খালেদার জামিন পাওয়ার ‘সুযোগ আছে’: কামাল হোসেন

অনলাইন ডেস্কঃ
উচ্চ আদালতে খালেদা জিয়ার জামিন পাওয়ার সুযোগ আছে বলে মন্তব্য করেছেন গণফোরাম সভাপতি কামাল হোসেন।

মঙ্গলবার জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নে এ বিষয়ে কথা বলেন জোটের এই শীর্ষ নেতা।

জিয়া দাতব্য ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় দণ্ডিত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের ওপর শুনানি চলছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে। সেখানে তার জামিন পাওয়ার সুযোগ আছে কি না- সেই প্রশ্ন আইনজীবী কামাল হোসেনের সামনে রেখেছিলেন একজন সাংবাদিক।

উত্তরে তিনি বলেন, “সুযোগ অবশ্যই আছে। আমি বলছি, সুযোগ অবশ্যই আছে। এর থেকে পরিষ্কার করে কী বলব!”

দুর্নীতির দুই মামলায় দেড় বছরের বেশি সময় ধরে কারাবন্দি খালেদা জিয়ার জামিন সরকার ‘আটকে রেখেছে’ বলে অভিযোগ করে আসছেন বিএনপি নেতারা। অন্যদিকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতারা বলে আসছেন, জামিনের বিষয়টি পুরোপুরি আদালতের এখতিয়ার, এক্ষেত্রে সরকারের কিছু করার নেই।

অপরাধের গুরুত্ব, সংশ্লিষ্ট আইনের সর্বোচ্চ সাজা এবং বিচারিক আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে খালেদাসহ অন্য আসামিদের করা আপিল শুনানির জন্য প্রস্তুত- এ তিন বিবেচনায় হাই কোর্টের একটি বেঞ্চ গত ৩১ জুলাই খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন খারিজ করে দেয়। এরপর তার আইনজীবীরা আপিল বিভাগে যান।

এ বিষয়ে এক প্রশ্নে কামাল হোসেন বলেন, “খালেদা জিয়া মানবিক কারণে জামিন পাওয়ার যোগ্য। আজকের সভার সিদ্ধান্তে সেটা স্পষ্ট করে বলা হয়েছে।”

ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকের সিদ্ধান্ত জানিয়ে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, “কারাবন্দি বেগম খালেদা জিয়ার সর্বশেষ শারীরিক অবস্থা নিয়ে আজকের সভায় আলোচনা হয় এবং উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। আমরা জানি যে, তাকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে দীর্ঘ ৬৬৪দিন কারাগারে বন্দি করে রাখা হয়েছে। যে মামলায় বেগম খালেদা জিয়াকে সাজা দেয়া হয়েছে তা উদ্দেশ্যপ্র্রণোদিত।”

বিশেষ করে, শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় খালেদা জিয়ার আশু মুক্তি দাবি করে মান্না বলেন, “আজকের সভায় আমাদের প্রধান দাবি এটাই। আমরা মনে করি, এই দাবি মানবিক এবং তিনি জামিন পাওয়ার অধিকার রাখেন।”

খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেওয়া না হলে এবং সে কারণে কোনো ‘পরিস্থিতির উদ্ভব’ হলে তার দায় সরকারকেই নিতে হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন ঐক্যফ্রন্টের এই শরিক নেতা।

ঐক্যফ্রন্টের নেতারা খালেদা জিয়া সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য যে অনুমতি চেয়েছিলেন, সে বিষয়ে কোনো অগ্রগতি হয়েছে কি না জানতে চাইলে জেএসডি সভাপতি আসম আবদুর রব বলেন, “আমরা গত ২২ তারিখে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে দেখা করেছিলাম। উনি অত্যন্ত সরল মনে আমাদেরকে বললেন, ‘উনার (খালেদা জিয়া) আত্মীয়-স্বজনসহ পরিবারের সবাই দেখা করছেন, আপনারা কেন পারবেন না! অবশ্যই দেখা করতে পারবেন।’

“তার অর্থ, নীতিগতভাবে উনি আমাদেরকে দেখা করার অনুমতি দিয়ে দিয়েছেন। বললেন যে, শুধু আইজি প্রিজনসের কাছে আমি দায়িত্বটা দিচ্ছি, যাতে অফিসিয়াল ফরমালিটিজটা মেনটেইন করা হয়। এই পর্যন্ত আইজি প্রিজনস সাহেব…। আমি বহুবার ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে প্রতিনিধি পাঠিয়েছি, তারা আমাদেরকে সদুত্তর দিতে পারেন নাই। তার অর্থ বুঝতে পারছি, তারা আমাদেরকে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করার সুযোগ দিচ্ছেন না।”

মতিঝিলে কামাল হোসেনের চেম্বারে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে এ বৈঠকে অন্যদের মধ্যে বিএনপির আবদুল মঈন খান, গণফোরামের অধ্যাপক আবু সাইয়িদ, সুব্রত চৌধুরী, বিকল্পধারার নুরুল আমিন ব্যাপারী, জেএসডির মো. সিরাজ মিয়া ও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের জাফরুল্লাহ চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

সূত্রঃ বিডিনিউজ