বিদ্যালয়ে ভর্তিতে প্রবেশপত্র পাবে না আবেদনকারীরা

অনলাইন ডেস্কঃ
সারাদেশে সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ভর্তিতে প্রায় ৫ লাখ আবেদন জমা পড়েছে। অনলাইন আবেদন কার্যক্রম শেষ হয়েছে রোববার (২৭ ডিসেম্বর)। তবে এবার ভর্তিতে পরীক্ষার বদলে লটারি হওয়ায় আবেদনকারীকে প্রবেশপত্র দেয়া হবে না বলে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতর (মাউশি) সূত্রে জানা গেছে।

অভিভাবকরা জানান, আবেদনকারীরা অনলাইনে আবেদন সম্পন্ন করে প্রবেশপত্র না পাওয়ায় উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় রয়েছে। আগামী ৩০ ডিসেম্বর সফটওয়্যারের মাধ্যমে সারাদেশে ভর্তি লটারি আয়োজনের ঘোষণা দেয়া হলেও, এখনো প্রবেশপত্র না পাওয়ায় অনেক হতাশ হয়ে পড়েছেন। কবে তা দেয়া হবে সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট ঘোষণা দেয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেন তারা।

এ বিষয়ে মাউশির পরিচালক (মাধ্যমিক) মো. বেলাল হোসাইন জাগো নিউজকে বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতির কারণে এবার ভর্তি পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। প্রথম থেকে ৯ম শ্রেণি পর্যন্ত লটারির মাধ্যমে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। এ জন্য আবেদনকারীদের প্রবেশপত্র দেয়া হবে না।’

তিনি বলেন, ‘আবেদন সম্পন্ন হওয়ার পর একটি কনফারমেশন (নিশ্চিতকরণ) বার্তা দেয়া হবে। সেটি প্রিন্ট করে রাখতে হবে। লটারিতে যারা ভর্তির জন্য নির্বাচন হবে, তারা নিশ্চিতকরণ পত্রটি নিয়ে স্কুলে জমা দিয়ে ভর্তি হতে হবে। কেউ সেটি হারিয়ে ফেললে প্রার্থীর ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড দিয়ে আবারও তা প্রিন্ট করতে পারবে বলে জানান।’

জানা গেছে, প্রথম থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত প্রায় ৮০ হাজার শূন্য আসনের বিপরীতে ৫ লাখের কাছাকাছি আবেদন এসেছে। দেশের সব সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে এবার একযোগে অনলাইন আবেদন কার্যক্রম শুরু হয়ে একযোগে শেষ হয়েছে। এ পর্যন্ত সাড়ে পাঁচ লাখের কাছাকাছি আবেদন জমা হয়েছে। অনেকে এক বিদ্যালয়ে একাধিক শিফটে আবেদন করেছে।

আগামী ৩০ ডিসেম্বর লটারি আয়োজন করা হবে। সেদিন রাতের মধ্যে ফলাফল প্রকাশ করা হবে বলেও জানান বেলাল হোসাইন।

সূত্রঃ জাগোনিউজ