশ্চিত গোলের বেশ কয়েকবার সুযোগ পেলেও, শেষ বাঁশি পর্যন্ত কোন দলই গোল করতে পারেনি। ফলে খেলার ফলাফল নিষ্পত্তি হয় টাইব্রেকারে। টাইব্রেকারে রামু যুব একাদশের কাছে ৫-৪ গোলে পরাজিত হয়, রামু উপজেলা ক্রীড়া সংস্থা। রামু যুব একাদশের পক্ষে তিন জন ও রামু উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার পক্ষে দুই জন বিদেশী কৃষ্ণাঙ্গ ফুটবলার অংশ নেন। টানটান উত্তেজনাপূর্ণ এ খেলা দর্শকদের আন্দোলিত করেছে। তীব্র প্রতিদ্বন্দিতাপূর্ণ খেলায় বিজয় নিয়ে ফাইনালে খেলার যোগ্য দল হিসেবে মাঠ ছাড়ে রামু যুব একাদশ।

দর্শক নন্দিত সেমিফাইনাল খেলা পরিচালনায় আবুল কাসেম কুতুবি রেফারী, জয়নাল আবেদিন, আহমদ কবির ও সিরাজুল হক সহকারি রেফারীর দায়িত্ব পালন করেন।

রামু যুব একাদশ:
এমডি সাঈদি (অধিনায়ক ও গোলরক্ষক), ওসামা ফ্রাং (বিদেশী খেলোয়াড়), হানিফ, আরিফ, দুর্জয়, শাওন, রানা-১, শাকিল, আয়াত উল্লাহ, ওসমান (বিদেশী খেলোয়াড়), সেসিনো (বিদেশী খেলোয়াড়)। অতিরিক্ত খেলোয়াড় ছিলেন, রিসাদ, নুরুল হক, রানা-২, ইসনান, আজাদ, দিদার।

রামু উপজেলা ক্রীড়া সংস্থা :
সোহেল বড়ুয়া (অধিনায়ক), আল মামুন (গোলরক্ষক), আশিক, ওসমান, মোস্তফা, আরিফ, কমল বড়ুয়া, শেখ আহমদ, দিদার, আমজাদ, বাহ্ (বিদেশী খেলোয়াড়)।

হলুদ কার্ড: রামু যুব একাদশের বিদেশী খেলোয়াড় ওসমান, আরিফ ও রামু উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার কমল বড়ুয়া।