ডাবের পানি কি ওজন কমায়?

লাইফস্টাইল ডেস্কঃ
তেষ্টা মেটাতে বিশুদ্ধ খাবার পানির পরেই সবচেয়ে স্বাস্থ্যকর হলো ডাবের পানি। বাইরে গাঢ় সবুজ রঙের শক্ত খোলস, ভেতরে টলমলে স্বচ্ছ পানি। এই পানি শুধু তেষ্টাই মেটায় না, শরীরের অসংখ্য উপকারে লাগে। যারা খেলাধুলা বা শরীরচর্চার মতো পরিশ্রমের কাজ করেন, তাদের ক্ষেত্রেও দ্রুত শক্তি বাড়াতে কাজে লাগে ডাবের পানি।

ডাবের পানিতে ক্যালোরি কম থাকে এবং পটাসিয়াম, ফাইবার এবং প্রোটিন সহ প্রাকৃতিক এনজাইম এবং খনিজ থাকে। যা ডাবের পানিকে ওজন হ্রাসের জন্য উপযুক্ত করে তোলে।

যদিও দিনের যে কোনো সময় ডাবের পানি পান করা ভীষণ উপকারী, তবে সঠিক সময়ে এটি পান করলে উপকার দ্বিগুণ পেতে পারেন।

ডাবের পানিতে বিভিন্ন খনিজ এবং ভিটামিন রয়েছে যা দেহে ইলেক্ট্রোলাইট পুনরায় পূরণ করতে সহায়তা করে। এটি আপনাকে সারা দিন তাজা এবং হাইড্রেটেড রাখে, এমনকি যদি এটি দিনে একবারও খাওয়া হয়।

ওজন কমাতে ডাবের পানি
যদি আপনি এই অতিরিক্ত ওজন ঝরানোর চেষ্টা করেন, তবে অন্যান্য ফলের রস খাওয়ার পরিবর্তে ডাবের পানি পান করুন। কারণ ডাবের পানিতে অন্যান্য ফলের রসের তুলনায় বেশি খনিজ রয়েছে। গবেষণায় দেখা গেছে যে, ফলের রসে চিনি থাকতে পারে। ডাবের পানিতে ক্যালোরি কম থাকে না তবে অন্যান্য ফলের রসের তুলনায় চিনির পরিমাণ কম থাকে।

ডাবের পানি পানের সেরা সময়
অন্যান্য অনেক পানীয়ের মতো, ডাবের পানি পানের কোনো নির্দিষ্ট সময় নেই। কেউ এটি দিনের বেলা এমনকি রাতেও পান করতে পারে। তবে দিনের নির্দিষ্ট সময় এটি গ্রহণ করলে তা আপনাকে আরও বেশি সুবিধা দেবে।

খুব সকালে খালি পেটে ডাবের পানি পান আপনাকে এক নয় বরং অনেক উপায়ে সাহায্য করতে পারে। এতে লরিক অ্যাসিড রয়েছে যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে, বিপাক প্রক্রিয়া সঠিক রাখতে এবং ওজন কমাতে সহায়তা করে।

ডিহাইড্রেশন এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য চিকিৎসকেরা ডাবের পানি পানের পরামর্শ দেন। এটি গর্ভবতী নারীর সকালের অসুস্থতা এবং গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে।

সূত্রঃ জাগোনিউজ