রামুতে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও প্রবাসীকে ২৮ হাজার টাকা জরিমানা

সোয়েব সাঈদ, রামুঃ
রামুতে পণ্যের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে মূল্য বৃদ্ধি করায় ২টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও কোয়ারেন্টাইন আইন অমান্য করার দায়ে সদ্য প্রবাস ফেরত ব্যক্তিকে ২৮ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণয় চাকমার নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত রবিবার (২২ মার্চ) গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এসব অভিযান চালান।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার রবিবার দুপুরে কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের পশ্চিমপাড়া কলাতলী এলাকায় অভিযান চালিয়ে হোম কোয়ারেন্টাইন অমান্য করায় জাফর আলমের ছেলে সদ্য কাতার ফেরত আবুল মনসুরকে ১২ হাজার টাকা জরিমানা করেন। দুপুরে কাউয়ারখোপ বাজারের হাসান এন্ড ব্রাদার্স এর সত্ত্বাধিকারি আবদুল্লাহকে অতিরিক্ত মূল্যে পন্য বিক্রয়ের অভিযোগে ৬ হাজার টাকা সন্ধ্যায় রামু বাইপাসস্থ মেসার্স আল গফুর স্টোর এর সত্ত্বাধিকারি আবদুল গফুরকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

অভিযানে রামু উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. সরওয়ার উদ্দিন, রামু থানার উপ-পরিদর্শক অশোক এবং সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত রামু চৌমুহনী স্টেশনে যানবাহন চালক-শ্রমিক ও পথচারিদের হাতে এবং যানবাহনে হ্যান্ড স্যানিটাইজার স্প্রে করেন।

এছাড়া রবিবার সকাল থেকে রাত পর্যন্ত রামুর বিভিন্ন সড়ক ও হাট-বাজারে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সন্ধ্যার পর থেকে অপ্রয়োজনীয় দোকানপাট বন্ধ রাখা, গণজমায়েত না করা, বিদেশ ফেরত ব্যক্তিদের হোম কোযারেন্টাইনে থাকা এবং কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে দৃব্যমূল্য বৃদ্ধি না করার জন্য উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করে প্রচারনা চালানো হয়।

রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রণয় চাকমা জানান, সদ্য যারা প্রবাস থেকে দেশে এসেছেন তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা গ্রহণ এবং ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। এ আইন অমান্যকারিদের বিরুদ্ধে অভিযান চলছে। দেশ ও জনকল্যাণে সবাইকে এ আদেশ মেনে চলতে হবে। এছাড়া করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সকল প্রকার গণজমায়েত বন্ধ, পণ্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রশাসনের নজরদারি রয়েছে।