মহেশখালীতে বন্দুকযুদ্ধে ডাকাত সর্দার নিহত, অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার

এ.এম হোবাইব সজীব, মহেশখালী থেকে ফিরে:
কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলার কালারমারছড়া দুই ডাকাত দলের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধে এক ডাকাত নিহত ও অস্ত্র গুলি উদ্ধার করা হয়েছে। কালারমারছড়া মাঝের পাড়া পাহাড়ী এলাকায় স্থানীয় বিবাদমান দুই ডাকাতদল ফরিদুল আলম ও শেখু গ্রুপের মধ্যে বন্দুক যুদ্ধের ঘটনা ঘটে। নিহত ফরিদুল আলম (৪০), কালারমারছড়া মাঝের পাড়া গ্রামের বদিউল আলমের ছেলে। রোববার দিবাগত রাত সাড়ে ৪ টার দিকে মাঝের পাড়া পাহাড়ী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

কালারমারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির আইসি (এসআই) বোরহান আমাদের রামু ডটকমকে জানান, একই এলাকার শেখুও ফরিদ ডাকাত ডাকাতি করা আনা মালামাল ভাগভোটোয়ারা নিয়ে দ্ধন্ধ সৃষ্টি হয়ে দুই পক্ষের মধ্যে তুমূল বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রবিবার দিবাগত রাত ৪ টার দিকে কালারমারছড়া মাঝের পাড়া পাহাড়ী এলাকায় অভিযান চালায়। এ সময় ডাকাতরা সংঘবদ্ধ হয়ে পুলিশের ওপর আক্রমণ করে ও পরপর কয়েকটি গুলি বর্ষণ করে। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলিবর্ষণ করে। এসময় ডাকাত দল পিছু হটে। গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ফরিদকে জীবিত উদ্ধার করে পুলিশ।

বন্দুকযুদ্ধের সময় দুই পুলিশ সদস্য আহত হন। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে ১টি একনলা বন্দুক ও দুই রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। অভিযানের নেতৃত্ব দেন কালারমারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির আইসি বোরহান ও সঙ্গীয় পুলিশ সদস্য। গুলিবিদ্ধ ফরিদকে পুলিশ প্রহরায় মহেশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করা হলে তাকে পরে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। লাশ কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

মহেশখালী থানার ওসি বাবুল চন্দ্র বণিক আমাদের রামু ডটকমকে বলেন, নিহত ডাকাতের বিরুদ্ধে ডাকাতি, ছিনতাই, অস্ত্রসহ দুই ডজন মামলা রয়েছে। তার বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে।