করোনাভাইরাস: চাকরি প্রত্যাশীদের বয়সে ছাড়

অনলাইন ডেস্কঃ
করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে গত ২৫ মার্চ যাদের বয়স ৩০ বছর পূর্ণ হয়েছে তাদেরও এখন সরকারি চাকরিতে আবেদনের সুযোগ দিয়েছে সরকার।

বিসিএস ছাড়া অন্যসব সরকারি চাকরির নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের সময় গত ২৫ মার্চ প্রার্থীর সর্বোচ্চ বয়সসীমা নির্ধারণ করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগকে বৃহস্পতিবার অনুরোধ জানিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

তবে ঠিক কত সংখ্যক পদে বা কতগুলো প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের ক্ষেত্রে এই ছাড় প্রযোজ্য হবে, তা এখনও স্পষ্ট নয়।

এ সংক্রান্ত আদেশে বলা হয়েছে, যেসব মন্ত্রণালয় ও বিভাগের অধীন অধিদপ্তর, পরিদপ্তর ও সংস্থা এবং সংবিধিবদ্ধ, স্বায়ত্বশাসিত বা জারিকৃত প্রতিষ্ঠানগুলো বিভিন্ন ক্যাটাগরির সরকারি চাকরিতে (বিসিএস ব্যতীত) সরাসরি নিয়োগের ক্ষেত্রে যথাযথ কর্তৃপক্ষ থেকে গত ২৫ মার্চের আগে নিয়োগের ছাড়পত্রসহ সার্বিক প্রস্তুতি নেওয়ার পরও কোভিড-১৯ পরিস্থিতির কারণে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে পারেনি, সেসব দপ্তরের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে গত ২৫ মার্চ তারিখে প্রার্থীর সর্বোচ্চ বয়সসীমা নির্ধারণ করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করা হল।

অর্থাৎ ২৫ মার্চের আগে যেসব মন্ত্রণালয় ও বিভাগ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের সার্বিক প্রস্তুতি শেষ করেও তা প্রকাশ করতে পারেনি সেসব নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে গত ২৫ মার্চ পর্যন্ত যাদের বয়স ৩০ পূর্ণ হয়েছে তাদেরও আবেদনের সুযোগ দিতে বলা হয়েছে।

বাংলাদেশে কোভিড-১৯ এর বিস্তার বাড়তে থাকায় গত ২৬ মার্চ থেকে টানা ৬৬ দিন সাধারণ ছুটির মধ্যে কোনো নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেনি সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। তার আগে গত ডিসেম্বর থেকে চাকরিতে নিয়োগের নতুন কোনো বিজ্ঞপ্তি দেয়নি কমিশন।

তবে ৩০ মে সাধারণ ছুটি শেষে জুনের প্রথম সপ্তাহে নন-ক্যাডারে বেশ কয়েকটি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে পিএসসি। সেখানে বয়সের সর্বোচ্চ সীমা ৩০ বছর নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে গত ১ জুন পর্যন্ত।

সরকারি চাকরিতে সর্বোচ্চ ৩০ বছর বয়স পর্যন্ত আবেদন করা যায়। আর মুক্তিযোদ্ধার পুত্র-কন্যা ও নাতি-নাতনীরা সর্বোচ্চ ৩২ বছর বয়স পর্যন্ত আবেদন করতে পারেন।

এখন মহামারীর মধ্যে ৩০ বছর পার হওয়াদের কিছুটা ছাড় দেওয়া হলেও ক্ষতি পোষানোর জন্য তা যথেষ্ট নয় বলে মনে করছেন চাকরি প্রত্যাশীদের অনেকে।

তারা বলছেন, করোনাভাইরাস সংকটের মধ্যে চাকরির বিজ্ঞাপন বন্ধ থাকায় শুধু ৩০ বছরের প্রান্তে যারা ছিলেন তারাই ক্ষতিগ্রস্ত হননি, ক্ষতির মুখে পড়তে হয়েছে সবাইকে। তাই সবার জন্যই চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা ‘কিছুটা হলেও বাড়ানো উচিত’।

এই যুক্তিতে চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়ানোর দাবিতে অনেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরব হয়েছেন।

সূত্রঃ বিডিনিউজ