স্বাধীনতার অর্ধশতাব্দি পর নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তে মোবাইল নেটওয়ার্ক

হাফিজুল ইসলাম চৌধুরী :
দেশ স্বাধীনের অর্ধশতাব্দি পর মোবাইল নেটওয়ার্কের আওতায় এসেছে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি সদরের সীমান্তবর্তী চাকঢালা জনপদের মানুষ। গত বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে সেখানে রবি ও এয়ারটেল নেটওয়ার্কের যাত্রা শুরু হয়।

ওই জনপদে মোবাইল নেটওয়ার্ক চালু করার জন্য গেল বছরের ১৫ জানুয়ারি টেলিযোগাযোগ খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসিকে আবেদন জানান নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. শফিউল্লাহ। এ চিঠির প্রেক্ষিতে বিটিআরসি একই বছরের ৯ ফেব্রুয়ারি রবি, গ্রামীনফোন, টেলিটক ও বাংলালিংক কোম্পানিকে মোবাইল নেটওয়ার্ক চালু করার জন্য জন্য চিঠি দেন।

এরপর থেকেই চাকঢালা এলাকায় টাউয়ার স্থাপনের কাজ শুরু করে রবি। বর্তমানে রবির নেটওয়ার্ক চালু হওয়ায় খুশি সীমান্তের মানুষ।

এ প্রসঙ্গে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. শফিউল্লাহ বলেন, দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ দিন দিন ডিজিটাল ও উন্নত হচ্ছে। এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে মন্ত্রী বীর বাহাদুরের সুযোগ্য নেতৃত্বে ধারাবাহিকভাবে পার্বত্য অঞ্চলও এগিয়ে যাচ্ছে। যোগাযোগের জন্য এখন অন্যতম মাধ্যম মোবাইল নেটওয়ার্ক। সেই নেটওয়ার্ক না থাকায় নাইক্ষ্যংছড়ির চাকঢালার মানুষ কষ্টে ছিল। সেটি লাগবে তিনি প্রচেষ্টা চালিয়ে সফল হয়েছেন।

অধ্যাপক মো. শফিউল্লাহ বলেন- এই করোনাকালে শিক্ষার্থীদের জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন মোবাইল নেটওয়ার্ক। ইন্টারনেট সমস্যার কারণে অনেক শিক্ষার্থী বঞ্চিত হচ্ছে লেখাপড়া থেকে। নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার যে সমস্ত এলাকায় এখনো মোবাইল নেটওয়ার্ক নেই, সেসব এলাকায় নেটওয়ার্ক চালুর জন্য বিটিআরসি এবং মোবাইল কোম্পানিকে অনুরোধ করেছেন তিনি।

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা ছাত্রলীগের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি ইব্রাহীম খলিল বলেন- উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই একের পর এক সৃজনশীল কাজ বাস্তবায়ন করে মানুষের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন অধ্যাপক মো. শফিউল্লাহ। চাকঢালাবাসীর মোবাইল নেটওয়ার্ক প্রাপ্তিতে তিনি আরও একটি ভাল কাজের স্বীকৃতি পেলেন। নেটওয়ার্কের কল্যাণে শিক্ষার্থীরা তথ্য প্রযুক্তিখাতে এগিয়ে যাবে।

ইব্রাহীম খলিল বলেন- মোবাইল নেটওয়ার্ক চালু হওয়ায় চাকঢালাবাসী অনেক দূর এগিয়ে যাবে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে তিনি উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. শফিউল্লাহ, বিজিবি, বিটিআরসি এবং রবির স্থানীয় ডিস্ট্রিবিউটর ফরমান উল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।