ভারত সফরে আসছে ইংল্যান্ড, এপ্রিলে শুরু হবে আইপিএল

ক্রীড়া ডেস্কঃ
আইপিএলের এবারের আসরের কারণে শুধুমাত্র টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপই নয়, বাতিল হয়েছে বেশ কিছু টুর্নামেন্ট এবং আন্তর্জাতিক সিরিজ। এর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ এশিয়া কাপ এবং ইংল্যান্ডের ভারত সফর। আইপিএলের কারণে ইংল্যান্ডের ভারত সফর বাতিল করে দিয়েছিল বিসিসিআই। তবে, সেই একই সিরিজ আগামী বছর শুরুতেই আয়োজন করতে চায় ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলিই জানিয়েছেন এ তথ।

শুধু তাই নয়, আগামী বছর আইপিএল কবে হবে সে সময়টাও ঘোষণা করেছেন বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট। জানিয়ে দিয়েছেন, আগামী বছর এপ্রিলে শুরু হবে আইপিএলের ১৪তম আসর এবং সেই টুর্নামেন্টটা অনুষ্ঠিত হবে ভারতের মাটিতেই।

করোনা সংক্রমণের মধ্যেই এবারের আইপিএল খেলতে আরব আমিরাতে পৌঁছে গেছেন ধোনি-রোহিত-কোহলিরা। কোয়ারেন্টাইনে থেকে কোভিড-১৯ টেস্ট এবং এই মহামারি সংক্রান্ত সব অগ্নিপরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে অনুশীলনে নামতে হবে ক্রিকেটারদের।

তবে এরই মধ্যে ভারতে বসে আগামী বছরের আইপিএলের ছক কষতে শুরু করে দিয়েছেন বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গাঙ্গুলি।

তার নিজের ভবিষ্যত ঝুলে রয়েছে সুপ্রিম কোর্টে। কুলিং অফ পিরিয়ডে চলে যেতে হবে, নাকি বিসিসিআইর মসনদে আরও খানিকটা থাকার সময় পাবেন, তা এখনও অজানা। তাই বলে কি আটকে থাকবে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনাও? একেবারেই নয়।

বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট তাই আগামী ১০–১২ মাসের ভারতীয় ক্রিকেটের ছবি অনেকটাই স্পষ্ট করে দিয়েছেন। জানিয়েছেন, নভেম্বরে আইপিএলের ১৩তম মৌসুম শেষ হওয়ার পর ডিসেম্বরে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলতে অস্ট্রেলিয়া পৌঁছে যাবে বিরাট অ্যান্ড কোং। সেখান থেকে দেশে ফিরে ফেব্রুয়ারিতে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নামবে টিম ইন্ডিয়া। এরপরই এপ্রিলে শুরু হবে আইপিএলের ১৪তম আসর।

করোনার কারণে চলতি বছরের অর্ধেকেরও বেশি সময় স্তব্ধ ছিল ক্রিকেট বিশ্ব। ফলে আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়তে হয় বিসিসিআইকে। শোনা যাচ্ছে, সে কারণেই আগামী ক্যালেন্ডার ইয়ারের পুরোটাই ব্যস্ত থাকতে হবে ক্রিকেটারদের। ফেব্রুয়ারিতে ইংল্যান্ডকে দিয়েই করোনা পরবর্তী আন্তর্জাতিক সিরিজ শুরু হবে ভারতে। বিশেষ জোর দেওয়া হবে ঘরোয়া ক্রিকেটেও। ক্রিকেটারদের সুরক্ষার জন্য সমস্ত ব্যবস্থা করেই এগোনো হবে।

সেপ্টেম্বরেই ভারতে আসার কথা ছিল ইংল্যান্ডের। কিন্তু আইপিএল আয়োজন নিশ্চিত হওয়ার পর তা স্থগিত করে দেওয়া হয়। ইংল্যান্ড ও ভারত উভয় বোর্ড যৌথভাবেই সিরিজ স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেয়। তখনই বলা হয়, পরের বছরের শুরুর দিকে অর্থাৎ জানুয়ারি থেকে মার্চের মধ্যেই সিরিজের আয়োজন করা হতে পারে।

সেক্ষেত্রে সীমিত ওভারের পাশাপাশি হবে টেস্ট সিরিজও। এবার জানা গেল, ‘সৌরভ বলেছেন, ফেব্রুয়ারিতেই শুরু হবে সিরিজ।’

সূত্রঃ জাগোনিউজ