পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষা আগের পদ্ধতিতে হবে

২০১৬ সালের প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা বাতিল হচ্ছে না। আগের মত এবারও যথারীতি প্রাথমিক সমাপনী ও জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। মন্ত্রিসভার বৈঠক থেকে এ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব ফেরত দেওয়ায় প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা বহাল থাকছে।
সোমবার বৈঠক শেষে এ কথা জানিয়েছেন সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

সচিব জানান, মন্ত্রিসভার বৈঠকে দশটি এজেন্ডার মধ্যে একটি ছিল ‘অষ্টম শ্রেণিতে প্রাইমারি স্কুল সার্টিফিকেট (পিএসসি) পরীক্ষা পদ্ধতি চালুপূর্বক পঞ্চম শ্রেণি পর্যায়ে বিদ্যমান প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) পরীক্ষা পদ্ধতি বাতিলকরণের প্রস্তাব’। সোমবার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সচিব বলেন, বৈঠকে প্রস্তাবটি নিয়ে আলোচনা হয়। আলোচনা শেষে প্রস্তাবটিকে আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে বিস্তারিতভাবে মন্ত্রিসভায় উপস্থাপন করতে বলা হয়। তিনি বলেন, প্রস্তাবটি মন্ত্রিসভার অনুমোদন না পাওয়ায় পঞ্চম শ্রেণিতে আগের পরীক্ষাপদ্ধতি বহাল থাকছে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নেওয়া এর আগের সিদ্ধান্ত মন্ত্রিসভা মানেনি। এবারও প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা হবে।

প্রস্তাবটির ফেরত যাওয়া প্রসঙ্গে সচিব বলেন, শিক্ষার স্তর পরিবর্তনের এই বিশাল কর্মযজ্ঞ পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে পরবর্তী সময়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। কারণ এই প্রক্রিয়ার সঙ্গে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো, শিক্ষক নিয়োগ ও প্রশিক্ষণসহ অনেক ধরনের কর্মকাণ্ড জড়িত। প্রাথমিক স্কুল এক জায়গায়, ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণি আরেক জায়গায়। এতে সমস্যা হতে পারে। তাই এ ব্যাপারে বিস্তারিত পরিকল্পনা করে প্রস্তাবটি আবার মন্ত্রিসভায় আনতে বলা হয়েছে। তবে কত দিনের মধ্যে প্রস্তাবটি আবারও মন্ত্রিসভায় আনতে বলা হয়েছে সে সম্পর্কে সচিব কিছু বলেননি।

তিনি বলেন, পুরো বিষয়টি সম্পন্ন না হওয়া পর্যন্ত আগের মতোই পঞ্চম শ্রেণিতে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা ও অষ্টম শ্রেণিতে জুনিয়র স্কুলসার্টিফিকেট পরীক্ষা অব্যাহত থাকবে।

জানা গেছে, ২০০৯ সালে পঞ্চম শ্রেণিতে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষার প্রচলন করে সরকার। ২০১০ সালে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের জন্য চালু হয় ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা। অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য চালু হয় জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) এবং জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষা।

জাতীয় শিক্ষানীতির আলোকে প্রাথমিক শিক্ষাকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত উন্নীত করেছে সরকার। এ জন্য গত ১৮ মে শিক্ষার এ পর্বকে প্রাথমিক ওগণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে ন্যস্ত করা হয়। এর আগে পর্যন্ত মন্ত্রণালয়ের অধীন ছিল পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত। এক মাস পর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ২১ জুন ঘোষণা দেন এ বছর থেকে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থিদের জন্য প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা হবে না।

মন্ত্রিসভা বৈঠকে ১০টি এজেন্ডার মধ্যে জাতীয় টেলি যোগাযোগ নীতিমালা-২০১৬ এর খসড়া, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প নির্মাণে বাংলাদেশ সরকার ও রাশিয়ান ফেডারেশন সরকারের মধ্যে স্বাক্ষরের জন্য আন্তঃরাষ্ট্রীয় ঋণচুক্তির খসড়া এবং বাংলাদেশে বিদেশি মালিকানাধীন সমুদ্রগামী জাহাজ রেজিস্ট্রেশন প্রথা চালু সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়। অপর এজেন্ডাগুলোর মধ্যে ছিল মন্ত্রিদের বিদেশ সফর সম্পর্কে অবহিতকরণ।

[বাংলা ট্রিবিউন]