বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে শেখ হাসিনা

এ. বি. তাজুল ইসলামঃ
শতাব্দীর ক্ষণজন্মা সংশপ্তক, অকুতোভয় সিংহপুরুষ, বাংলাদেশ জাতি-রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি দেশবাসীর প্রাণঢালা শ্রদ্ধা নিবেদনে উদযাপিত হতে যাচ্ছে ‘মুজিববর্ষ’। জাতির জীবনে এ এক পরম মাহেন্দ্রক্ষণ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে শিক্ষা আন্দোলন, ঐতিহাসিক ছয় দফা আন্দোলন, সামরিক শাসনবিরোধী আন্দোলন, সর্বোপরি সত্তরের নির্বাচনে বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা হিসেবে আবির্ভূত হন।

আজ থেকে শতবর্ষ আগে গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ পুণ্য দিবসে মায়ের কোল আলো করে খোকা নামের যে শিশুটি এ ধরণীতে এসেছিল, ক্রমান্বয়ে তিনি হয়ে উঠেছিলেন সমগ্র বাংলার নয়নমণি, কালক্রমে এশিয়া, আফ্রিকা ও লাতিন আমেরিকার নিপীড়িত-নির্যাতিত জনতার প্রতিভূ এবং মুক্তিসংগ্রামের অপ্রতিরোধ্য নেতা। মহাকালের ইতিহাসে চির অক্ষয় সেই স্বর্ণোজ্জ্বল শেখ মুজিবের নাম আজ কেবল বাংলার ঘরে ঘরেই নয়, সমগ্র বিশ্বে সসম্মানে উচ্চারিত। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীতে মনে পড়ে কবিগুরুর সেই অবিস্মরণীয় পঙ্‌ক্তিমালা- ‘ওই মহামানব আসে; দিকে দিকে রোমাঞ্চ লাগে, মর্ত্যধূলির ঘাসে ঘাসে।’

বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্যকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুজিববর্ষ উদযাপনের তাৎপর্য ব্যাখ্যা করে বলেছেন, এর মাধ্যমে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বঙ্গবন্ধুর কর্মময় জীবনের নানা দিক আরও ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে দেওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হবে। এর ফলে বিশ্ববাসী নতুন করে বঙ্গবন্ধুর আত্মত্যাগ ও বর্ণাঢ্য কর্মময় জীবন সম্পর্কে জানতে পারবে। দ্বিবার্ষিক অ্যানিভার্সারি প্রোগ্রামের আওতায় ইউনেস্কো কোনো বিশেষ ঘটনার বা বিশিষ্ট ব্যক্তির জন্মের ৫০তম বা তদূর্ধ্ব অর্থাৎ ৭৫তম বা ১০০তম বা ১৫০তম বার্ষিকী উদযাপন করে থাকে। এই প্রোগ্রামের আওতায় ২০২০-২১ সালের অন্যতম অনুষ্ঠান জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুকে একজন রাজনৈতিক নেতা হিসেবে নয়, বরং সাধারণ মানুষের অধিকার আদায়ের প্রতীক হিসেবে এই সিদ্ধান্ত গ্রহণে ইউনেস্কো উদ্যোগী হয়। ইউনেস্কোর ম্যান্ডেটভুক্ত বিভিন্ন বিষয়ে বঙ্গবন্ধুর অনন্যসাধারণ অবদান এ সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে বিশেষভাবে বিবেচনা করা হয়েছে; বিশেষ করে স্কুলজীবন থেকে শিক্ষার্থীদের অধিকার নিয়ে বঙ্গবন্ধুর সচেতনতা ও পরবর্তী সময়ে শিক্ষা বিস্তারে বিভিন্ন কার্যক্রম, বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রক্ষা ও সংস্কৃতি বিকাশে গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ, দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নের লক্ষ্যে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিনির্ভর পরিকল্পনা এবং সর্বোপরি ভাষার অধিকারসহ বাঙালির সব অধিকার আদায়ে বঙ্গবন্ধুর অবিচল সংগ্রাম ও ত্যাগের বিষয়গুলো ইউনেস্কো বিশেষভাবে বিবেচনা করেছে।

বাংলাদেশে মধ্যযুগ থেকে স্বাধীনতার চেতনা দেখা দিয়েছিল। তবে তা সংহত রূপ লাভ করে বঙ্গবন্ধুর ত্যাগ, তিতিক্ষা ও অবিচল সংগ্রামের ফলশ্রুতিতে। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আমরা যুদ্ধ করে স্বাধীনতার সূর্য এনেছি। বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবনের বিভিন্ন দিকের বিশ্নেষণ করলেই তা সুস্পষ্টরূপে প্রতিভাত হয়।

বাংলাদেশের সংবিধানের উপক্রমণিকায় বলা হয়েছে, “অসহযোগ আন্দোলন চলাকালে ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ তারিখে বাঙালী জাতির অবিসংবাদিত নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঢাকায় রেসকোর্স ময়দানে বাংলার ইতিহাসে সর্ববৃহৎ জনসভায় এক রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট বর্ণনা করিয়া স্বাধীনতা সংগ্রামের জন্য প্রস্তুত হইবার ডাক দেন এবং ঘোষণা করেন, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’।” বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গ করে শামসুর রাহমান ‘ধন্য সেই পুরুষ’ কবিতায় লিখেছেন- ‘ধন্য সেই পুরুষ, যাঁর নামের ওপর পতাকার মতো/ দুলতে থাকে স্বাধীনতা,/ ধন্য সেই পুরুষ, যাঁর নামের ওপর ঝরে/ মুক্তিযোদ্ধাদের জয়ধ্বনি।’

মানব সভ্যতার ইতিহাসে বিশ্বের যে তিন জননেতার ভাষণ অমর হয়ে আছে, তাদের একজন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১৮ মিনিট স্থায়ী ১৯৭১ সালের ৭ মার্চে স্বাধীনতার উদাত্ত আহ্বানের সেই অনলবর্ষী ভাষণ ‘ওয়ার্ল্ডস ডকুমেন্টারি হেরিটেজ’ হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ায় বাংলাদেশ ও বাঙালি জাতির গৌরব বহির্বিশ্বে বিপুলভাবে বেড়েছে।

বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশও আজ ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’ নয়। আজ ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট’ আবর্তিত হচ্ছে পৃথিবীর কক্ষপথ ঘিরে। দেশের নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত হচ্ছে পদ্মা সেতুর মতো বৃহৎ কর্মযজ্ঞ। বাস্তবায়িত হচ্ছে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রসহ অন্তত ১০টি মেগা প্রকল্প। এসবই মাত্র কয়েক বছরে সম্ভব হয়েছে বঙ্গবন্ধুকন্যা বর্তমান সরকারপ্রধান শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে। বাংলাদেশের স্বল্পোন্নত দেশ (এলডিসি) থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ ঘটেছে। বাংলাদেশ ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হওয়ার লক্ষ্য নির্ধারণ করে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

‘যুদ্ধবিধ্বস্ত’ দেশ থেকে আজকের এই উত্তরণ- যেখানে রয়েছে এক বন্ধুর পথ পাড়ি দেওয়ার ইতিহাস। এটি সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশের সাহসী এবং অগ্রগতিশীল উন্নয়ন কৌশল গ্রহণের ফলে, যা সামগ্রিক অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, কাঠামোগত রূপান্তর ও উল্লেখযোগ্য সামাজিক অগ্রগতির মাধ্যমে বাংলাদেশকে দ্রুত উন্নয়নের পথে নিয়ে এসেছে।

জাতির পিতা সমগ্র জাতিকে স্বাধীনতার জন্য একতাবদ্ধ করেছিলেন। আর তারই কন্যার নেতৃত্বে যুদ্ধবিধ্বস্ত একটি দেশ জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলায় পরিণত হতে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে সম্ভব হয়েছে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা, এমডিজি অর্জন, এসডিজি বাস্তবায়নসহ শিক্ষা, স্বাস্থ্য, লিঙ্গ সমতা, কৃষি, দারিদ্র্যসীমা হ্রাস, গড় আয়ু বৃদ্ধি, রপ্তানিমুখী শিল্পায়ন, ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল, পোশাক শিল্প, ওষুধ শিল্প, রপ্তানি আয় বৃদ্ধিসহ নানা অর্থনৈতিক সূচকে উন্নতি। ক্ষুদ্র আয়তনের একটি উন্নয়নশীল দেশ হয়েও বাংলাদেশ ইতোমধ্যে সারাবিশ্বের কাছে প্রাকৃতিক দুর্যোগের নিবিড় সমন্বিত ব্যবস্থাপনা, ক্ষুদ্রঋণের ব্যবহার এবং দারিদ্র্য দূরীকরণে তার ভূমিকা, জনবহুল দেশে নির্বাচন পরিচালনায় স্বচ্ছ ও সুষ্ঠুতা আনয়ন, বৃক্ষরোপণ, সামাজিক ও অর্থনৈতিক সূচকের ইতিবাচক পরিবর্তন প্রভৃতি ক্ষেত্রে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হয়ে দাঁড়িয়েছে।

৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে জন্ম নেওয়া এই বাংলাদেশকে আজকের অবস্থানে আসতে অতিক্রম করতে হয়েছে হাজারো প্রতিবন্ধকতা। যুদ্ধবিধ্বস্ত, প্রায় সর্বক্ষেত্রে অবকাঠামোবিহীন সেদিনের সেই সদ্যোজাত জাতির ৪৩ বছরের অর্জনের পরিসংখ্যানও নিতান্ত অপ্রতুল নয়। সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার ৮টি লক্ষ্যের মধ্যে শিক্ষা, শিশুমৃত্যুহার কমানো এবং দারিদ্র্য হ্রাসকরণের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য উন্নতি প্রদর্শন করতে সক্ষম হয়েছে। নোবেল বিজয়ী ভারতীয় অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেনের করা মন্তব্য এ ক্ষেত্রে প্রণিধানযোগ্য। তাঁর মতে, কিছু কিছু ক্ষেত্রে বিশ্বকে চমকে দেওয়ার মতো সাফল্য আছে বাংলাদেশের। বিশেষত শিক্ষা সুবিধা, নারীর ক্ষমতায়ন, মাতৃ ও শিশুমৃত্যুহার ও জন্মহার কমানো, গরিব মানুষের জন্য শৌচাগার ও স্বাস্থ্য সুবিধা প্রদান এবং শিশুদের টিকাদান কার্যক্রম অন্যতম।

বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ পড়লে ব্যক্তি মুজিবের মানবিক মূল্যবোধ, নৈতিকতা ও গভীর জীবনবোধের সম্যক পরিচয় পাওয়া যায়! দার্শনিক কবি ডক্টর ইকবালের প্রতি তাঁর শ্রদ্ধাবোধ নিল্ফেম্নাক্ত বাক্যগুলোতে পাওয়া যায় :’লাহোর রওয়ানা করলাম। খাজা আব্দুর রহিম পূর্বে আই-সি-এস ছিলেন, খুবই ভদ্রলোক। আমাকে তার কাছে রাখলেন, ‘জাভেদ মঞ্জিলে’। ‘জাভেদ মঞ্জিল’ কবি আল্লামা ইকবালের বাড়ি। কবি এখানে বসেই পাকিস্তানের স্বপ্ন দেখেছিলেন। আল্লামা শুধু কবি ছিলেন না, একজন দার্শনিকও ছিলেন। আমি প্রথমে তার মাজার জিয়ারত করতে গেলাম এবং নিজেকে ধন্য মনে করলাম। আল্লামা যেখানে বসে সাধনা করেছেন সেখানে থাকার সুযোগ পেয়েছি।’

বঙ্গবন্ধু ‘জুলিও কুরি’ উপাধি গ্রহণ করতে গিয়ে বলেছিলেন- ‘বিশ্ব আজ দুই ভাগে বিভক্ত। শোষক আর শোষিত, আমি শোষিতের পক্ষে।’ এর মানে বঙ্গবন্ধু পুরো পৃথিবীর খোঁজখবর রেখেই বলেছিলেন পৃথিবীটা আজ দুই ভাগে বিভক্ত (শোষক আর শোষিত)। এই অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে তিনি নিজেকে শোষিতের পাশে দাঁড় করিয়েছেন। অর্থাৎ তিনি বাংলার মানুষ হয়েও বিশ্বমানব হয়ে উঠতে পেরেছিলেন !

সুখের বিষয়, জাতির পিতা একবার নবীনগর উপজেলার কৃষ্ণনগরে এসেছিলেন। তিনি লিখেছেন- “ব্রাহ্মণবাড়িয়া মহকুমার নবীনগর থানার কৃষ্ণনগরের জনাব রফিকুল হোসেন এক সভার আয়োজন করেন। কৃষ্ণনগর হাইস্কুলের দ্বারোদ্ঘাটন করার জন্য। সেখানে বিখ্যাত গায়ক আব্বাসউদ্দিন আহম্মদ, সোহরাব হোসেন ও বেদারউদ্দিন আহম্মদ গান গাইবেন। আমাকেও নিমন্ত্রণ করা হয়েছিল। বাংলার গ্রামে গ্রামে আব্বাসউদ্দিন সাহেব জনপ্রিয় ছিলেন। জনসাধারণ তার গান শুনবার জন্য পাগল হয়ে যেত। তার গান ছিল বাংলার জনগণের প্রাণের গান। বাংলার মাটির সাথে ছিল তার নাড়ির সম্বন্ধ। আব্বাসউদ্দিন সাহেব, সোহরাব হোসেন ও বেদারউদ্দিন সাহেব গান গাইলেন। অধিক রাত পর্যন্ত আসর চলল। পরের দিন নৌকায় আমরা রওয়ানা করলাম। পথে গান চলল। নদীতে বসে আব্বাসউদ্দিন সাহেবের ভাটিয়ালি গান তার নিজের গলায় না শুনলে জীবনের একটা দিক অপূর্ণ থেকে যেত। তিনি যখন আস্তে আস্তে গাইতেছিলেন তখন মনে হচ্ছিল, নদীর ঢেউগুলিও যেন তার গান শুনছে। আমি আব্বাসউদ্দিন সাহেবের একজন ভক্ত হয়ে পড়েছিলাম। তিনি আমাকে বলেছিলেন, ‘মুজিব, বাংলা ভাষার বিরুদ্ধে বিরাট ষড়যন্ত্র চলছে। বাংলা রাষ্ট্রভাষা না হলে বাংলার কৃষ্টি, সভ্যতা সব শেষ হয়ে যাবে। আজ যে গানকে তুমি ভালবাস, এর মাধুর্য ও মর্যাদাও নষ্ট হয়ে যাবে। যা কিছু হোক, বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করতেই হবে।’ আমি কথা দিয়েছিলাম এবং কথা রাখতে চেষ্টা করেছিলাম।”

জাতির পিতার আন্তরিক চেষ্টা যথার্থই ফলপ্রসূ হয়েছিল ১৯৫৬ সালে। দেশবাসীকে প্রদত্ত সব প্রতিশ্রুতি তিনি রেখেছেন।

আর একাত্তরে জাতির অবিসংবাদিত মহান নেতা বঙ্গবন্ধু ঐতিহাসিক ৭ মার্চে লাখ লাখ মুক্তিকামী মানুষের উপস্থিতিতে বজ্রকণ্ঠে ঘোষণা করেন, ‘রক্ত যখন দিয়েছি রক্ত আরো দেব, এদেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়বো ইনশাআল্লাহ। এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’ জাতির পিতার গভীর প্রত্যয়দীপ্ত সেই আকাঙ্ক্ষার ফলশ্রুতি আমাদের এই স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। আমরা রাজনৈতিক স্বাধীনতা পেয়েছি বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে; অর্থনৈতিক মুক্তি আসছে তারই কন্যা শেখ হাসিনার হাত ধরে।

সংসদ সদস্য, সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত ক্যাপ্টেন

সূত্রঃ সমকাল