সিনহা হত্যায় আসামিদের রিমান্ডে ‘চাঞ্চল্যকর’ তথ্য মিলেছে: র‌্যাব

অনলাইন ডেস্কঃ
টেকনাফে অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান নিহতের মামলায় রিমান্ডে সাত আসামির কাছে ‘চাঞ্চল্যকর’ তথ্য পাওয়ার কথা জানিয়েছে র‌্যাব।

বুধবার রাত সাড়ে ৯টায় র‌্যাব-১৫ কক্সবাজার ব্যাটালিয়ান দপ্তরে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল অশিক বিল্লাহ সাংবাদিকদের একথা বলেন।

এখন এসব তথ্য টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ মামলার গুরুত্বপূর্ণ তিন আসামির দেওয়া তথ্যের সঙ্গে যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

আশিক বলেন, সিনহা নিহত হওয়ার ঘটনায় বোনের দায়ের করা মামলায় প্রথম দফায় রিমান্ডে আনা চার পুলিশ সদস্যসহ সাত আসামির জিজ্ঞাসাবাদের সাত কার্যদিবস শেষ হবে বৃহস্পতিবার। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বৃহস্পতিবারই তাদের আদালতে পাঠানো হবে।

“এসব আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার ব্যাপারে চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে, যা মামলার তদন্তের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ ও অগ্রগতির দিক। বলা যায়, মামলার তদন্তের ক্ষেত্রে ইতিবাচকই,” বলেন এই র‌্যাব কর্মকর্তা।

রিমান্ড শেষ হওয়া এসব আসামিদের পুনরায় রিমান্ড চাওয়া হবে কিনা সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আশিক বিল্লাহ বলেন, “মামলার অন্য আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তদন্তকারী কর্মকর্তা যদি ঘটনার রহস্য উন্মোচনে প্রয়োজন বোধ করেন তাহলে আদালতে আবেদন করে পুনরায় রিমান্ড চাইতে পারেন।”

এদিকে অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা নিহত হওয়ার ঘটনায় পুলিশের করা তিন মামলায় জব্দ করা আলামত ইতিমধ্যেই তদন্তকারী কর্মকর্তার কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে জানিয়ে এই র‌্যাব কর্মকতা বলেন, সিনহার সহকর্মী শিপ্রার বিরুদ্ধে পুলিশের দায়ের করা মামলায় রামু থানায় ডিজি মূলে যে ২৯টি আলামত জব্দ করার কথা উল্লেখ করা হয়েছে সেসব তদন্তের স্বার্থে তদন্ত কর্মকর্তার কাছে হস্তান্তরের জন্য আদালত নির্দেশ দিয়েছে।

“বৃহস্পতিবার জব্দ করা এসব আলামত সংগ্রহের জন্য তদন্ত কর্মকর্তা রামু থানায় যাবেন। আশা করা হচ্ছে, বৃহস্পতিবারই এসব আলামত তদন্ত কর্মকর্তা পেয়ে যাবেন। এসব আলামতের মধ্যে যেগুলো মামলার তদন্তের জন্য প্রয়োজন হবে সেগুলো ছাড়া অন্যসব শিপ্রার কাছে ফেরত দেওয়া হবে।”

এছাড়া শিপ্রা দেবনাথের নামে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কুৎসা রটনার ঘটনায় হাই কোর্টের এক আইনজীবীর করা রিট পিটিশনে আদালতের আদেশ মত বৃহস্পতিবার আইসিটি ট্রাইব্যুন্যালে মামলা করা হতে পারে বলেও প্রেস ব্রিফিংয়ে উল্লেখ করেন র‌্যাবের এ কর্মকর্তা।

গত ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ। এই ঘটনায় পুলিশ তিনটি মামলা করেছে। এছাড়া সিনহার বোন করেছেন একটি।

সূত্র : বিডিনিউজ