নববর্ষ ঘিরে সক্রিয় জাল টাকার চক্র, গ্রেপ্তার ৯

অনলাইন ডেস্কঃ
খ্রিস্টীয় নববর্ষ সামনে রেখে সক্রিয় হওয়া জাল টাকার একটি চক্রের নয় সদস্যকে গ্রেপ্তারের কথা জানিয়েছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ।

বৃহস্পতিবার গোয়েন্দা পুলিশের গুলশান বিভাগের একটি দল রাজধানীর জুরাইন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করে।

গোয়েন্দা পুলিশের গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার মশিউর রহমান বলেন, বাংলাদেশের জাল টাকা ও রুপি উৎপাদনকারীদের ‘হোতাদের একজন’ জাকির হোসেনের সঙ্গে জাহাঙ্গীর আলম, বাদল খান, মালেক ফরাজী, জসিম উদ্দিন, সাগর, শিহাব, জামাল ও ওবায়দুলকে গ্রেপ্তার করা হয়ছে।

তাদের কাছ থেকে নগদ ৪০ হাজার ৫০০ টাকা এবং ২০ লাখ ভারতীয় রুপি ও ৩২ লাখ বাংলাদেশি টাকার জাল নোট, মোবাইল ফোন, জাল টাকা ও রুপি তৈরির বিশেষ ধরনের কাগজ, নিরাপত্তা সুতা, বিভিন্ন ধরনের রং, রাসায়নিক, ল্যাপটপ, প্রিন্টার, লেমিনেশন মেশিন, কাটার, বিভিন্ন রকমের ডাইসসহ জাল টাকা তৈরির বিভিন্ন উপকরণ জব্দ করা হয়।

“যেসব উপকরণ জব্দ করা হয়েছে সেগুলো দিয়ে আরও কয়েক কোটি জাল টাকা ও রুপি তৈরি করা সম্ভব,” বলেন তিনি।

এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, এ চক্রের সদস্যরা বাংলাদেশের বাগেরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী, চট্টগ্রাম, ঢাকা জেলা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর এবং ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন জায়গায় লুকিয়ে থেকে জাল টাকা তৈরি করত।

“থার্টিফার্স্ট ও নববর্ষ উপলক্ষে জাল রুপি ও টাকার চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় জুরাইনের শহীদ শাহাদত হোসেন রোডে একটি ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়ে এ কাজ করছিল চক্রটি।”

গ্রেপ্তারদের প্রায় সবার বিরুদ্ধে ঢাকা মহানগরীসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় ডজনখানেক মামলা রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, “জামিনে থেকেও বেশি টাকা উপার্জনের লোভে তারা বারবার জাল টাকা ও রুপি উৎপাদন করছিল।

“২০১৯ সালে এই জাকির, তার স্ত্রী ও অপর সহযোগীসহ ডেমরা থানা এলাকায় একটি অত্যাধুনিক বাসায় জাল রুপি উৎপাদনকালে গ্রেপ্তার হয়েছিল। জাকির একজন কুখ্যাত ফিনিশার, হাতুড়ে ইঞ্জিনিয়ার এবং জাল টাকা ও রুপি সম্পর্কে সম্যক জ্ঞানের অধিকারী।

“এদের মধ্যে ওবায়দুল ও জসিম এই জাল টাকা তৈরির কারখানায় বিশেষ কাগজ, নিরাপত্তা সুতা তৈরি এবং অন্য কাজ করতেন। বাদল ঢাকা, সাভার ও মানিকগঞ্জের পাইকারি ডিলার। শিহাব রাজধানীর পাইকারি ডিলার। সাগর নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরে ডিলার। আর বরিশালসহ দক্ষিণ অঞ্চলে জাল নোট সরবরাহকারীদের মূল হোতা জামাল।”

গ্রেপ্তারদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানান উপ-কমিশনার মশিউর।

সূত্র : বিডিনিউজ