‘জনসচেতনতা সৃষ্টি হলে পরিবেশ সুরক্ষা হবে’

অনলাইন ডেস্কঃ
পরিবেশ সুরক্ষায় কেবল আইনের প্রয়োগ ও সরকারি পদক্ষেপ বা সরকারের একার পক্ষে এটি করা সম্ভব নয়। এ জন্য প্রয়োজন জনসচেতনতা সৃষ্টি। দেশের মানুষ সচেতন এবং সবাই মিলে চেষ্টা করলে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য পরিবেশ সুরক্ষিত হবে। দেশও রক্ষা করা যাবে।

শনিবার (১ জুন) রাজধানীর তোপখানা রোডের সিরডাপ মিলনায়তনে ‘বায়ু দূষণ : আমাদের করণীয় ও পদক্ষেপ’ শীর্ষক সেমিনারে বক্তারা এ কথা বলেন। ৫ জুন বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক উপ-কমিটি এ সেমিনারের আয়োজন করে।

সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশবিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. আফতাব আলী শেখ।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী পরিবেশ সুরক্ষায় আওয়ামী লীগ ও সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরে বলেন, পৃথিবী যতদিন আছে, আওয়ামী লীগও ততদিন থাকবে। দেশের সবচেয়ে বড় এ দলটি দেশ ও পরিবেশ রক্ষার কর্মসূচি অব্যাহত রাখবে।

সাবেক এ কৃষিমন্ত্রী বলেন, রাজধানী ঢাকা এক দিনে নষ্ট হয়নি। বিভিন্ন সময় সামরিক সরকারগুলো নানা অজুহাত ও ভুল পদক্ষেপে এর পরিবেশ ধ্বংস করেছে।

নগর পরিকল্পনা ও পরিবেশবিদ অধ্যাপক ড. নজরুল ইসলাম বলেন, দেশে পরিবেশ দূষণ রোধ ও সুরক্ষায় আইন-কানুন এবং পরিবেশ আদালত রয়েছে। সরকারি নানা পদক্ষেপও রয়েছে। সাংবিধানিকভাবেও পরিবেশ সুরক্ষার কথা বলা আছে। কোনো উন্নয়নশীল দেশ তো বটেই অনেক উন্নত দেশও পরিবেশ রক্ষায় এতো গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নেয় না। এখন এসব পদক্ষেপ সফল করতে জনগণকেও সচেতনভাবে এগিয়ে আসা দরকার।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত বলেন, পরিবেশ রক্ষায় কেবল আইন-কানুনই যথেষ্ট নয়। মানুষকে সচেতন ও তাদের উদ্বুদ্ধ করা না গেলে সরকারের একার পক্ষে পরিবেশ দূষণ রোধ সম্ভব নয়।

সভাপতির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এবং বন ও পরিবেশ বিষয়ক উপ-কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. খন্দকার বজলুল হক বলেন, আওয়ামী লীগ দেশকে স্বাধীন করেছে। দেশ ও মানুষের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও অগ্রগতি এনে দিয়েছে। কেবল এ দলটিই দেশ ও পরিবেশ সুরক্ষায় ভূমিকা রাখতে পারবে।

সেমিনারে আরও বক্তব্য রাখেন পরিবেশবিদ স্থপতি ইকবাল হাবিব, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন, অধ্যাপক ড. হাফিজুর রহমান কার্জন, সাংবাদিক মনজুরুল ইসলাম, জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মনজিল মোরশেদ, পরিবেশ সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি কামরুল ইসলাম চৌধুরী, সাংবাদিক জাহিদুজ্জামান প্রমুখ।

সূত্রঃ জাগোনিউজ