ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল কেম্পেইনঃ রামুতে ৫৯৩৫০ জন শিশুকে খাওয়ানো হবে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল

প্রজ্ঞানন্দ ভিক্ষুঃ
আগামীকাল ১১ জানুয়ারি একযোগে সারা দেশব্যাপী ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানোর কর্মসূচী শুরু হচ্ছে। প্রতিবারের ধারাবাহিকতায় এবারও সরকার আগামীকালের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল কেম্পেইন সফল করতে নানান উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

এ কর্মসূচীর আওতায় ৬ মাস থেকে ১২ মাস বয়সী শিশুরা ১টি করে নীল রঙের এবং ১২ মাস থেকে ৫৯ মাস বয়সী শিশুরা ১টি করে লাল রঙের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল পাবে।

এদিকে সারাদেশের মত কক্সবাজারের রামু উপজেলাতেও ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল কেম্পেইন বাস্তবায়নে পুরোদমে প্রস্তুতি নিয়েছে রামু উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।

 

আগামীকালের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল কেম্পেইন বাস্তবায়নের লক্ষে দফায় দফায় আলোচনা সভা সম্পন্ন করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।
রামু উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এবার রামু উপজেলার এগার ইউনিয়ন জুড়ে মোট ৫৯,৩৫০জন শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে।

এ সংক্রান্ত একটি বিস্তারিত তথ্য আমাদের রামু ডটকম এর হাতে এসেছে।

১১ জানুয়ারী জাতীয় ভিটামিন-এ প্লাস ক্যাম্পেইন বাস্তবায়ন করার লক্ষে রামু উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের উদ্যোগে গত ৭ জানুয়ারি অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
৬ মাস থেকে ১২মাস বয়সী শিশুদের তথ্যঃ

ঈদগড় ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ১৪১ জন, ২নং ওয়ার্ডে ২০৯ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ২৪৮ জন। গর্জনিয়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ২৩৪ জন, ২নং ওয়ার্ডে ১৯১ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ১৩৪ জন। কচ্ছপিয়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ২৫১ জন, ২নং ওয়ার্ডে ২৮৮ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ২২৫ জন। কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ১৬৮ জন, ২নং ওয়ার্ডে ২৭৭ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ৪৭৭ জন। ফতেঁখারকুল ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ৩২০ জন, ২নং ওয়ার্ডে ২৪৮ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ৩০৬ জন। জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ২২৪ জন, ২নং ওয়ার্ডে ১৮৩ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ১৫৫ জন। রাজারকুল ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ১১৫ জন, ২নং ওয়ার্ডে ২৯০ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ২৩০ জন। দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ৩৭২ জন, ২নং ওয়ার্ডে ১৮৭ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ২৬৮ জন। খুনিয়াপালং ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ৫৭৩ জন, ২নং ওয়ার্ডে ২৫০ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ১৯৩ জন। চাকমারকুল ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ১৩১ জন, ২নং ওয়ার্ডে ২৪৩ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ১৭৯ জন। রশিদনগর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ১০০ জন, ২নং ওয়ার্ডে ১৮২ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ২০৬ জন সহ মোট ৭৮৩১ স্বাভাবিক শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল কেম্পেইনের আওতায় আনা হবে। এসকল শিশুরা প্রত্যেকে নীল রঙের একটি করে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল পাবে। এছাড়াও ঈদগড় ইউনিয়নে ১ জন, গর্জনিয়া ইউনিয়নে ২ জন, জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নে ৪ জন, রাজারকুল ইউনিয়নে ১ জন, দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নে ৫ জন, খুনিয়াপালং ইউনিয়নে ১ জন, চাকমারকুল ইউনিয়নে ৩ জন, রশিদনগর ইউনিয়নে ২ জন সহ মোট ১৯ জন প্রতিবন্ধী শিশু রয়েছে।

অবহিতকরণ সভায় প্রস্তুতি সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরছেন রামু উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ নোবেল বড়ুয়া।
১২ মাস থেকে ৫৯ মাস বয়সী শিশুদের তথ্যঃ

ঈদগড় ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ১৪৩৯ জন, ২নং ওয়ার্ডে ১৩৯১ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ১৪১০ জন। গর্জনিয়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ১৮২৬ জন, ২নং ওয়ার্ডে ১১৪০ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ৯০০ জন। কচ্ছপিয়া ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ১৭২৬ জন, ২নং ওয়ার্ডে ২১৯৮ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ১৩৬৫ জন। কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ১১৩৬ জন, ২নং ওয়ার্ডে ১৭০০ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ২৬৬২ জন। ফতেঁখারকুল ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ১৯৪৯ জন, ২নং ওয়ার্ডে ১২৭৬ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ১৭১৮ জন। জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ১৮১৯ জন, ২নং ওয়ার্ডে ১৮৮৫ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ১২৯১ জন। রাজারকুল ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ৯১৫ জন, ২নং ওয়ার্ডে ১৪২৫ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ১৫৫৯জন। দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ১৯১১ জন, ২নং ওয়ার্ডে ১৬৪৪ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ১৯০০ জন। খুনিয়াপালং ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ২৮৯০ জন, ২নং ওয়ার্ডে ২২১০ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ১৬৬৭ জন। চাকমারকুল ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ৯৫৩ জন, ২নং ওয়ার্ডে ১১৬০ জন, ৩নং ওয়ার্ডে ৯৭৫ জন। রশিদনগর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ৮৭৫ জন, ২নং ওয়ার্ডে ১১৮১জন, ৩নং ওয়ার্ডে ১৩৬৬ জন সহ মোট ৫১,৪৫৯ স্বাভাবিক শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল কেম্পেইনের আওতায় আনা হবে। এসকল শিশুরা প্রত্যেকে লাল রঙের একটি করে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল পাবে।

                             অবহিতকরণ সভায় বক্তব্য রাখেন রামু উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সোহেল সরওয়ার কাজল।

এছাড়াও ঈদগড় ইউনিয়নে ৩ জন, গর্জনিয়া ইউনিয়নে ৩ জন, কচ্ছপিয়া ইউনিয়নে ৪ জন, কাউয়ারখোপ ইউনিয়েনে ৭ জন, জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নে ৯ জন, রাজারকুল ইউনিয়নে ১ জন, দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নে ৯ জন, খুনিয়াপালং ইউনিয়নে ৫ জন সহ মোট ৪১ জন প্রতিবন্ধী শিশুকেও একটি করে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে।

                                 অবহিতকরণ সভায় বক্তব্য রাখেন রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রনয় চাকমা।

এ বিষয়ে রামু উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ নোবেল বড়ুয়া আমাদের রামু ডটকম কে জানান, আগামীকালের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল কেম্পেইন বাস্তবায়নের লক্ষে ইতিমধ্যে সকল ধরণের প্রস্তুতি আমরা সম্পন্ন করেছি। এবারে রামু উপজেলার মোট এগার ইউনিয়নে ওয়ার্ড ভিত্তিক টার্গেট করে মোট ৫৯, ৩৫০ জন শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল কেম্পেইনের আওতায় আনার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছি। এক্ষেত্রে আমাদের আন্তরিকতা এবং চেষ্টার কোনো ঘাটতি থাকবেনা।

 অবহিতকরণ সভায় স্থানীয় সাংবাদিকসহ বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি সংস্থার প্রতিনিধি এবং ধর্মীয় গুরবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

জানা গেছে, আগামীকাল ১১ জানুয়ারি সকাল আটটা নাগাদ রামু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স প্রাঙ্গনে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল কেম্পেইনের শুভ উদ্বোধন করা হবে। এতে কক্সবাজারের সিভিল সার্জনও উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে। এর পরপর সিভিল সার্জন এবং রামু উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ নোবেল বড়ুয়া বিভিন্ন কেন্দ্র পরিদর্শন করবেন।

১১ জানুয়ারী জাতীয় ভিটামিন-এ প্লাস ক্যাম্পেইন বাস্তবায়ন করার লক্ষে উপজেলার বিভিন্ন কেন্দ্রের প্রস্তুতি পরিদর্শন করছেন রামু উপজেলার প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ নোবেল বড়ুয়া।

উল্লেখ্য, ভিটামিন ‘এ’ অপুষ্টিজনিত অন্ধত্ব থেকে শিশুদের রক্ষা করে, শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে, ডায়রিয়ার ব্যাপ্তিকাল ও জটিলতা কমায়, এবং শিশুর মৃত্যু ঝুঁকি কমায়।

১১ জানুয়ারী জাতীয় ভিটামিন-এ প্লাস ক্যাম্পেইন বাস্তবায়ন করার লক্ষে উপজেলার বিভিন্ন কেন্দ্রের প্রস্তুতি পরিদর্শন করছেন রামু উপজেলার প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ নোবেল বড়ুয়া।

বাংলাদেশে ভিটামিন ‘এ’ এর অভাবজনিত সমস্যা প্রতিরোধে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে জাতীয় পুষ্টি, সেবা, জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠান বছরে দুইবার জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস কেম্পেইন করে থাকে।

ভিটামিন-এ প্লাস ক্যাম্পেইন বাস্তবায়ন করার লক্ষে গত ৬ জানুয়ারি রামু উপজেলার প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ নোবেল বড়ুয়া সংশ্লিষ্টদের নিয়ে রিফ্রেসার মিটিং করেন।

২০১৯ সালের কেম্পেইনের দ্বিতীয় রাউন্ড হিসেবে আগামীকাল ১১ জানুয়ারি ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল কেম্পেইন কর্মসূচী পালন করা হবে।