দর্শনার্থীর অপেক্ষায় ময়নামতি জাদুঘর ও শালবন বিহার

ঈদ দর্শনার্থীর অপেক্ষায় রয়েছে কুমিল্লা কোটবাড়িতে অবস্থিত ময়নামতি জাদুঘর ও শালবন বিহার।

আর ঈদ উপলক্ষে নতুন সাজে সাজানো হয়েছে ময়নামতি জাদুঘর। সংস্কার করা হয়েছে শালবন বিহারেরও।

জাদুঘর সূত্র জানায়, জাদুঘরের ভেতরে টাইলস বসানো হয়েছে, লাগানো হয়েছে নতুন রঙ। নিরাপত্তার জন্য লাগানো হয়েছে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা। দর্শনার্থীরা এবার ঈদে নতুন রুপে দেখতে পাবে ময়নামতি জাদুঘরকে। এতে রাজস্ব আয়ও বাড়তে পারে বলে জাদুঘর কর্তৃপক্ষের ধারণা।

ময়নামতি জাদুঘরের সাথে সংস্কার হয়েছে শালবন বিহারের ভিক্ষু কক্ষ, আনন্দ বিহারের ভেতরের দেয়াল, ভোজ বিহারের ভেতরের দেয়াল ও শতরত্ন মন্দিরের সংস্কার।

সূত্র আরো জানায়, বাংলাদেশি নাগরিকদের জন্য ময়নামতি জাদুঘর ও শালবন বিহারের পৃথক ২০টাকা করে টিকেট। ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত ছেলে-মেয়েদের জন্য পাঁচ টাকা করে টিকেট। সার্কভুক্ত দেশের নাগরিকদের জন্য ১০০টাকা করে টিকেট। অন্য বিদেশি নাগরিকদের জন্য ২০০টাকা করে টিকেট বিক্রি করা হয়।

সচেতন নাগরিক কমিটি কুমিল্লার সভাপতি আলী আকবর মাসুম বলেন, ময়নামতি জাদুঘর ও শালবন বিহারসহ অন্যান্য ঐতিহাসিক নিদর্শন দেখতে মানুষের প্রচুর আগ্রহ রয়েছে। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো হওযায় অন্য জেলার মানুষও কুমিল্লায় সহজে আসতে পারেন। তবে কোটবাড়ি এলাকায় আবাসিক ব্যবস্থা থাকলে দর্র্শনার্থীর সংখ্যা আরো বাড়বে।

ময়নামতি জাদুঘরের কাস্টোডিয়ান আহমেদ আবদুল্লাহ জানান, ঈদুল ফিতর উপলক্ষে নতুন সাজে সেজেছে ময়নামতি জাদুঘর। শালবন বিহারেরও সংস্কার কাজ করা হয়েছে। গাড়ি পার্কিং মাঠটি নিরাপদ করতে সীমানা দেয়াল করা হয়েছে। মূলত ঈদের পরের দিন আমাদের দর্শনার্থীর সংখ্যা বেশি হয়। সেদিন আশা করছি দেড় লাখ টাকার টিকেট বিক্রি করতে পারব। তবে আবহাওয়া ও সার্বিক পরিস্থিতির উপর টিকেট কম বেশি বিক্রি নির্ভর করছে।

[রাইজিং বিডি]