সৈকতে বঙ্গবন্ধুর বৃহৎ বালুর ভাস্কর্য

অনলাইন ডেস্কঃ
সৈকতে বঙ্গবন্ধু তর্জনী উঁচিয়ে আছেন। এর উপরে লেখা হয়েছে- এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম আর নিচে লেখা হয়েছে,সাগরের চেয়ে বিশাল তুমি।

এমন চিত্র তুলে ধরা হয় বালু দিয়ে তৈরি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্যে। কুষ্টিয়ায় নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভাঙার প্রতিবাদে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে তৈরি এই ভাস্কর্য সবার জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছে।

বুধবার (১৬ ডিসেম্বর) দুপুরে সৈকতের লাবণী পয়েন্টে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, জাতীয় সংগীত পরিবেশন ও ১০০টি শান্তির পায়রা উড়িয়ে এ বালু ভাস্কর্যের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়।

উদ্বোধনী ঘিরে সৈকতজুড়ে উৎসবের বর্ণিল আবহ ছড়িয়ে পড়ে। সকাল থেকে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ জাতীয় পতাকা হাতে সৈকতের লাবণী পয়েন্টে আসতে শুরু করে। ভীড়ের মিছিলে ছিল পর্যটকরাও। উদ্বোধন উপলক্ষে দৃষ্টিনন্দনভাবে সাজানো হয় অনুষ্ঠান প্রাঙ্গণ। সাগরের বিশাল জলরাশির বুক ভেদ করে একদল তরুণ লাল সবুজের পতাকা নিয়ে জেডস্কীর মাধ্যমে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা করে। এ সময় হাজার হাজার মানুষ বিজয়ের উচ্ছ্বাসে মেতে উঠে।

জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে তৈরি ভাস্কর্য উদ্বোধনীতে বক্তব্য দেন কক্সবাজার সদর আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল, পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা কামাল হোসেন চৌধুরী ও ব্র্যান্ডিং কক্সবাজারের চেয়ারম্যান কেন্দ্রীয় যুবলীগের সিসি কমিটির সদস্য ইশতিয়াক আহমদ জয়।

বক্তারা বলেন, কুষ্টিয়ায় জাতির পিতার ভাস্কর্যের অবমাননা প্রতিবাদে দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতে তার বৃহৎ বালু ভাস্কর্য তৈরি করে কক্সবাজারবাসী দেশবাসীকে জানাতে চায়, পৃথিবী যতদিন আছে ততদিন জাতির পিতার অস্তিত্ব থাকবে। একটি মৌলবাদীগোষ্ঠী জাতির জনকের ভাস্কর্য অপসারণের যে ধৃষ্টতা দেখিয়েছে সেই অপচেষ্টা কখনো সফল হবে না। জাতির জনক থাকবে মানুষের হৃদয়ে।

বাংলাদেশ টেলিভিশনের কক্সবাজার সংবাদ প্রতিনিধি জাহেদ সরওয়ার সোহেলের সঞ্চালনায় উদ্বোধনীতে স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক শ্রাবস্তী রায়, ট্যুরিস্ট পুলিশের পুলিশ সুপার মো. জিল্লুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. শাজাহান আলি, সিভিল সার্জন ডা. মাহবুবুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী, সাবেক পৌর চেয়ারম্যান নুরুল আবছার, জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি রেজাউল করিম, যুগ্ম সাধারাণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রণজিত দাশ, সাংগঠনিক সম্পাদক নাজনীন সরওয়ার কাবেরী, সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট তাপস রক্ষিত, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. নজিবুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক উজ্জ্বল কর, জেলা যুবলীগের সভাপতি সোহেল আহমদ বাহাদুর ও জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মারুফ আদনান প্রমুখ।

সূত্রঃ জাগোনিউজ