রামুতে নিরীহ পরিবারের সবজি ক্ষেত ও ঘেরা-বেড়া গুড়িয়ে দিলো ভূমিগ্রাসী চক্র

রামু প্রতিনিধিঃ
রামুতে খাসজমি জবর-দখলের উদ্দেশ্যে নিরীহ পরিবারের সবজি ক্ষেত কেটে সাবাড় ও ঘেরা-বেড়া ভাংচুর করেছে ভূমিগ্রাসী চক্র। এ ঘটনায় কয়েকজন আহতও হয়েছেন। শুক্রবার, ১১ ফেব্রæয়ারি সকাল ১০ টায় রামুর জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের উত্তর মিঠাছড়ি পাহাড়িয়াপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ নিয়ে রামু থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন- ওই এলাকার মোহাম্মদ আলমের স্ত্রী হোসনে আরা বেগম।

লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে- নিজেদের স্বত্বঃদখলীয় জমিতে দীর্ঘদিন সবজি ক্ষেত ও চাষাবাদ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলেন মোহাম্মদ আলমের পরিবার। জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের ইলিশিয়াপাড়া এলাকার একটি ভূমিগ্রাসী চক্র তাদের অসহায়ত্বের সূযোগে দীর্ঘদিন জমিটি জবর-দখলের চেষ্টা চালিয়ে আসছিলো। এরই অংশ হিসেবে শুক্রবার সকালে ইলিশিয়াপাড়া এলাকার মৃত মিয়া হোছনের ছেলে জালাল আহমদ, দলিদুল রহমান ধইল্যার ছেলে ভূট্টো, জালাল আহমদের ছেলে ছালামত উল্লাহ ও তারেকের নেতৃত্বে অর্ধশতাধিক ভাড়াটে লোকজন দেশীয় অস্ত্র, লাটি-সোটা নিয়ে ওই জমিতে প্রবেশ করে। এসময় সংঘবদ্ধ চক্রটি মো. আলমের ৪০ শতক জমিতে রোপন করা সবজি ক্ষেতের সব গাছ দা দিয়ে কেটে দেয়।

এছাড়া চারপাশের ঘেরা-বেড়াও ভাংচুর করে। সবজি ও ঘেরা-বেড়া গুড়িয়ে দেয়ার সময় আলমের স্ত্রী হোসনে আরা বেগম বাধা দেয়ার চেষ্টা করলে হামলাকারিরা তাদের মারধর এবং বাড়ি লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। পরে সন্ত্রাসীরা চলে যাওয়ার সময় হোসনে আরা বেগমের বসত বাড়ি আগুনে পুড়িয়ে দেয়া, স্কুল পড়ুয়া মেয়েকে অপহরণ, পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়েরসহ বিভিন্ন প্রকার হুমকী দেয়।

ক্ষতিগ্রস্ত হোসনে আরা বেগম আরো জানান- এ ঘটনায় তার লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এ জমিটি জবর-দখল করা হলে তার পরিবারকে না খেয়ে থাকতে হবে। তিনি এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পুলিশ প্রশাসন ও সংশ্লিষ্ট সকলের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

পুলিশ জানিয়েছে- এ ব্যাপারে তদন্ত করে জড়িতদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।