‘নিরাপদ গ্রামীণ সড়ক’ বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা শুরু: গ্রামীণ অর্থনীতির উন্নয়ন ও প্রসারে পরিবহণ ব্যবস্থার পরিধি বাড়ছে

এম.এ আজিজ রাসেল:
স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের (এলজিইডি) প্রধান প্রকৌশলী শ্যাম প্রসাদ অধিকারী বলেছেন, গ্রামীণ অর্থনীতির আরও ব্যাপক উন্নয়ন ও প্রসারের জন্য গ্রামীণ সড়ক পরিবহণ ব্যবস্থার পরিধি বাড়ছে। তাই এই সড়কগুলোকে নিরাপদ ও সুষ্ঠু রক্ষণাবেক্ষণ করার সকলের নৈতিক দায়িত্ব ও কর্তব্য।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ (এলজিইডি) এর গ্রামীণ সড়ক অবকাঠামো প্রকল্প-২ (আরটিআইপি) এর আওতায় নিরাপদ গ্রামীণ সড়ক বিষয়ে ৩ দিনের প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

২৯ জুলাই শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১টায় কক্সবাজার এলজিইডি সম্মেলণ কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। কক্সবাজারে শুরু হওয়া প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধন করেন এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলী শ্যাম প্রসাদ অধিকারী।

এলজিইডি কক্সবাজার নির্বাহী প্রকৌশলী মনজুর আলম সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, এলজিইডি চট্টগ্রাম বিবঅগের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মোঃ ইলিয়াছ মোরশেদ, চট্টগ্রাম অঞ্চলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আশীষ কুমার পাল, আরটিআইপির প্রকল্প পরিচালক মোস্তফা কামাল। প্রশিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন আরটিআইপির জ্যেষ্ঠ সহকারী প্রকৌশলী মোঃ আবদুস সবুর।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান প্রকৌশলী শ্যাম প্রসাদ অধিকারী আরও বলেন, জনগণের স্বতঃস্ফুর্ত সহযোগীতায় এলজিইডি সারাদেশের গ্রামাঞ্চলে ৩ লাখ ২১ হাজার কিলোমিটার সড়ক নির্মাণ করেছে। এই সড়কগুলো দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের বৈপ্লবিক পরিবর্তন এনেছে। গ্রামীণ অর্থনীতির আরও ব্যাপক উন্নয়ন ও প্রসারের জন্য গ্রামীণ সড়ক পরিবহণ ব্যবস্থার পরিধি বাড়ছে। তাই এই সড়কগুলোকে নিরাপদ ও সুষ্ঠু রক্ষণাবেক্ষণ করার সকলের নৈতিক দায়িত্ব ও কর্তব্য।

বর্তমানে ৩ লাখ ২১ হাজার কিলোমিটার সড়কের মধ্যে ১লাখ ৩ হাজার কিলোমিটার সড়ক পাকা করা হয়েছে।

প্রশিক্ষণ কর্মশালায় এলজিইডি কক্সবাজার, বান্দরবান ও চট্টগ্রাম জেলার ৩৫ জন জ্যেষ্ঠ সহকারী প্রকৌশলী,সহকারী প্রকৌশলী ও উপজেলা প্রকৌশলী অংশ নিচ্ছেন।