“মা”

সৌরভ শর্মা :
সিডরের আঘাতে ক্ষতবিক্ষত আমি।
নগ্নপায়ে কাঁটার বিস্ফোরণ।
বিবর্ণ চেহারা আর বিশৃঙ্খল পোশাকে,
ছুটে যাই প্রেয়সীর উষ্ণ বাহুডোরে।
দুর্ভাগ্য, তার কাছে আজ আমি এক
সর্বহারা রিফিউজি।

অশ্রুসিক্ত পদচিহ্ন এঁকে পেরিয়েছি
কত পাহাড়,কত সরোবন।
ক্লান্ত হয়ে দাঁড়িয়ে আছি,
ঝঁকঝঁকে নগরীর ল্যাম্পপোস্টের পাশে। ক্ষতবিক্ষত আশা নিয়ে
শেষবার ছুটে যাই প্রিয় বন্ধুর কাছে।
আফসোফ,সে আমায় ভিখারী ভেবে তাড়িয়ে দিলো।

কেউ চিনেও চিনেনা,কেউ না চিনেও চিনেনা।
ডিনামাইটের আঘাতে মনের ভেতর কতগ্রহ ধ্বংস করি নিজের অজান্তে।
বিধ্বস্ত মন নিয়ে ছুটে যাই মায়ের কাছে।
কিছুটা ভয় কিছুটা সংশয় নিয়ে।
মা কী চিনবে আমায়?

মায়ের সম্মুখে দাঁড়িয়ে আছে
শত ভৎসনা আর তিরষ্কারের প্রতিচ্ছবি ।
ভাবছি আরো কত কি!
মুহূর্তেই মা বুকে জড়িয়ে নিলো আমায়।
মায়ের কোমল স্পর্শে
নিমিষেই মরুভূমিতে হলো এক চিরসবুজ প্রাণের সঞ্চার।